হোলির ছবিকে আরও রঙিন করতে ব্যবহার করুন এই পাঁচটি ফটো অ্যাপ

ছবি তোলার সময় বেশি ফিল্টার ব্যবহার করবেন না। আর ক্যামেরা ফ্রেন্ডলি হওয়া প্রয়োজন।

হোলির ছবিকে আরও রঙিন করতে ব্যবহার করুন এই পাঁচটি ফটো অ্যাপ
এইসব ফটো অ্যাপের সাহায্যে ছবি এডিট করলেই ঠিক যেমন চান, তেমন ছবিই পাবেন।

হোলি- দ্য ফেস্টিভ্যাল অফ কালার। চারদিকে কেবল রঙের ছোঁয়া। আর এত রঙের মাঝে শুধু হোলি খেলাতেই লোকজন মেতেছেন তা নয়। সেই সঙ্গে চলেছে ছবি তোলাও। সেলফি হোক গ্রুপফি, কিংবা পোজ দিয়ে ছবি তোলা, অথবা দলবেঁধে বন্ধুদের সঙ্গে ছবি বা ক্যান্ডিড মোমেন্ট, লেন্সবন্দি হয়েছে সমস্ত মুহূর্ত।

এবার পালা সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করার। কিন্তু ফেসবুক হোক বা ইনস্টাগ্রাম কিংবা হোয়াটসঅ্যাপের ডিপি বা স্ট্যাটাস— সব জায়গাতেই ঝকঝকে ছবি থাকতে হবে। তবে ছবি যদি সাধারণ হয় তাহলেও সমস্যা নেই। অ্যানড্রয়েড এবং আইওএস , দুই ভার্সানের জন্যই রয়েছে অসংখ্য ফটো অ্যাপ। এইসব ফটো অ্যাপের সাহায্যে ছবি এডিট করলেই ঠিক যেমন চান, তেমন ছবিই পাবেন।

আরও পড়ুন- হোলির রঙ থেকে কীভাবে বাঁচাবেন আপনার স্মার্টফোন এবং অন্যান্য গ্যাজেট, জেনে নিন

Snapseed- অ্যানড্রয়েড এবং আইওএস, দুটো ভার্সানেই রয়েছে এই অ্যাপ। ছবিতে ফিল্টার অ্যাপ্লাই করে ম্যানুয়ালি সেটার উপর কাজ করার অপশন রয়েছে এই অ্যাপে।

VSCO- অ্যানড্রয়েড এবং আইওএস- এর এই অ্যাপ ফ্রিতে ব্যবহার করা যায়। প্রিসেট ফিল্টারের সাহায্যে ছবির অ্যাডজাস্টমেন্ট করা সম্ভব এই ফটো অ্যাপে।

Prisma- এই অ্যাপের সঙ্গে ইতিমধ্যেই ইউজাররা পরিচিত। এই অ্যাপের সাহায্যে এডিট করলে paint-like art অথবা স্কেচিং- এর মতো দেখতে লাগবে আপনার ছবি।

Adobe Photoshop Lightroom- এই ফটো অ্যাপে থাকে অসংখ্য গ্র্যানুলার এডিটিং অপশন। মূলত রঙের ক্ষেত্রে এই  অপশন থাকে। এছাড়া হাইলাইট, শ্যাডো এবং অন্যান্য অনেক ক্ষেত্রেই এডিটিং অপশন থাকে। এই অ্যাপে ‘র’ ইমেজ ইমপোর্ট করা যায়। ইউজারের যদি Adobe Creative Cloud সাবস্ক্রিপশন থাকে, তাহলে আরও অনেক ফিচার পাওয়া সম্ভব।

Pixlr- অ্যানড্রয়েড এবং আইওএস ভার্সানে ফ্রিতে পাওয়া যায় এই ফটো অ্যাপ। বিভিন্ন অ্যানিমেশনের সাহায্যে ফটো এডিট করার অপশন থাকে এই অ্যাপে।

ছবি তোলার সময় বেশি ফিল্টার ব্যবহার করবেন না। আর ক্যামেরা ফ্রেন্ডলি হওয়া প্রয়োজন।