বিকট শব্দে থামল তোবড়ানো বাস, দুর্ঘটনাস্থলেই মৃত তিন

বাসের যাত্রীদের অভিযোগ, চালকের কানে মোবাইল ফোন ছিল। কথা বলতে বলতে দ্রুত গতিতে বাস নিয়ে ছুটছিলেন তিনি।

বিকট শব্দে থামল তোবড়ানো বাস, দুর্ঘটনাস্থলেই মৃত তিন
দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাস।

দার্জিলিং: বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃত তিন। সোমবার গভীর রাতে শিলিগুড়ির (Siliguri) ফাঁসিদেওয়া ব্লকে পথদুর্ঘটনাটি (Road Accident) ঘটে । গুরুতর আহত অবস্থায় আরও চারজনকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনায় দুমড়ে মুচড়ে গিয়েছে উত্তরবঙ্গ পরিবহণ নিগম বা এনবিএসটিসির বাসটি। যাত্রীদের কথায়, কলকাতা থেকে শিলিগুড়ি যাচ্ছিল বাসটি।

দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসে ছিলেন এই দুই যাত্রী।

স্থানীয় সূত্রে খবর, এদিন রাত তিনটে নাগাদ দুর্ঘটনাটি ঘটে। কনকনে ঠান্ডা। চারদিকে কুয়াশার চাদর। এরইমধ্যে ফাঁসিদেওয়ার বিধাননগর বাসস্ট্য়ান্ড থেকে কিছুটা দূরে পাইন ফার্ম সার্ভিস স্টেশনের উল্টোদিকে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক ধরে আসছিল একটি যাত্রীবাহী বাস। হঠাৎই সামনে চলে আসে একটি ট্রাক। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে বাস ও ট্রাকের।

আরও পড়ুন: নাম না করে শুভেন্দুকে ‘ছারপোকা’ বলে কটাক্ষ পার্থর

বাসের যাত্রীদের অভিযোগ, চালকের কানে মোবাইল ফোন ছিল। কথা বলতে বলতে দ্রুত গতিতে বাস নিয়ে ছুটছিলেন তিনি। শীতের রাতে যাত্রীরা তন্দ্রাচ্ছন্ন। কেউ কেউ আবার ঘুমে কাদা। এরইমধ্যে বিকট শব্দে থেমে যায় বাস। কিছু বোঝার আগেই আসন থেকে ছিটকে পড়েন তাঁরা। একে অপরের উপরে পড়ে যান। পরে বিধাননগর পুলিস ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। পৌঁছয় দমকলের ইঞ্জিনও। উদ্ধারকাজে হাত লাগান স্থানীয়রাও। এদিকে দুর্ঘটনার পরই জাতীয় সড়কে কিছুক্ষণের জন্য যান চলাচল স্তব্ধ হয়ে যায়। পরে ক্রেন এনে দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসটিকে সরানো হলে ফের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।