Ian Chappell: ১০০ নয়, ১২০তেই সায় চ্যাপেলের

ক্রিকেটকে আরও টানটান করার জন্য হান্ড্রেড চালু করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। আট টিমের ওই টুর্নামেন্ট নিয়ে কম আলোচনা নেই। বলা হচ্ছে, ক্রিকেটের এই ফর্ম্যাটটাই জায়গা পেতে পারে অলিম্পিকে।

Ian Chappell: ১০০ নয়, ১২০তেই সায় চ্যাপেলের
Ian Chappell: ১০০ নয়, ১২০তেই সায় চ্যাপেলের

মেলবোর্ন: ক্রিকেটকে (Cricket) আরও জনপ্রিয় করার জন্য, অলিম্পিকে (Olympics) জায়গা করে নেওয়ার জন্য হান্ড্রেড-এর দরকার নেই। টি-টোয়েন্টিই (T-20) ক্রিকেটই অলিম্পিকে জায়গা পেতে পারে। এমনই মন্তব্য অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেলের (Ian Chappell)।

ক্রিকেটকে আরও টানটান করার জন্য হান্ড্রেড চালু করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। আট টিমের ওই টুর্নামেন্ট নিয়ে কম আলোচনা নেই। বলা হচ্ছে, ক্রিকেটের এই ফর্ম্যাটটাই জায়গা পেতে পারে অলিম্পিকে। হান্ড্রেড মানে হল ১০০ বলের খেলা। তাতে সময়ও কম লাগবে। গতি বাড়বে আরও।

চ্যাপেলের স্পষ্ট মন্তব্য, ‘হান্ড্রেডকে নিয়েই আসা হয়েছে সর্বস্তরে ক্রিকেটকে আরও জনপ্রিয় করে তোলার জন্য। এতে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলো আরও বেশি ক্রিকেটমুখী হবে। টিভি সম্প্রচারের ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে। অলিম্পিকে ক্রিকেট ঢোকানোর স্বপ্নও পূরণ হবে। কিন্তু টি-টোয়েন্টির মধ্যে এই সব মশলা রয়েছে। তাই টি-টোয়েন্টিই অলিম্পিকে জায়গা করে নিতে পারে।’

একই সঙ্গে চ্যাপেলের যুক্তি, ‘ক্রিকেট টিমগেম। খেলাটার মধ্যে একটা মাদকতা আছে। যে কারণে তরুণ প্রজন্ম খেলাটার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ে। ক্রিকেট প্রশাসকদের কিন্তু খেলাটাকে আরও ছোট করার আগে এটা মাথায় রাখতে হবে। খেলাটাকে আরও ছোট করলে কিন্তু পারফর্ম করার যে তৃপ্তিটা থাকে, সেটা কমে যাবে।’

হান্ড্রেডের প্রতি একবারেই আস্থাশীল নন চ্যাপেল। তাঁর সাফ কথা, ‘আমার ক্রিকেট কেরিয়ারে দেখেছি, যে কোনও সমস্যার দুটো পথ থাকে। সহজে সেটা মেটানো কিংবা আর জটিল করে তোলা। ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া কিন্তু বরাবর জটিল পথটাই বাছে। সেটাই আবার করতে চলেছে।’

অলিম্পিকের আরও খবর পড়তে ক্লিক করুনঃ টোকিও অলিম্পিক ২০২০

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla