MP Jagannath Sarkar: প্রতিনিয়ত হিন্দুদের উপর অত্যাচার হচ্ছে, বাংলাদেশ সরকার পদক্ষেপ করুক

Bangladesh: ''শুধু হিন্দুদের ধর্মীয় স্থান নয় প্রতিনিয়ত হিন্দুদের মা বোনের উপর অত্যাচার হয়ে আসছে।'' বাংলাদেশের (Bangladesh) কুমিল্লায় দুর্গামণ্ডপে তাণ্ডবের ঘটনায় এমনই প্রতিক্রিয়া দিলেন বিজেপি সাংসদ (BJP MP) জগন্নাথ সরকার।

MP Jagannath Sarkar: প্রতিনিয়ত হিন্দুদের উপর অত্যাচার হচ্ছে, বাংলাদেশ সরকার পদক্ষেপ করুক
বাংলাদেশের ঘটনায় প্রতিক্রিয়া বিজেপি সাংসদের। (ফাইল চিত্র)

নদিয়া: ”শুধু হিন্দুদের ধর্মীয় স্থান নয় প্রতিনিয়ত হিন্দুদের মা বোনের উপর অত্যাচার হয়ে আসছে।” বাংলাদেশের (Bangladesh) কুমিল্লায় দুর্গামণ্ডপে তাণ্ডবের ঘটনায় এমনই প্রতিক্রিয়া দিলেন বিজেপি সাংসদ (BJP MP) জগন্নাথ সরকার (Jagannath Sarkjar)। তাঁর দাবি, অপরাধীদের খুঁজে বের করে কঠোর থেকে কঠোরতম শাস্তির ব্যবস্থা করুক হাসিনা সরকার।

“বাংলাদেশে অত্যাচারিত হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ, ভেঙে দেওয়া হচ্ছে মন্দির,” “ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন দেবদেবীর মূর্তি”,  এমনই অভিযোগ করে হিন্দুদের উপর অত্যাচারের প্রতিবাদ করে নদিয়ার শান্তিপুর ডাকঘর মোড় থেকে এক প্রতিবাদ মিছিলের আয়োজন করে শান্তিপুর হিন্দু জাগরণ মঞ্চ। এই প্রতিবাদ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার। সেখানে ছিলেন রানাঘাট উত্তর পশ্চিমের বিজেপি বিধায়ক পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায় সহ শান্তিপুর হিন্দু জাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। এই প্রতিবাদ মিছিলটি প্রায় ২ কিলোমিটার অতিক্রম করে শেষ হয় শান্তিপুর স্টেশন সংলগ্ন গোলপার্ক মোড়ে।

সেই মিছিলের শেষে রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার বলেন, “বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর অত্যাচার নিয়ে কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দিয়েছেন। হিন্দুদের উপর অত্যাচারের পিছনে কাদের হাত আছে তা খুঁজে বের করে কঠোর থেকে কঠোরতম শাস্তির ব্যবস্থা করুক হাসিনা সরকার।” এর পর বিজেপি সাংসদের অভিযোগ, শুধু হিন্দুদের ধর্মীয় স্থান নয় প্রতিনিয়ত হিন্দু মা বোনের উপর অত্যাচার হয়ে আসছে। তবে বাংলাদেশ সরকার খুব তাড়াতাড়ি সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। তাই তাঁরা আশাবাদী বলে মন্তব্য করেন তিনি ।

উল্লেখ্য, কুমিল্লায় দুর্গামণ্ডপে তাণ্ডবের ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ করেছে শেখ হাসিনার সরকার। বাংলাদেশের ২২ টি জেলায় আধা সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানান, “বাংলাদেশ এক অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। বাংলাদেশে সকল ধর্ম, বর্ণ, সম্প্রদায়ের মানুষ একসঙ্গে বসবাস করবে। যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে।” তিনি প্রত্যেক বাংলাদেশবাসীকে স্মরণ করিয়ে দেন, “ধর্ম যার যার, কিন্তু উৎসব সবার। ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার।”

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানও এক বিবৃতিতে জানান, কুমিল্লা জেলায় যে ঘটনা হয়েছে, যারা গোলমাল পাকিয়েছে, তাদের খুব শিগগিরই ধরে ফেলা হবে প্রশাসনকে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন। যাতে এই ঘটনার খুব তাড়াতাড়ি সমাধান করা হয় সে ব্যাপারে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তার আগেও বাংলাদেশের বহু পুজো মণ্ডপে দুষ্কৃতীদের হামলার ঘটনা ঘটার অভিযোগ উঠেছে। প্রতিমা ভাঙার ঘটনা ঘটেছে। এই পরিস্থিতিতে এপার বাংলার রানৈতিক পরিসর তপ্ত হয়ে উঠেছে। একদিকে যেখানে এই ঘটনায় সরব হয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ। তেমনই প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এই নিয়ে চিঠি দিয়ে বাংলাদেশ সরকারকে ব্যবস্থা নিতে আবেদন করেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুন: Bidhannagar: এবার সব্যসাচীর ‘অনুগামী’র বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ সুজিত বসুর ‘ঘনিষ্ঠের’ 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla