Coal Scam: লালা ঘনিষ্ঠ জয়দেব সহ ৪ জনকে সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ আদালতের

CBI On Coal Smuggling Case: ২০২০ সালের মে মাসের কয়লা কাণ্ডে মামলা দায়ের হয় অনুপ লালার বিরুদ্ধে। ইসিএল ও রেলের কয়লা বেচে ৩০০ কোটি টাকা ব্যবসা করেছেন, এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে মামলা হয়। সংশ্লিষ্ট কেসে এই চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে সিবিআই। কীভাবে বেআইনি কয়লা বিক্রি হত, পাচার করা হত, কারা জড়িত এই কাণ্ডে, এ নিয়ে তথ্য পেতে একাধিকবার ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিবিআই।

Coal Scam: লালা ঘনিষ্ঠ জয়দেব সহ ৪ জনকে সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ আদালতের
প্রতীকী ছবি

আসানসোল: কয়লা কাণ্ডে (Coal Scam)  সিবিআই (CBI) গ্রেফতারি। সোমবারই নিজাম প্যালেসে গ্রেফতার করা হয় চার কয়লা মাফিয়া, জয়দেব মণ্ডল, নারায়ণ নন্দা, নিরোদ মণ্ডল, গুরুপদ মাজিকে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিজেদের হেফাজতে চেয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। অবশেষে মঙ্গলবার অনুপ লালা ঘনিষ্ঠ জয়দেব ও তিনজনকে সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত।

এদিন দুপুরে আসানসোলে (Asansole) বিশেষ সিবিআই আদালতে তোলা হয়। এদিন সিবিআই ও অভিযুক্তদের আইনজীবী, দু’ পক্ষের কথা শোনার পর বিচারক জয়শ্রী বন্দ্যোপাধ্যায় ধৃত জয়দেবকে চারদিনের সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ দেন। আর বাকিদের সাতদিনের হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়। অভিযুক্তদের আইনজীবীর দাবি, তাঁর মক্কেলরা ডাক পড়লেই হাজিরা দিয়েছেন সিবিআই-র কাছে। সিবিআই-কে তদন্তে সহযোগিতা করছেন। কিন্তু সিবিআই দাবি করে ধৃতরা সহযোগিতা করেনি। তাদের বক্তব্য ও তথ্যেও যথেষ্ট অসঙ্গতি রয়েছে। তাই অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নিতে চেয়ে আবেদন করে তারা। অবশেষে তাতে সমম্মতি দেয় সিবিআই-র বিশেষ আদালত।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের মে মাসের কয়লা কাণ্ডে মামলা দায়ের হয় অনুপ লালার বিরুদ্ধে। ইসিএল ও রেলের কয়লা বেচে ৩০০ কোটি টাকা ব্যবসা করেছেন, এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে মামলা হয়। সংশ্লিষ্ট কেসে এই চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে সিবিআই। কীভাবে বেআইনি কয়লা বিক্রি হত, পাচার করা হত, কারা জড়িত এই কাণ্ডে, এ নিয়ে তথ্য পেতে একাধিকবার ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিবিআই।

মঙ্গলবার কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আসানসোল বিশেষ সিবিআই আদালতে আনা হয় কয়লা কাণ্ডে জড়িত ৪ কুখ্যাত কয়লা মাফিয়াকে। সিবিআইয়ের হাতে ধৃত জয়দেব মণ্ডল, নারায়ন নন্দা, গুরুপদ মাজি ও নিরোধ মন্ডলকে হাজির করা হয়। জয়দেব মণ্ডল ও নারায়ণ নন্দা আসানসোল ও রানীগঞ্জের বাসিন্দা। আর গুরুপদ মাজি পুরুলিয়ার ও নিরোদ মণ্ডল বাঁকুড়ার বাসিন্দা। লালার সিন্ডিকেটের কয়লার চোরাকারবার দক্ষিণবঙ্গে চালাতো এরাই বলে অভিযোগ। গত বছর ২৭ নভেম্বর প্রথমবার কয়লা কাণ্ডে সিবিআই অভিযোগ দায়ের করে তদন্তে নেমেছিল। তার পর একাধিক অভিযান চালানো হয়েছে। এমনকি কয়লা পাচারে যুক্ত ইসিএলের অফিসারদেরও একাংশের যোগসাজশের অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। এই প্রথম কয়লা কাণ্ডে সিবিআইয়ের হাতে কয়লা মাফিয়া গ্রেফতারের ঘটনা ঘটল। সোমবার কলকাতা নিজাম প্যালেস থেকে সরাসরি ধৃতদের আনা হয় আসানসোলে। ধৃত জয়দেবকে ১ অক্টোবর এবং বাকিদের ৪ অক্টোবর আবার আদালতে তোলা হবে।

উল্লেখ্য, কয়লাকাণ্ডে গত কয়েকদিনে ফের সক্রিয়তা দেখাচ্ছে কেন্দ্রীয় সংস্থা। রাজ্যের আইনমন্ত্রী (Law Minister) মলয় ঘটককে (Malay Ghatak) সম্প্রতি তলব করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ED)। কয়লা-কাণ্ডের সঙ্গে কোনও যোগ আছে কি না, তা জানতেই রাজ্যের এই মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় ইডি। কিন্তু এর আগে পরপর দু’বার হাজিরা এড়িয়ে গিয়েছেন তিনি। এবার ফের তাঁকে নোটিস দিয়েছে ইডি। সোমবার তাঁকে তৃতীয়বারের জন্য তলব করা হয়। ইতিমধ্যেই একই মামলায় দিল্লিতে ইডি দফতরে হাজিরা দিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee)।

আরও পড়ুন: Visva-Bharati University: ‘বিশ্ব রেকর্ড’ গড়ল কি বিশ্বভারতী! পড়ুয়াদের একশোয় নম্বর দেওয়া হয়েছে ৩৬৭, ১৯৬, ১৫১… 

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla