CM Mamata Banerjee: কংগ্রেস ছেড়ে ৩ বারের মুখ্যমন্ত্রী! ভারতের রাজনীতির ময়দানে প্রথম রেকর্ড মমতারই

CM Mamata Banerjee: কংগ্রেস ছেড়ে ৩ বারের মুখ্যমন্ত্রী! ভারতের রাজনীতির ময়দানে প্রথম রেকর্ড মমতারই
ছবি- এক নজরে ফিরে দেখা মমতার রাজনৈতিক উত্থান

CM Mamata Banerjee:সালটা ১৯৯৮। কালীঘাটে আদিগঙ্গাপারের মেয়েটি ক্রমশ হয়ে উঠেছিলেন রাজ্যের বাম বিরোধী মানুষের মূল ভরসা। এক নজরে ফিরে দেখা মমতার রাজনৈতিক উত্থান।

TV9 Bangla Digital

| Edited By: জয়দীপ দাস

May 05, 2022 | 9:01 PM

কলকাতা: এক বছর পূর্ণ করে ফেলেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (CM Mamata Banerjee) ৩ নম্বর ইনিংস। যা নিয়ে এদিন দিনভর জোরদার আলোচনা চলছে বাংলার রাজনৈতিক মহলে। এদিকে ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে বাংলায় চমকে দেওয়া ফল করে বিজেপি (BJP)। গেরুয়া শিবিরের ঝুলিতে আসে ১৮টি। ভোট শতাংশের হিসাবে বিজেপির খাতায় যায় ৪০ শতাংশ ভোট। এদিকে লোকসভা ভোটের আগেই বিজেপিতে চলে গিয়েছিলেন মমতার দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত সঙ্গী মুকুল রায়। কিন্তু বিধানসভা ভোটের আগে দিদির ঘরেও ভাঙন দেখা যায়। শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়,অর্জুন সিং, দীনেশ ত্রিবেদী, জিতেন তিওয়ারি, রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়, মিহির গোস্বামী সহ একের পর এক নেতা বিজেপির ঘরে চলে যান। অন্যদিকে নিজের লক্ষ্যে শুরু থেকেই অবিচল থেকেছেন মমতা। ভাঙা পা নিয়ে নন্দীগ্রাম থেকে লড়াই করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

শেষ বিধানসভা নির্বাচনে (Assembly Election 2021) গোটা দেশের নজর ছিল নন্দীগ্রামে। মোদী-শাহের চপার ঝড়ে উত্তাপ বেড়েছে বঙ্গের রাজনৈতিক ময়দানে। অনেকেই বলতে থাকেন, এবার পরিবর্তন আসছেই বাংলার বুকে। ঘরের মেয়ে মমতার তৃণমূলের শিকড় উপড়োতে মোদী-শাহের সঙ্গী হিসাবে বাংলায় ঝড় তুলতে আসেন যোগী আদিত্যনাথ, মিঠুন থেকে শুরু করে তাবড় হেভিওয়েটরা। উল্টোদিকে তখন হুইলচেয়ারেই গোটা বাংলা চষে বেড়াচ্ছেন মমতা। সঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ভোট পর্ব শুরু হতেই ঘুরতে থাকে খেলা। ভোট গোনার দিন দুপুর গড়াতেই শুনশান হয়ে যায় হেস্টিংসে বিজেপি ওয়ার রুম। সবুজ ঝড়ে উড়ে যায় পদ্ম ব্রিগেড। মমতা প্রাচীরে ধাক্কা খেয়ে থেমে যায় মোদী ঝড়। তার জেরে গোটা দেশেই আশার আলো দেখছে বিজেপি বিরোধী শক্তি। আলো দেখাচ্ছেন মমতা। তারপর থেকেই ঘরের গণ্ডি পেরিয়ে মমতার ছায়া লম্বা হচ্ছে জাতীয় রাজনীতিতেও। ২০২৪ সালে তিনিই প্রধানমন্ত্রী। এমন জল্পনাও শুরু হয়ে যায়। খাতায় কলমে নয়, বাস্তবের মাটিতেও সর্বভারতীয় তকমা পেতে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে এই জয় যাত্রা এত সহজ ছিল না।

