রেড ভলিন্টিয়ার্সদের পাশে বিজেপি বিধায়ক! করোনাকালে অন্য ছবি আলিপুরদুয়ারে

আলিপুরদুয়ার টাউনে বিজেপির জেলা অফিস স্যানিটাইজ করল রেড ভলিন্টিয়াররা। অন্যদিকে আলিপুরদুয়ার টাউন রেড ভলিন্টিয়ারের সাহায্যে এগিয়ে এলেন খোদ এলাকার বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলাল। । টাউনের রেড ভলিন্টিয়ার্সের জন্য দিলেন পিপিই কিট, ফেসশিল্ড ও মাস্ক।

রেড ভলিন্টিয়ার্সদের পাশে বিজেপি বিধায়ক! করোনাকালে অন্য ছবি আলিপুরদুয়ারে
আলিপুরদুয়ারে সৌজন্যের রাজনীতি। বিজেপির জেলা অফিস স্যানিটাইজেশন করছে রেড ভলিন্টিয়ার্স (বাঁদিকে)। রেড ভলিন্টিয়ার্সদের হাতে সরঞ্জাম তুলে দিচ্ছেন আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলাল (ডানদিকে)।

আলিপুরদুয়ারঃ এই রাজনীতিই(POLITICS) তো মানুষ চায়। যাকে বলা হয় সৌজন্যে রাজনীতি। যেখানে হেরে যাওয়া প্রতিপক্ষ বিপদে পড়লে হাত ধরে টেনে তোলা হবে। লড়াই হবে শুধু মতবাদের। হিংসার নয়। ভোট (VOTE)পরবর্তী হিংসার খবর এখন চারদিকে। কিন্তু আলিপুরদুয়ারে(ALIPURDUAR) যা ঘটল, তা হয়ত বাংলায় অন্য রাজনীতির ছবি। হাতে হাতে ধরে একসঙ্গে লড়াইয়ের ছবি।

গোটা বাংলায় রেড ভলিন্টিয়াররা(RED VOLUNTEERS) যেভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে, তা দেখা যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় চোখ বোলালেই। কোথাও কোভিড(COVID19) আক্রান্তদের বাড়িতে খাবার পৌঁছে দেওয়া, কখনও বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া অক্সিজেন। এলাকায় স্যানিটাইজ করতেও নেমে পড়েছেন রেড ভলিন্টিয়াররা। গোটা রাজ্যে। এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় রেড ভলিন্টিয়ারদের কাজ করার এক অন্য ছবি পাওয়া গেল আলিপুরদুয়ার টাউনে। আলিপুরদুয়ার টাউনে বিজেপির জেলা অফিস স্যানিটাইজ করল রেড ভলিন্টিয়াররা। যেই ছবি ইতিমধ্যেই ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সৌজন্যের রাজনীতি এখানেই শেষ নয়। এবার আলিপুরদুয়ার টাউন রেড ভলিন্টিয়ারের সাহায্যে এগিয়ে এলেন খোদ এলাকার বিধায়ক(BJP MLA) সুমন কাঞ্জিলাল। আলিপুরদুয়ার টাউনে এবার বিজেপির টিকিটে জিতেছেন সুমন। একসময়ে সাংবাদিকতা করা সুমন কাঞ্জিলাল সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন রেড ভলিন্টিয়ার্সের জন্য। টাউনের রেড ভলিন্টিয়ার্সের জন্য দিলেন পিপিই কিট, ফেসশিল্ড ও মাস্ক। শহরের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে করোনা আক্রান্তদের জন্য ছুটছেন রেড ভলিন্টিয়াররা। তাঁরা যেন সুস্থ ও সুরক্ষিত থাকেন, সেজন্যই পাশে থাকা বিজেপি বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলালের। আলিপুরদুয়ার থেকে ফোনে বিধায়ক জানান, “এরকম দৃষ্টান্ত আমাদের স্থাপন করতে হবে সব জেলায়। করোনাকালে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে সবরকম রাজনীতি ভুলে। এটাই প্রয়োজন এই সময় মানুষের।আমরা আলিপুরদুয়ার পথ দেখাচ্ছি। আশা করি জেলার মানুষও এই ছবি দেখে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য আত্মবিশ্বাস পাবেন।” নিজে সাংবাদিক ছিলেন। তাই সাংবাদিক হিসেবে করোনার লড়াইয়ে যে সমস্যাগুলো দেখেছেন, সেগুলি মেটাতে চান এবার জনপ্রতিনিধি হিসেবে, জানান সুমন।

জেলার ডিওয়াইএফআই নেতা প্রশান্ত ঘোষ ফোনে জানান, ” আজ তাঁদের স্যানিটাইজ করার কর্মসূচি ছিল টাউনের অরবিন্দনগরে। সেখানেই রয়েছে বিজেপির জেলা অফিস। সকালে বিধায়ককে ফোন করি জেলা অফিস স্যানিটাইজ করার জন্য। তিনি রাজি হন। অফিসের কেয়ারটেকার বলে খুলে দেওয়া হয় পার্টি অফিস। আমরা তারপর স্যানিটাইজ করি।” এখানে শেষ নয়, প্রশান্ত জানান, আলিপুরদুয়ারের বেশ কিছু অঞ্চলে থাকেন চা বাগানের শ্রমিকরা। তাঁদের জন্য কাজ করছে জেলার রেড ভলিন্টিয়াররা।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla