হাওড়ায় নতুন করে কনটেনমেন্ট জোন তৈরির সিদ্ধান্ত জেলা প্রশাসনের

গত ১৪ জুন স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী গত ২৪ গন্টায় জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৩৫ জন। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। আর যাতে নতুন করে সংক্রমণ না ছড়ায় তা রুখতেই এই কনটেইমেন্ট জোন করার সিদ্ধান্ত।

হাওড়ায় নতুন করে কনটেনমেন্ট জোন তৈরির সিদ্ধান্ত জেলা প্রশাসনের
অলংকরণ: অভীক দেবনাথ

হাওড়া: করোনা (Corona) সংক্রমণ রুখতে হাওড়ায় (Howrah) ফের কনটেনমেন্ট জোন (Containment Zone) করার সিদ্ধান্ত নিল জেলা প্রশাসন। এজন্য হাওড়া পুরসভা এলাকা ও হাওড়া গ্রামীণের বেশকিছু এলাকাকে চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়েছে। কোন কোন এলাকায় সংক্রমণের সংখ্যা বেশি তা দেখে কনটেনমেন্ট জোনের নিয়মানুযায়ী প্রাথমিকভাবে একটি তালিকাও তৈরি করা হচ্ছে বলে খবর।

জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, দু’একদিনের মধ্যেই চিহ্নিত করা হবে এই কনটেনমেন্ট জোনগুলি। রাজ্য চলছে কার্যত লকডাউন। তার মধ্যে এই কনটেনমেন্ট জোনগুলিকে ঘিরে দেবে পুলিশ। সেখানে যান চলাচল, দোকান-বাজার ইত্যাদিতে আনা হবে নিষেধাজ্ঞা। তবে ওই এলাকার বাসিন্দাদের খাবার, ওষুধ, চিকিৎসা পরিষেবার কোনও অসুবিধা হবে না বলে দাবি প্রশাসনের। জেলা প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দফতরই এই দায়িত্ব নেবে।

প্রসঙ্গত, ১৪ জুনের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী গত ২৪ গন্টায় জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৩৫ জন। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। আর যাতে নতুন করে সংক্রমণ না ছড়ায় তা রুখতেই এই কনটেনমেন্ট জোন করার সিদ্ধান্ত।

মঙ্গলবার হাওড়া পুরসভায় জেলা প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা একটি বৈঠক করেন। এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী তথা হাওড়া পুরসভার প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারপার্সন অরূপ রায়, জেলাশাসক মুক্তা আর্য –সহ জেলা প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা। এদিন রাজ্য সরকারের করোনা নিয়ে হাওড়া জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত এক পদস্থ আধিকারিক সঞ্জয় থারেও এই বৈঠকে ছিলেন। সেখানেই হাওড়ার সংক্রমণবহুল এলাকাগুলিকে কনটেনমেন্ট জোন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শুধু কনটেনমেন্ট জোন নয়, রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতো ‘সুপার স্প্রেডার’ গ্রুপে হাওড়া জেলায় যাঁরা রয়েছেন, তাঁদের জন্য ভ্যাকসিনের দ্রুত ব্যবস্থা করার কথাও এদিনের বৈঠকে স্থির হয়েছে। পরিবহণ কর্মী, হকার, সবজি বিক্রেতা, মাছ বিক্রেতা, ব্যাঙ্ক কর্মী, সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের যাতে তাড়াতাড়ি টিকাকরণ করা হয় সে ব্যাপারে পরিকল্পনা করেছে জেলা প্রশাসন।

আরও পড়ুন: ‘বেসুরো’তেই বিড়ম্বনা! আরও চাপ বাড়ল রাজীবের

হাওড়া জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক নিতাই চন্দ্র মণ্ডলের কথায়, “জেলায় সুপার স্প্রেডার হিসেবে ২ লক্ষ ৯ হাজার মতো বাসিন্দাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তার মধ্যে অর্ধেককে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়ে গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত প্রায় ১ লক্ষ ২ হাজার মতো সুপার স্প্রেডারকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।”

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla