বড় খবর: কোভ্যাক্সিন তৈরি করতে গুজরাটের সংস্থাকে ছাড়পত্র ভারত বায়োটেকের

টিকা নির্মাণে গতি আনতে এ বার সেই বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল কেন্দ্রীয় সরকার এবং ভারত বায়োটেক।

বড় খবর: কোভ্যাক্সিন তৈরি করতে গুজরাটের সংস্থাকে ছাড়পত্র ভারত বায়োটেকের
ফাইল চিত্র

নয়া দিল্লি: কোভ্যাক্সিনের তৈরির প্রযুক্তি এতদিন নিজেদের কাছেই কুক্ষিগত করে রেখেছিল ভারত বায়োটেক। যদিও আকাশছোঁয়া চাহিদার কথা মাথায় রেখে ভ্যাকসিন ফর্মুলা অন্য সংস্থার হাতে তারা তুলে দিতে পারে, এমন ইঙ্গিত মিলেছিল বৃহস্পতিবার। টিকা নির্মাণে গতি আনতে এ বার সেই বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল কেন্দ্রীয় সরকার এবং ভারত বায়োটেক। সূত্রের খবর, গুজরাট বায়োটেকনলজি রিসার্চ সেন্টারকে এই ভ্যাকসিন তৈরির ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

তবে এমনটা যে হতে চলেছে সেই ইঙ্গিত কেন্দ্রীয় সরকার আগেই দিয়েছিল। গত বৃহস্পতিবার নীতি আয়োগের সদস্য ভিকে পাল জানিয়েছিলেন, অন্য সংস্থাকে দিয়ে কোভ্যাক্সিন তৈরির প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে কোভ্যাক্সিন নির্মাতা সংস্থা। সেই মতো সপ্তাহান্তে শনিবার জানানো হয়, গুজরাটের এই সংস্থাকেও ভ্যাকসিন তৈরির বরাত দেওয়া হচ্ছে। যদিও এর আগেই কোভ্যাক্সিন উৎপাদনে গতি আনতে একাধিক সংস্থাকে সমর্থন জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এ বার অন্য সংস্থাও এই ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারবে।

আরও পড়ুন: ডিসেম্বরের মধ্যেই ভারতে মিলবে এই ৮ টিকা! জেনে নিন সবকটি ভ্যাকসিনের বৃত্তান্ত

সূত্রের খবর, মে মাস থেকেই গুজরাট বায়োটেকনলজি এই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ শুরু করে দেবে। প্রথম মাসেই কত সংখ্যক ভ্যাকসিন তৈরি করা সম্ভব হবে তা অবশ্য এখনও জানানো হয়নি। তবে অন্যান্য সংস্থাও টিকা তৈরি শুরু করলে এতে দেশে টিকাকরণ যে অনেকটাই গতি পাবে তা নিয়ে কোনও সংশয় নেই বলা চলে। কারণ ১৩০ কোটির দেশে এখনও পর্যন্ত সেরাম ইন্সটিটিউট এবং ভারত বায়োটেক, এই দুটি সংস্থাই টিকা তৈরি করছে। ফলে চাহিদা অনুযায়ী জোগান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এহেন পরিস্থিতিতে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন চিকিৎসকরাও।

আরও পড়ুন: টিকাকরণে গ্রাফ নিম্নমুখী, আশা জাগিয়ে পশ্চিমবঙ্গে আসছে ২০ লক্ষ ডোজ় ভ্যাকসিন