• সাধারণের বাজেট

    এর অর্থ হল সরকারের আয় ও ব্যয়ের হিসাব। যেভাবে আপনি আপনার ঘরের আয় ও ব্যয়ের হিসাব করেন। সেই একই ভাবেই সরকারও আয় ও ব্যয়ের হিসাব তৈরি করে। সাধারণ মানুষ ও সরকারের বাজেটে বিরাট কোনও ফারাক নেই।

  • প্রত্যক্ষ কর

    প্রত্যক্ষ কর সরাসরি মানুষের কাছ থেকে নেওয়া হয়। এই কর যেমন সাধারণ মানুষকে দিতে হয়, তেমনই কর্পোরেট সংস্থাকেও দিতে হয়। এই করের আওতায় আয়কর, কর্পোরেট কর, অন্যান্য সম্পত্তির উপর কর আসে।

  • পরোক্ষ কর

    যেসব কর সরাসরি নাগরিকের কাছ থেকে নেওয়া হয় না, কিন্তু পরোক্ষ ভাবে তার ভার আম জনতার উপরই এসে পড়ে তাকে পরোক্ষ করে বলে। যেমন দেশে তৈরি কোনও পণ্যের উপর এক্সাইজ কর।

  • সেস-সারচার্জ

    সেস-সারচার্জ হল সেই কর যা আয়করের উপর চাপানো হয়। এই ক্ষেত্রে করের উপর ফের কর নেওয়া হয়। করের উপর নির্ভর করেই এর গণনা হয়।

  • কর্পোরেট কর

    কোম্পানি বা সংস্থার উপর যে কর চাপানো হয়, তাকে কর্পোরেট কর বলে। কর্পোরেট কর থেকে সরকারের বিপুল আয় হয়।

  • সিকিউরিটি ট্রানজাকশন ট্যাক্স

    শেয়ার বাজারে শেয়ার বিক্রি করলে বা কিনলে তখন সিকিউরিটি ট্রানজাকশন ট্যাক্স দিতে হয়। একই ভাবে আপনি যদি মিউচুয়াল ফান্ড বা এসআইপি করেন তাহলেও আপনাকে সিকিউরিটি ট্রানজাকশন ট্যাক্স দিতে হয়।

  • ক্যাপিটল গেইন ট্যাক্স

    ক্যাপিটেল গেইন দুই ধরনের হয়। প্রথমটি দীর্ঘ মেয়াদী এবং দ্বিতীয়টি অল্প মেয়াদী। ক্যাপিটল গেইনের উপর নির্ভর করেই ক্যাপিটল গেইন ট্যাক্স নির্ধারিত হয়। যদি সম্পত্তিকে ৩ বছরের বেশি সময় পরে বিক্রি করা হয়, তাহলে দীর্ঘ মেয়াদী ক্যাপিটল গেইন হয়। তবে ৩ বছরের কম সময়ের জন্য হলে অল্প মেয়াদী ট্যাক্স দিতে হয়।

  • উৎপাদন শুল্ক

    উৎপাদন শুল্ককে এখন জিএসটির আওতায় আনা হয়েছে। সামান্য বিষয় থেকে শুরু করে বৃহৎ কোনও দ্রব্য, সবকিছুতেই ট্যাক্স দিতে হয়। দেশের অভ্যন্তরে তৈরি সব দ্রব্যেই সব দ্রব্যেই উৎপাদন ট্যাক্স দিতে হয়।

  • রাজস্ব ঘাটতি

    যখন সরকারের আয়, আনুমানিক খরচের থেকে বেশি হয় তখন সেই ফারাককে রাজস্ব ঘাটতি বলা হয়। এক্ষেত্রে একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে খরচ ও আয় কেবল রাজস্বের হিসাবেই বিচার হয়।

  • রাজকোষ ঘাটতি

    সরকারকে নিজের ঘাটতি পূরণের জন্য যতটা ধার নিতে হবে তাকে রাজকোষ ঘাটতি বলে।

  • অর্থবর্ষ ঘাটতি

    সরকার যখন ট্যাক্সের আয়ের থেকে বেশি খরচ করে দেয়, তখন আয় আর খরচের ভিতর যে ফারাক দেখা যায় তাকে অর্থবর্ষ ঘাটতি বলা হয়।

  • কাট মোশন

    এটি বাজেট প্রক্রিয়ার একটি অংশ। এই পদ্ধতির মাধ্যমে লোকসভায় অনুদানে কাটছাঁট করা যায়।

  • ভোট অন অ্যাকাউন্ট

    ভোটের বছরে যখন বাজেট পেশ হয়, তখন তাকে ভোট অন অ্যাকাউন্ট বলা হয়। সংবিধানের ১১৬ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, এই ক্ষেত্রে সরগার নীতিগত কোনও ঘোষণা করে না।

  • অর্থ বিল

    বাজেট পেশ করার পরে একটি অন্য প্রস্তাব পেশ করা হয়। যেখানে পরিবর্তন, প্রস্তাব-সহ একাধিক বিষয়ে সব তথ্য থাকে।

  • বার্ষিক অর্থনৈতিক খতিয়ান

    বাজেটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল বার্ষিক অর্থনৈতিক খতিয়ান। এই খতিয়ানকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়। প্রথমটি হল একীভূত ফান্ড। এই ফান্ড থেকেই আয়-ব্যয় হয়। দ্বিতীয়টি হল আকস্মিক ফান্ড ও তৃতীয়টি সার্বজনীন ফান্ড।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla