নিকাহনামায় কী এমন অদ্ভুত শর্ত ছিল শর্মিলার জন্য, যা আজও অক্ষরে-অক্ষরে পালন করছেন…

Sharmila Tagore: একে-অপরকে ভালবেসে বিয়ে করেছিলেন শর্মিলা ঠাকুর এবং মনসুর আলি খান পতৌদি। বিয়ের সময় শর্মিলাকে ধারণ করতে হয় ইসলাম ধর্ম। তাঁর নামও পাল্টে হয় আয়েশা বেগম। কিন্তু জানেন কি, শর্মিলার নিকাহনামায় ছিল এক অদ্ভুত শর্ত। সেই শর্ত মেনে আজও চলছেন বর্ষীয়ান তারকা।

নিকাহনামায় কী এমন অদ্ভুত শর্ত ছিল শর্মিলার জন্য, যা আজও অক্ষরে-অক্ষরে পালন করছেন...
শর্মিলা ঠাকুর।
Follow Us:
| Updated on: Jul 11, 2024 | 7:05 AM

ঠাকুর পরিবারের মেয়ে বলিউড, তথা সত্যজিৎ রায়ের নায়িকা কিংবদন্তি অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুর। তাঁর বিয়ে হয় মুসলমান নবাব পরিবারে। পতৌদি পরিবারের রাজপুত্র মনসুর আলি খান পতৌদিকে মন দিয়ে বসেন শর্মিলা। মনসুরের জীবনেও তিনিই হয়ে ওঠেন ধ্যানজ্ঞান। বিয়ের সময় শর্মিলাকে ধারণ করতে হয় ইসলাম ধর্ম। তাঁর নামও পাল্টে হয় আয়েশা বেগম। কিন্তু জানেন কি, শর্মিলার নিকাহনামায় ছিল এক অদ্ভুত শর্ত।

জানলে অবাক হবেন, নিকাহনামায় ছিল ক্রিকেট খেলা সংক্রান্ত এক শর্ত। উল্লেখ্য, সকলেই জানেন, শর্মিলার স্বামী মনসুর আলি খান পতৌদি (প্রয়াত) ছিলেন ভারতের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট দলের অধিনায়ক। নিকাহনামায় লেখা ছিল, “বিয়ের মধ্যে কোনওভাবেই ক্রিকেট সংক্রান্ত কোনও আলোচনা আসবে না।” এই শর্ত জানার পর বিবাহ পরবর্তী সময় স্বামী মনসুরের ক্রিকেট সম্পর্কে কোনও মন্তব্যই করেননি শর্মিলা।

এই খবরটিও পড়ুন

এখানে একটা কথা না বললেই নয়। মনসুর যখন শর্মিলাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, এক অদ্ভুত শর্ত চাপিয়েছিলেন শর্মিলা। বলেছিলেন, পরের ম্যাচে পরপর তিনটে ছক্কা মারতে পারলে তবেই আমি বিয়ের জন্য রাজি হব, নচেৎ নয়। হলও তাই। পরের ম্যাচে তিনটে ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন টাইগার পতৌদি (ওই নামেও তাঁকে চেনেন অনেকে)। ফলে নিকাহনামায় ক্রিকেটকে কেন্দ্র করে শর্ত রাখার এটাই কারণ ছিল কি না, সে সম্পর্কে আর কিছু জানা যায়নি।