Dilip Ghosh: কাঁথি আদালতে হাজিরা দিয়ে শিশিরের বাড়িতে মাছ-ভাত খেলেন দিলীপ

Dilip Ghosh: কাঁথি আদালতে হাজিরা দিয়ে শিশিরের বাড়িতে মাছ-ভাত খেলেন দিলীপ
শান্তিকুঞ্জ থেকে বেরনোর পর দিলীপ ঘোষ।

Shantikunja: আদালতে হাজিরার পরই দিলীপ গিয়েছিলেন শান্তিকুঞ্জে। শিশিরবাবুর সঙ্গে দেখা করেতই শান্তিকুঞ্জে এসেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সেখানে দুপুরে মাছ, ভাত খাইয়ে তাঁকে অ্যাপায়ণ করেছেন অধিকারী পরিবারের সদস্যরা।

TV9 Bangla Digital

| Edited By: Angshuman Goswami

May 13, 2022 | 6:32 PM

কাঁথি: পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি মহকুমা আদালতে হাজিরা দিতে এসে শান্তিকুঞ্জে গেলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সব সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানে মধ্যাহ্নভোজও খেয়েছেন তিনি। মধ্য়াহ্নভোজের মেনুতে মাছ, ভাত থাকার কথা শান্তিকুঞ্জ থেকে বেরিয়ে নিজেই জানিয়েছেন দিলীপ। শুভেন্দু অধিকারী ছাড়াও শান্তিকুঞ্জে দিলীপের সঙ্গে দেখা হয়েছে শিশির অধিকারীর। দিলীপের শান্তিকুঞ্জে যাওয়া নিয়ে দিব্য়েন্দু জানিয়েছেন, জ্য়োতি বসুর আমলেও বহু শাসক ও বিরোধী দলের নেতারা তাঁদের বাড়িতে গিয়েছে এবং খাবার খেয়েছে। দিলীপবাবুর যাওয়ায় কোনও অন্যায় দেখছেন না তিনি। যদিও পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা যুব তৃণমূল নেতা সুপ্রকাশ গিরি, দিলীপের শান্তিকুঞ্জে যাওয়া নিয়ে কটাক্ষ করেছেন দিব্য়েন্দু ও শিশির অধিকারীকে।

কাঁথির আদালতে শুক্রবার হাজিরা দিতে এসেছিলেন মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে অমিত শাহের জনসভায় পর রণক্ষেত্র চেহারা নয় গোটা কাঁথি এলাকা। গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি-র তৎকালীন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপ ঘোষ সহ বিজেপি নেতৃত্বদের নামে কাঁথি থানায় মামলা দায়ের হয়। দীর্ঘ দিন সেই মামলায় হাজিরা না দেওয়ায় দিলীপের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। সেই মামলাতেই হাজিরা দিতে এসেছিলেন দিলীপ ঘোষ। আদালতে হাজিরা দিয়ে বেরনোর পর তৃণমূলকে একহাত নেন বিজেপি সাংসদ। গুণ্ডাগিরি করা তৃণমূলের কালচার, কটাক্ষ করেন দিলীপ। তিনি বলেন, “অমিত শাহের সভায় আমি ছিলাম। সভার পর তৃণমূলের লোকেরা গুণ্ডাগিরি করে। এবং আমার নামে একাধিক ধারায় মিথ্যা মামলা দায়ের করে।”

আদালতে হাজিরার পরই দিলীপ গিয়েছিলেন শান্তিকুঞ্জে। শিশিরবাবুর সঙ্গে দেখা করেতই শান্তিকুঞ্জে এসেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সেখানে দুপুরে মাছ, ভাত খাইয়ে তাঁকে অ্যাপায়ণ করেছেন অধিকারী পরিবারের সদস্যরা। সেখান থেকে বেরিয়ে দিলীপ জানিয়েছেন, শিশির অধিকারীর শরীর ভালো রয়েছে। কিন্তু তাঁদের মধ্য়ে কোনও রাজনৈতিক আলোচনা হয়নি বলেই দাবি দিলীপের।

দিলীপের পাশাপাশি দিব্যেন্দুও হাজিরা দিতে গিয়েছিলেন কাঁথি আদালতে। যদিও মামলা প্রসঙ্গে তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেছেন, “কী মামলা ছিল আমি জানি না। ২০০১ সালের মামলা মনে থাকে নাকি! আদালতে হাজির হলাম, জামিন নিলাম চলে গেলাম।” দিলীপের শান্তিকুঞ্জে যাওয়া নিয়ে নিজের মতও জানিয়েছেন খাতায় কলমে তৃণমূলের সাংসদ দিব্যেন্দু। তিনি বলেছেন, “কেউ যদি কারও বাড়িতে যায় তাঁকে তাড়িয়ে দেবেন নাকি? বিগত দিনে কি আমার বাড়িতে অন্য কোনও রাজনৈতিক দলের লোক যায়নি? জ্যোতি বসুর আমলে অনেক তাবড় তাবড় নেতা আমাদের বাড়িতে গিয়েছেন।”

এই খবরটিও পড়ুন

দিলীপের শান্তিকুঞ্জে যাওয়া নিয়ে পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা যুব তৃণমূল নেতা সুপ্রকাশ গিরি বলেছেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য ভোটে জিতে জনপ্রতিনিধি যারা হয়েছেন, তাঁদের উচিত সেই পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর দিলীপ ঘোষকে আপ্যায়ন করা।”

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 BANGLA