ত্রিপুরায় জামিন পেল পিকে-র টিম, অভিষেকের সফরের আগে ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে পুজো দিলেন ব্রাত্যরা

প্রশান্ত কিশোরের টিমের সার্ভে করতে আর কোনও বাধা রইল না। মামলা হয়েছিল বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে।

ত্রিপুরায় জামিন পেল পিকে-র টিম, অভিষেকের সফরের আগে ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে পুজো দিলেন ব্রাত্যরা
ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে তৃণমূল নেতারা (ব্রাত্য বসুর ফেসবুক থেকে প্রাপ্ত)

আগরতলা: অবশেষে জামিন পেলেন আইপ্যাকের কর্মীরা। গত কয়েকদিন ধরে তাঁদের ত্রিপুরার হোটেলে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছিল। আজ, বৃহস্পতিবার তাঁদের আগাম জামিন মঞ্জুর হয়েছে। বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছিল। গতকালই তাঁদের নামে মামলা হয় ও সমন পাঠায় পুলিশ। জামিন দেওয়ার পর যে সার্ভের কাজে তাঁরা গিয়েছলেন তাতে আর কোনও বাধা রইল না বলেই জানা গিয়েছে।

এ দিকে, আজ ত্রিপুরায় গিয়েছে তৃণমূলের দুই সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার ও ডেরেক ও’ব্রায়েন। এ দিন কলকাতা থেকে যাওয়ার সময় কাকলি বলেন, ‘ত্রিপুরায় সাধারণ মানুষের ওপর অত্যাচার, অনাচার হচ্ছে। মহিলারা পুরুষ পুলিশের দ্বারা অত্যাচারিত, গণতন্ত্র ভূলুণ্ঠিত।’ তাঁর দাবি, বাংলায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাজ দেখে ত্রিপুরাবাসী চাইছে যে সেখানেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাল ধরুক।

মহামারী আইনে ত্রিপুরায় আইপ্যাক কর্মীদের আটক করার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে যখন বিধানসভা নির্বাচন হচ্ছিল, সেই সময় দিল্লি থেকে যারা এসেছিলেন তাঁদেরও তো ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট আইনে রাখা উচিত। তাঁদের বিরুদ্ধে এই আইন বলবৎ করা উচিত। আমরা অত্যাচারিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে যাচ্ছি।’ শুক্রবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ত্রিপুরা যাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

গতকালই ত্রিপুরা পৌঁছেছেন তৃণমূলের তিন প্রতিনিধি ব্রাত্য বসু, মলয় ঘটক ও ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ সকালে তাঁরা ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে পুজো দিয়েছেন। আরও পড়ুন:

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla