ভারতে আসছে পোকোর প্রথম ৫জি ফোন, কেনা যাবে ফ্লিপকার্টে

আগামী ৮ জুন ভারতে লন হতে চলেছে পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোন। ফ্লিপকার্ট থেকে কেনা যাবে এই ফোন। এই প্রথম পোকোর ৫জি ভ্যারিয়েন্ট লঞ্চ হবে ভারতে।

ভারতে আসছে পোকোর প্রথম ৫জি ফোন, কেনা যাবে ফ্লিপকার্টে
ভারতে আসছে পোকোর নতুন স্মার্টফোন।

আগামী ৮ জুন ভারতে লঞ্চ হতে চলেছে পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোন। পোকো সংস্থার তরফেই একথা ঘোষণা করা হয়েছে। মে মাসে এই ফোন বিশ্বের বাজারে লঞ্চ হয়েছে। পোকো সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে ফ্লিপকার্ট থেকে কেনা যাবে তাদের নতুন স্মার্টফোন পোকো এম৩ প্রো ৫জি। গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতে লঞ্চ হয়েছিল পোকো এম৩ মডেল। তারই আপগ্রেড ভার্সান পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোন। পোকো সংস্থা জানিয়েছেন, ভারতে এই প্রথম তাদের ৫জি ভ্যারিয়েন্ট লঞ্চ হতে চলেছে।

ভারতে পোকো-র প্রথম ৫জি ফোনের সম্ভাব্য দাম

গ্লোবাল মার্কেটে পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোনের ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ অপশনের দাম ছিল EUR ১৫৯ (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১৪,১০০ টাকা)। আর ৬ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮ জিবি স্টোরেজ অপশনের দাম EUR ১৭৯ (ভারতীয় মুদ্রায় অরায় ১৫,৯০০ টাকা)। অনুমান করা হচ্ছে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের দাম এর আশেপাশেই থাকবে। ইউরোপীয় বাজারে কুল ব্লু, পাওয়ার ব্ল্যাক এবং পোকো ইয়েলো… এই তিন রঙে লঞ্চ হয়েছিল পোকো এম৩ প্রো ৫জি। অনুমান, ভারতেও একই রঙে পাওয়া যাবে এই মডেল।

পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোনের সম্ভাব্য ফিচার

১। এই ফোনে থাকতে পারে অ্যানড্রয়েড ১১ বেসড MIUI ১২। এছাড়াও ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস হোল-পাঞ্চ ডিসপ্লে থাকতে পারে এই ফোন, যার রিফ্রেশ রেট ৯০Hz। এছাড়াও থাকতে পারে MediaTek Dimensity ৭০০ প্রসেসর। ৬ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম এবং ১২৮ জিবি পর্যন্ত ইন্টারনাল স্টোরেজ থাকার সম্ভাবনা রয়েছে এই ফোনে।

২। পোকো এম৩ প্রো ৫জি ফোনে থাকতে পারে একটি ট্রিপল রেয়ার ক্যামেরা সেটআপ। সেখানে একটি ৪৮ মেগাপিক্সেলের মেন ক্যামেরার সঙ্গে একটি ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা এবং একটি ২ মেগাপিক্সেলের ডেপথ সেনসর থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও থাকতে পারে ৮ মেগাপিক্সেলের একটি সেলফি ক্যামেরা।

আরও পড়ুন- পোকো এক্স৩ জিটি নামে ভারতে লঞ্চ হতে পারে রেডমি নোট ১০ প্রো ৫জি ফোন

৩। এই ফোনের ব্যাটারি হতে পারে ৫০০০mAh। তার সঙ্গে থাকতে পারে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট। এছাড়া এই ফোনে থাকতে পারে একটি সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেনসর। তার সঙ্গে এইআই ফেস আনলক সাপোর্ট থাকারও সম্ভাবনা রয়েছে। কানেকটিভিটি অপশন হিসেবে এই ফোনে থাকতে পারে ডুয়াল সিমের স্লট, ৫জি পরিষেবা, এনএফসি, ডুয়াল ব্যান্ড ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভি ৫.১, জিপিএস, ৩.৫ মিলিমিটারের অডিয়ো জ্যাক এবং ইউএসবি টাইপ-সি পোর্ট।