সালটা ১৯৯৮। কালীঘাটে আদিগঙ্গাপারের মেয়েটি ক্রমশ হয়ে উঠেছিলেন রাজ্যের বাম বিরোধী মানুষের মূল ভরসা। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে আলাদা দল গড়লেন ওই বছরেই। তারপর গঙ্গা দিয়ে বয়ে গিয়েছে অনেক জল। বাম শাসনের কোমড় ভেঙে দিয়েছে সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামের আন্দোলন। অবশেষে আসে ২০১১ সালের বিধানসভা ভোট। শেষ হয়ে যায় ৩৪ বছরের বাম সরকারের ইনিংস শেষ। মুখ্যমন্ত্রীর মসনদে বসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিনটা ২০ মে, ২০১১। অনেকেই মনে করতেন, বিরোধী নেত্রীর ভূমিকাতেই মমতাকে মানায়। তিনি প্রশাসন চালাতে পারবেন না। কিন্তু, মুখ্যমন্ত্রী মমতা পড়লেন, উঠলেন, ছুটলেন, আবার পড়লেন, উঠলেন। বোঝালেন যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে। বোঝালেন, তিনি সরকারও চালাতে পারেন।

নিজের মেকওভার বদলের সঙ্গে সঙ্গে চলল রাজ্যের মেকওভার বদলের কাজও। ঝকঝকে রাস্তা, চকচকে আলো, নীল-সাদার মেকআপ।মুকুল রায় বলতেন, মমতা একটি ব্র্যান্ড। সেটা বিলক্ষণ জানেন মমতাও। নিজস্ব ঢংয়ে বদল আনলেন প্রশাসনের অন্দরেও। জেলায় জেলায় চলল প্রশাসনিক বৈঠক। হল লাইভ টেলিকাস্ট। নিয়ে এলেন কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, সবুজসাথীর মতো একের পর এক নানা সামাজিক প্রকল্প। রাজ্যের মুকুটে জুড়ল আন্তর্জাতিক সম্মানের পালক। কিন্তু তারপরও মসৃণ হয়নি যাত্রাপথ। অন্তর্দ্বন্ধ, সিন্ডিকেট, মহিলাদের নিরাপত্তা নিয়ে নানা বিতর্কে জড়িয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। কিন্তু মহিলারা আস্থা রেখেছেন মমতার উপরই।

এই খবরটিও পড়ুন

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, বাম-কংগ্রেসের বিরোধিতাই ছিল মমতার সাফল্যের চাবিকাঠি। ২০১৯-এর ভোট প্রচারও শুরু হয়েছিল সেই চেনা ছকেই। কিন্তু প্রচারের ময়দানে নেমেই ভুল বুঝতে পারেন। লক্ষ্য বদলে টার্গেট করেন বিজেপিকে। প্রবল মোদী ঝড়ের মধ্যেও ২২ আসন ধরে রাখে তৃণমূল। সময়ের সঙ্গে নিজেকে বার বার বদলেছেন। অগ্নিকণ্যা থেকে হয়েছেন শাসক। পিছপা হননি ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোরের আইপ্যাকের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতেও। দিদিকে বলো, দুয়ারে সরকার, স্বাস্থ্যসাথী, লক্ষ্মীর ভাণ্ডার, দিনের পর দিন সরকারের ভাবমূর্তি বদলাতে নিয়েছেন নিত্যনতুন কৌশল। কিন্তু তাঁর সরকারকে ঘিরে নানা অভিযোগ সত্ত্বেও ২০২১ সালের ভোটে মানুষ আস্থা রেখেছেন ঘরের মেয়ের উপরেই। আদি বনাম নব্যের কোন্দল, ভাইপো অভিষেকের সঙ্গে মতবিরোধ, সব কিছু সামলাতে ভরসা শুধু মমতাই। কংগ্রেস ছেড়ে নতুন পার্টি বানিয়ে পরপর তিন বার মুখ্যমন্ত্রী। মমতা ছাড়া সেই নজির ভূভারতে কারও নেই। বিরোধী নেত্রী হন বা মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৈরি করেছেন নিজস্ব স্টাইল। শূন্য থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠা করেছেন ব্র্যান্ড মমতাকে। এবার জাতীয় রাজনীতিতেও ব্র্যান্ড মমতা।

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 BANGLA