মায়ের হাতে জলের বোতল, চলন্ত ট্রেনের জানলা গলে বাইরে পড়ল শিশু!

Train Accident: হুলুস্থুল কাণ্ড আপ ক্যাপিটাল স্পেশাল ট্রেনেল (Train)। রাজেন্দ্র নগর থেকে এনজেপি-র দিকে যাওয়ার পথে ট্রেনের জানলা দিয়ে গলে পড়ে গেল একরত্তি শিশু! মঙ্গলবার ঘটানাটি ঘটেছে উত্তরবঙ্গের অধিকারী রেল স্টেশনে।

মায়ের হাতে জলের বোতল, চলন্ত ট্রেনের জানলা গলে বাইরে পড়ল শিশু!
ট্রেনের জানলা দিয়ে পড়ে গেল শিশু! নিজস্ব চিত্র

শিলিগুড়ি: হুলুস্থুল কাণ্ড আপ ক্যাপিটাল স্পেশাল ট্রেনেল (Train)। রাজেন্দ্র নগর থেকে এনজেপি-র দিকে যাওয়ার পথে ট্রেনের জানলা দিয়ে গলে পড়ে গেল একরত্তি শিশু! মঙ্গলবার ঘটানাটি ঘটেছে উত্তরবঙ্গের অধিকারী রেল স্টেশনে।

জানা গিয়েছে, এদিন আপ ক্যাপিটাল স্পেশাল ট্রেনে একটি পরিবারের সদস্যরা পাটনা থেকে শিলিগুড়ি যাচ্ছিলেন। তাদেরই বছর চারেকের এক শিশু ট্রেনের জানলা দিয়ে নীচে পড়ে যায়। শিশুটির মা সেই সময় জল খাচ্ছিলেন। তাঁর অলক্ষ্যেই শিশুটি খেলতে খেলতে জানলা দিয়ে বাইরে পড়ে যায়। চমকে ওঠেন তিনি। শুরু হয় চিৎকার চেঁচামেচি। সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য যাত্রীরা জরুরিভিত্তিতে চেন টেনে ট্রেনটি দাঁড় করিয়ে দেন।

রেল সূত্রে খবর, এদিন আপ ক্যাপিটাল স্পেশাল ট্রেনটি রাজেন্দ্র নগর থেকে এনজেপির উদ্দেশে যাচ্ছিল। সকাল ১১টা নাগাদ অধিকারী রেলস্টেশন অতিক্রম করার পর ট্রেনের স্লিপার ক্লাসের ৭ নম্বর বগিতে থাকা আপৎকালীন জানালা দিয়ে একটি ৪ বছরের শিশু ট্রেনের বাইরে পড়ে যায়।

শিশুটির পরিবার পাটনা থেকে শিলিগুড়ি যাচ্ছিল। শিশুটির মা সেই সময় জল খাচ্ছিলেন। তাঁর অলক্ষ্যেই শিশুটি খেলতে খেলতে জানলা দিয়ে বাইরে পড়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে ট্রেনের যাত্রীরা জরুরিভিত্তিতে চেন টেনে ট্রেনটি দাঁড় করিয়ে দেন। গুরুতর আহত ওই শিশুকে এর পর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ট্রেনে ওই পরিবারটির সঙ্গে থাকা এক সহযাত্রী একে পান্ডে জানান, শিশুটি স্লিপারের এমারজেন্সি জানালা দিয়ে পড়ে যায়। আহত শিশুটির নাম আরমান নেগী। তড়িঘড়ি ট্রেনের চেন টানেন যাত্রীরা। দুর্ঘটনার পর স্থানীয় বাসিন্দারাই গুরুতর জখম অবস্থায় শিশুটিকে খড়িবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক ইমদাদুর রহমান জানান, প্রাথমিক চিকিৎসার পর শিশুটিকে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ  হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বেশ কিছুদিন আগে এই একই ধরনের ঘটনা ঘটেছিল বর্ধমানে। আপ বর্ধমান লোকাল ট্রেন পাল্লা রোড স্টেশন ছাড়তেই হাল্কা ঝাঁকুনিতে ট্রেন থেকে গড়িয়ে পড়ে যায় এক বালিকা। সবাই চিৎকার করতে থাকেন। ট্রেন শক্তিগড় স্টেশনে দাঁড়ানোর পরে এক যুবক টর্চ নিয়ে প্রায় আড়াই কিলোমিটার লাইন ধরে ছুটে এসে পাল্লা রোডের কিছুটা আগেই রক্তাক্ত অবস্থায় সেই বালিকাকে উদ্ধার করেন।

আবার কয়েকদিন আগে হাওড়া স্টেশনে প্ল্যাটফর্মে মোতায়েন আরপিএফ জওয়ানদের তৎপরতায় রক্ষা পান এক যুবক। দৌড়ে চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে পা পিছলে পড়ে যান ওই  যাত্রী। আটকে পড়েন প্ল্যাটফর্ম এবং ট্রেনের মাঝে। আর তা চোখে পড়তেই তৎপর হয়ে ওঠেন মোতায়েন আরপিএফ জওয়ানরা। কর্তব্যরত আরপিএফ জওয়ানরা কালবিলম্ব না করে দৌড়ে গিয়ে ওই যাত্রীকে উদ্ধার করেন।

আরও পড়ুন: ২ বছরে মৃত্যু ২, আহত ৬০! একা ‘ভোলা’র তাণ্ডবে দরজায় খিল দিয়েছে মোস্তাফাপুরবাসী

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla