‘মমতা দিদিকে অভিনন্দন’, শপথের পর বার্তা মোদীর

জয়ের পরও শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। অন্য দিকে রাজ্যের হিংসার ঘটনা নিয়ে খোঁজখবরও নিয়েছেন রাজ্যপালের কাছে।

  • TV9 Bangla
  • Published On - 13:48 PM, 5 May 2021
'মমতা দিদিকে অভিনন্দন', শপথের পর বার্তা মোদীর
ফাইল ছবি

কলকাতা: সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে মমতার জয়ের পর শুভেচ্ছা জনিয়ে ফোন করেছেন অনেকেই। অখিলেশ যাদব, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতো আঞ্চলিক দলগুলির নেতাদের থেকে ফোন এসেছে। ফোন করেছে রজনীকান্তও। কিন্তু সেই তালিকায় ছিলেন না নরেন্দ্র মোদী। টুইট করেই বার্তা দিয়েছিলেন তিনি। আর শপথের দিনেও টুইটেই শুভেচ্ছা জানালেন মোদী। রাজনৈতিক মহলের দাবি, একুশের নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) মূল প্রতিপক্ষ ছিলেন নরেন্দ্র মোদীই (Narendra Modi)। তাই শপথে তাঁর বার্তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

বুধবার সকালে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তারপরই শুভেচ্ছা জানাতে মাইক্রোব্লগিং সাইটকেই বেছে নেন মোদী। তিনি লিখেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার জন্য মমত দিদিকে অভিনন্দন।’

একুশের ভোট আবহে বারবার রাজ্যে এসেছেন নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী হয়েও যে ভাবে একের পর এক প্রচার সভায় দেখা গিয়েছে তাঁকে, তা কার্যত নজিরবিহীন। শুধু শহর নয়, প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়েও তৃণমূলকে কড়া বার্তা দিয়ে এসেছেন তিনি। তাঁর এই বিরোধী ভূমিকা একুশের ভোটের ওজন বাড়িয়ে দিয়েছিল অনেকটাই। কিন্তু ফলাফলে সব গেরুয়া শিবিরের প্রত্যাশা শেষ হয়ে যায়। ২০০ পার করার টার্গেট নিয়েছিলেন তাঁরা। ফলাফলে ১০০ আসনও মেলেনি পদ্ম শিবিরের। তাই সেই ফলাফলের পর মোদী কী বার্তা দেন, সে দিকে তাকিয়ে ছিলেন অনেকেই। সে দিনও অবশ্য মমতাকে অভিনন্দন জানান তিনি। পাশাপাশি, করোনা আবহে সবরকম সাহায্য করার বার্তা দেন তিনি। মনে করিয়ে দেন, ‘বিজেপি গত নির্বাচনের থেকে উপস্থিতি বাড়িয়েছে অনেকটাই।’ তিনি লিখেছিলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গবাসী ভাইবোনেরা, যারা আমাদের দলকে ভোট দিয়েছেন, তাদের আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই। অতীতের এক নগন্য উপস্থিতি থেকে শুরু করে, বিজেপি’র গুরুত্ব, আজ যথেষ্ট বেড়েছে। বিজেপি মানুষের জন্যে কাজ করে যাবে। এই নির্বাচনে সমস্ত কার্যকর্তার উৎসাহব্যঞ্জক অংশগ্রহন, প্রশংসনীয়।’

আরও পড়ুন: সম্ভবত শুভেন্দুই হবেন বিরোধী দলনেতা

তবে রাজ্যপালের কাছে সন্ত্রাসের খবর নিয়ে মোদী বুঝিয়ে দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে কোনও ছন্দপতন হয়নি, বিরোধিতা বজায় আছে। রাজ্যে হিংসার ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে মঙ্গলবার ফোন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মঙ্গলবার টুইটে সে কথা জানান রাজ্যপাল। প্রধানমন্ত্রীকে অশান্তি, হিংসা, লুঠপাটের বর্ণনাও দিয়েছেন রাজ্যপাল।