অনুব্রত মণ্ডল

অনুব্রত মণ্ডল

অনুব্রত মণ্ডল। তৃণমূলের একাংশ বলেন, ‘বীরভূমের বাঘ’। দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘কেষ্ট’ বলে থাকেন। অনুব্রত মণ্ডল শাসকদলের দক্ষ সংগঠক। মাছ বিক্রেতা থেকে বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি হয়ে উঠেছিলেন বেতাজ বাদশা। বোলপুর শহরের নিচুপট্টি এলাকার নীল রঙা বাড়িতে বসেই তৈরি করতেন কোনও নির্বাচন ‘মহারণের’ রূপরেখা। প্রতিবারই নিয়ম করে ভোটের আগে ‘কেষ্ট-উবাচ’ চর্চার বিষয় হয়ে উঠত বাংলায়। সে চড়াম-চড়ামই হোক কিংবা রাস্তায় উন্নয়ন দাঁড়িয়ে। ২০২২ সালের ১১ অগস্ট থেকে বদলে গিয়েছে সবটা। বীরভূমের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট তো বটেই। গরু-কয়লা পাচার মামলায় রাখির দিন গ্রেফতার হন অনুব্রত। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা কেষ্টর হিসাব বহির্ভূত প্রচুর সম্পত্তির হদিশ পায়। তদন্তকারীদের দাবি, সেগুলি সমস্তটাই গরু পাচারের টাকায়। এই মামলা বর্তমানে বিচারাধীন। আর কেষ্ট বন্দি তিহাড়েই।

Read More

VIDEO: ও বাবা এ তো নয়া ‘অনুব্রত’ বোলপুরে, পাচনের বারি-রাস্তায় উন্নয়ন সেই এক দাওয়াই…

Bolpur: বাবুর কথায়, "বাড়িতে গরু থাকলে গরু বারবার ধেয়ে এলে তাকে কী আদর করবে? নাকি পাচনটা এনে দু'বারি দিয়ে সাইড করবে। এরকম কোনও কোনও বুথে দু'একটা মারকুটে গরু লাফালাফি করছে, এই সিপিএম, বিজেপি তাদেরই বলছি পাচন বের করে বারি দিয়ে বুথ থেকে তাড়াও। উন্নয়নে ভোট করাও।"

Anubrata Mondal: ‘অনুব্রত বাড়ি আছো?’, ভোটের সকালে শুনশান ‘কেষ্ট ভবনে’ কাদের যেন ‘ডাকাডাকি’

Anubrata Mondal: একের পর এক নির্বাচনে এখানেই গৃহবন্দি ছিলেন কেষ্ট, ভোটের সকালে সেই বাড়িই একেবারে শুনশান। জেলবন্দি অনুব্রত মণ্ডল। জেলে তার কন্যাও। নির্বাচনের দিন এই বাড়ির সামনে পা রাখার জায়গা মিলত না। নেতা মন্ত্রী থেকে দলীয় কর্মী অনুগামীদের ভিড় লেগে থাকত।

Anubrata Mondal: অনুব্রতর বাড়ির ছাদে জ্বলজ্বল করছে ‘জয় শ্রীরাম’ পতাকা, কে লাগাল?

Anubrata Mondal: বস্তুত, ২০১৪ সালের পর থেকে বীরভূমে বিজেপির ক্রমশ উত্থান হয়েছে। বামেদের ভোট, কংগ্রেসের ভোট যে অনুপাতে কমেছে। সেই অনুপাতে বেড়েছে বিজেপি-র ভোট। হয়ত তাঁরা আসন জিততে পারেনি। কিন্তু তারা ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলেছে ভোটের পর থেকে।

Anubrata Mondal: কেষ্টহীন বীরভূমে গোপনে কি নতুন নেতা তৈরি হয়ে গেল?

Anubrata Mondal: ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটের আগে ‘ভয়ঙ্কর খেলা হবে’ বলে বার্তা দিয়েছিলেন অনুব্রত মণ্ডল। খেলা হয়েছিলও। বীরভূম জেলার দু’টি লোকসভা কেন্দ্রই শাসকদলের কব্জায় ছিল। তবে এবার কেষ্টকে ছাড়া প্রথম লোকসভা ভোট বীরভূমে। এলাকার লোকজন বলছেন, নিচুপট্টির যে তৃণমূল কার্যালয় ঊনিশের ভোটে গমগম করেছে, এবার তা ফাঁকা। তিন চারজন পুলিশ কর্মী পাহারা দিচ্ছেন বাড়িটি।

Mamata Banerjee: ভোট মিটলেই ছাড়া পাবেন কেষ্ট? কীসের ইঙ্গিত দিলেন মমতা

Anubrata Mondal: লাভপুরের সভা থেকে মমতা বলেন, 'কেষ্টকে ধরে রেখেছে কেন? ইলেকশনের জন্য। ওকে বলেছে, তুমি বিজেপি করবে না। বিজেপিকে মদত করে দাও। তাহলে তোমাকে তাড়াতাড়ি ছেড়ে দেব। দেখবেন বীরভূমের ইলেকশন হয়ে যাবে, ওঁ ছাড়া পেয়ে যাবে।'