Sovandeb Chattopadhyay: ‘সব শিক্ষিত বেকার হয়ে গেল’, মন্তব্যের ফাঁপরে খোদ রাজ্যেরই মন্ত্রী শোভনদেব

সৌরভ পাল

সৌরভ পাল |

Updated on: Jun 06, 2022 | 10:04 AM

"রাজ্যের বর্তমান সরকার খেলা-মেলা-মহোৎসব বাড়িয়েছে, অনুদান দিয়েছে, ত্রাণ দিয়েছে, পরিত্রাণ দিতে পারেনি।”

কলকাতা: শুক্রবারই মাধ্যমিকের ফল প্রকাশ হয়েছে। আর শনিবার রাজ্য শিক্ষা মেলার উদ্বোধনে গিয়ে মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় কারিগরী শিক্ষার উপযোগিতা বোঝাতে গিয়ে বলেন, “অনেক ডিগ্রি থেকেও চাকরি পাওয়া যাচ্ছে না, কত কত শিক্ষিত ছেলেমেয়ে বেকার হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, এ বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষায় যারা উত্তীর্ণ হল, তারা আসলে শিক্ষিত বেকারে পরিণত হয়েছে।”


শিক্ষা মেলার সূচনার দিনে মন্ত্রীর এই বেফাঁস মন্তব্যের জেরে বিস্তর চর্চা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। বিরোধীদের দীর্ঘ দিনের অভিযোগ রাজ্যের শিক্ষিত যুবক-যুবতীদের চাকরি দিতে ব্যর্থ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোভনদেবের মন্তব্যের পর প্রশ্ন উঠেছে, তা হলে কি সত্যিই বেকার সমস্যা নিয়ে বিরোধীদের অভিযোগ স্বীকার করে নিলেন রাজ্যের মন্ত্রী?

শনিবার রাজ্য মেলায় যোগ দিতে এসে কারীগরি শিক্ষার গুরুত্ব নিয়ে বক্তৃতা নিয়ে কথা বলছিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। সেই নিয়ে সওয়াল করতে গিয়েই মন্ত্রী বলেন, “১২ লক্ষ ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছে। পাশ করেছে কত? ৮৬ শতাংশ পাশ করেছে। সব শিক্ষিত বেকার তৈরি হয়ে গেল। এরপর উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক, স্নাতকোত্তর, পলিটেকনিক, এত ছেলে তৈরি হচ্ছে প্রতিদিন, কিন্তু তারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন। শুধু গ্র্যাজুয়েট হয়ে বা শুধু এমএ পাশ করে কোনও চাকরি পাওয়া যাচ্ছে না।”

প্রসঙ্গত, শনিবার থেকে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে শিক্ষা মেলা। সেখানে রাজ্যের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যোগ দিয়েছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরাও অংশগ্রহণ করেছিলেন এই শিক্ষা মেলায়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী তথা পুরপ্রধান ফারহাদ হাকিমও। দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যে বেকার সমস্যা নিয়ে বার বার অভিযোগ করে এসেছেন বিরোধীরা। এমন পরিস্থিতিতে খড়দহের বিধায়ক তথা রাজ্যের কৃষিমন্ত্রীর মুখে এমন মন্তব্য শুনে স্বাভাবিকভাবেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। তাহলে কি মন্ত্রীও এবার বকলমে স্বীকার করে নিলেন রাজ্যে চাকরির সমস্যার কথা? এমন প্রশ্ন ইতিমধ্যেই উঠতে শুরু করে দিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য বলেন, “তিনি একজন প্রবীণ রাজনৈতিক কর্মী। দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূল কংগ্রেসের সাথে যুক্ত রয়েছেন। শ্রমিক আন্দোলন করেছেন। তিনি বর্তমান সমাজকে চেনেন। তাঁকে অভিনন্দন তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে থেকেও এই সত্যিটা স্বীকার করার জন্য। আসলে এটা একটা চ্যালেঞ্জ। অর্থনীতি বাড়ছে কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে না। এটা শিক্ষাবিদদের কাছে, অর্থনীতিবিদদের কাছে বিশাল বড় একটি চ্যালেঞ্জ। রাজনীতিক ও প্রশাসকদের কাছেও এটি একটি প্রশাসনিক চ্যালেঞ্জ। রাজ্যের বর্তমান সরকার খেলা-মেলা-মহোৎসব বাড়িয়েছে, অনুদান দিয়েছে, ত্রাণ দিয়েছে, পরিত্রাণ দিতে পারেনি।”

Follow us on

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla