কাঁটাতারের ও পার থেকেই ফের সক্রিয় এনএলএফটি, খোয়াইয়ে মিলছে গতিবিধির প্রমাণ!

NLFT Active from Bangladesh: এনএলএফটি-র আরেক স্বঘোষিত নেতা বিশ্ব মোহন দেববর্মাও ফের একবার ত্রিপুরায় জঙ্গি সংগঠনের কার্যকলাপ তৎপর করার চেষ্টা করছে।

কাঁটাতারের ও পার থেকেই ফের সক্রিয় এনএলএফটি, খোয়াইয়ে মিলছে গতিবিধির প্রমাণ!
ফাইল চিত্র।

আগরতলা: প্রতিবেশী দেশে ফের সক্রিয় হচ্ছে ত্রিপুরার নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন। সূত্র অনুযায়ী, ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট অব ত্রিপুরা বা এনএলএফটি ধীরে ধীরে সক্রিয় হয়ে উঠছে বাংলাদেশে এবং ত্রিপুরাতেও ফের একবার নিজেদের জায়গা করে নেওয়ার চেষ্টা করছে।

বাংলাদেশের সঙ্গে ৮৫৬ কিমি আন্তর্জাতিক সীমান্তে বিভাজিত ত্রিপুরা। এরমধ্যে ৬৭ কিমিই অরক্ষিত। সূত্র অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকেই এনএলএফটির একটি ছোট অংশ ফের একবার ত্রিপুরার খোয়াই অঞ্চলে সক্রিয় হয়ে ওঠার চেষ্টা চালাচ্ছে। এই সংগঠনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন এনএলএফটি-র দিলীপ দেববর্মা।

অন্যদিকে, এনএলএফটি-র আরেক স্বঘোষিত নেতা বিশ্ব মোহন দেববর্মাও ফের একবার ত্রিপুরায় জঙ্গি সংগঠনের কার্যকলাপ তৎপর করার চেষ্টা করছে। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, বিশ্ব মোহন ও কমান্ডার জেকব হ্রাংখাওয়াল মিজোরামে এবং উৎপল দেববর্মা ও সচিন দেববর্মা বর্তমানে বাংলাদেশেই গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে।

বর্তমানে দিলীপ দেববর্মার অধীনে এনএলএফটি-র যে সংগঠনটি রয়েছে, তাদের গতিবিধি খোয়াই ও ঢালাই জেলার গঙ্গানগর, রাইসাবাড়ি, চাউমানু অঞ্চলে লক্ষ্য করা গিয়েছে।

১৯৯৭ সালে এনএলএফটি সংগঠনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ২০০৫ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে মোট ৩১৭টি বিদ্রোহের সৃষ্টি হয়েছে এই সংগঠনের কারণে, যেখানে ২৮ জন নিরাপত্তাবাহিনীর কর্মী ও ৬২ জন সাধারণ মানুষ প্রাণ হারান। চলতি বছরেই ত্রিপুরা পুলিশের সহায়তায় আত্মসমর্পণ করে দুই শীর্ষ নেতা। তার কয়েক মাস কাটতে না কাটতেই আরও তিন সদস্য আত্মসমর্পণ করে মে মাসে।

আরও পড়ুন: জমি বিতর্কের জেরে সংঘের হাতে রাম মন্দির নির্মাণের ‘অঘোষিত’ দায়িত্ব, আসন্ন নির্বাচনেও পড়বে প্রভাব! 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla