প্রত্যেকের উচিৎ সার্বভৌমত্ব বজায় রাখা, নাম না করে পাক, চিনকে বার্তা মোদীর

প্রত্যেকের উচিৎ সার্বভৌমত্ব বজায় রাখা, নাম না করে পাক, চিনকে বার্তা মোদীর

TV9 বাংলা ডিজিটাল: একে অপরের প্রতি সম্মান বজায় রেখেই এগিয়ে চলা উচিৎ। প্রত্যেকের দায়িত্ব সার্বভৌমত্ব অক্ষুন্ন রাখা। ভারত বিশ্বাস করে অন্যের সীমান্ত, ভূখণ্ডের প্রতি সম্মান প্রদর্শনে। নাম না করেই সাংহাই কোঅপারেশন অরগানাইজেশন বা এসসিও (SCO)-র ভার্চুয়াল মিটে এভাবেই চিন, পাকিস্তানকে বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। একইসঙ্গে তিনি বুঝিয়ে দেন ভারত-চিন কিংবা ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক ইস্যুগুলি নিয়ে আলোচনার জায়গা এটা নয়। সার্বিক সমস্যাগুলিই এসসিও (SCO)-এর এজেন্ডায় থাকা উচিৎ।

মঙ্গলবার এসসিও’র ভার্চুয়াল মিটে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও ছিলেন চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন-সহ প্রতিনিধি দেশের সদস্যরা। এদিন সফল ও দক্ষ নেতৃত্বের জন্য পুতিনকে অভিনন্দনও জানান মোদী।

বারবার নিয়ন্ত্রণ রেখা পার করে নিজেদের সীমাবদ্ধতা ভুলে যায় পাকিস্তান। বিনা প্ররোচনায় ভারতের দিকে উড়ে আসে গুলি,মর্টার শেল। অন্যদিকে লাদাখ নিয়ে গত কয়েক মাসে ভারত-চিন সম্পর্কে শীতলতা তৈরি হয়েছে। এদিন নরেন্দ্র মোদী বলেন, “ভারতের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক বন্ধনে সাংহাই কোঅপারেশন অরগানাইজেশনের দেশগুলির সম্পর্ক গভীর। ভারত বিশ্বাস করে যোগাযোগকে সুদৃঢ় করতে আমরা যখন একে অপরের দিকে এগোচ্ছি তখন তার সঙ্গে একে অপরের প্রতি সম্মান, সার্বভৌমত্বেও আস্থা রাখব।”

 

একইসঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কড়া বার্তা, “এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক যে অপ্রয়োজনীয়ভাবে এসসিও (SCO) এজেন্ডাতে অযথা দ্বিপাক্ষিক ইস্যুগুলিকে আনা হচ্ছে। এটা এসসিও’র চার্টারকে লঙ্ঘন করার সমান। সাংহাই স্পিরিটকেও অসম্মান করা হয়।”

কোভিড-১৯ (COVID-19) পরিস্থিতি নিয়েও এদিন নরেন্দ্র মোদী বলেন, “আগামী দিনে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন উৎপাদক দেশ হিসাবে ভারত (India) সেই প্রতিটি দেশকে সাহায্য করবে যারা এই বিপদে লড়াই করছে। ভারত ১৫০টি দেশকে অত্যাবশ্যকীয় ওষুধ পাঠিয়েছে।”

বর্তমানে এসসিও (SCO)-এর প্রতিনিধি হিসাবে ভারত ছাড়াও রয়েছে রাশিয়া, চিন, পাকিস্তান, কাজ়াখস্তান, কিরগিজ়স্তান, তাজিকিস্তান, উজ়বেকিস্তান। এছাড়াও ইরান, আফগানিস্তান, বেলারুস ও মঙ্গোলিয়া রয়েছে ‘অবজারভার স্টেট’ হিসাবে। এই বার্ষিক সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্যই হল রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতি, নিরাপত্তা, বাণিজ্য, সংস্কৃতির মতো ইস্যুগুলি নিয়ে আলোচনা।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla