TMC Clash: তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ, ভর দুপুরে চলল বোমা-গুলি, আহত ৬

Dubrajpur: তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি ও কার্যকরী সভাপতির মধ্যে দ্বন্দ্বের জেরেই এই বোমাবাজি বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাস্থলে রয়েছে পুলিশ।

TMC Clash: তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ, ভর দুপুরে চলল বোমা-গুলি, আহত ৬
দুবরাজপুরে ব্যাপক বোমাবাজি

দুবরাজপুর: ভর দুপুরে ব্যাপক বোমাবাজি বীরভূমের দুবরাজপুরে। তৃণমূলেরই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। দুবারজপুর ব্লকের পদুমা পঞ্চায়েতের গাঁড়া গ্রামে তৃণমূল কংগ্রেসের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বোমাবাজির ঘটনা ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে। তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি মুকুল মণ্ডল ও কার্যকরি সভাপতি তরুন গড়াই-এর গোষ্ঠীর মধ্যেই দ্বন্দ্ব থেকেই এই ঘটনার সূত্রপাত। এখনও পর্যন্ত বোমাবাজিতে ৬ জনের আহত হওয়ার খবর মিলেছে। তৃণমূল সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে, তাদের দাবি, এই ঘটনার সঙ্গে তাদের কোনও সম্পর্ক নেই।

জানা গিয়েছে, আজ দুবরাজপুর ব্লক থেকে গ্রামে সার্ভে করতে যান ব্লক আধিকারিকরা। তারপর তাঁরা মুকুল গোষ্ঠীর বুথ সভাপতি গফ্ফর খানের বাড়ির পাশে সার্ভে করছিলেন ব্লক আধিকারিকরা। তখনই তরুন গড়াই গোষ্ঠীর লোকেরা তাঁকে প্রশ্ন করতে যান তাঁদের পাড়ায় কখন সার্ভে হবে। তারপরই শুরু হয়ে যায় বচসা। দুই গোষ্ঠীর মধ্যে শুরু হয় গুলি ও বোমাবাজি চলে। তরুন গড়াই গোষ্ঠীর ৬ জন গুরুতর আহত হন। তাঁদের দুবরাজপুর গ্রামীন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। এখনও পর্যন্ত ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। তাঁদের রাজনৈতিক পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

স্থানীয় তৃণমূল নেতারা বলছেন, এর সঙ্গে তৃণমূলের নেতাদের কোনও সম্পর্ক নেই। বিজেপি নেতাদের মধ্যেই সংঘর্ষ চলছে বলে দাবি করেছেন তৃণমূল নেতারা। তৃণমূল নেতা মুকুল মন্ডল বলেন, ‘যার সঙ্গে তৃণমূলের কোনও সম্পর্ক নেই, সে ব্যাপারে দল মাথা ঘামাবে না।’ তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ কোনও নতুন ঘটনা নয় এই এলাকায়। বিশেষত বীরভূম জেলায় এই ঘটনা প্রায়শই ঘটে। তবে এলাকায় কোথা থেকে এত বোমা, গুলি এল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

অন্যদিকে বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার বলেন, ‘যদি বিজেপির গোষ্ঠী সংঘর্ষ হয়, তাহলে মানতে হবে যে ওই এলাকায় বিজেপি খুব শক্তিশালী।’ তাঁর কথায়, ওই এলাকায় অনুব্রত মন্ডল ভোট ম্যানেজ করান আর ভোট মিটলেই চলে বোমা বাজি। বলেন, ‘সব লোক জানে কাটমানি, জমি নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যেই বিবাদ চলছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘রাজ্যে বোমাবাজির শাসন চলছে। পুলিশ কোথায়, তৃণমূলকেই এর উত্তর দিতে হবে।’

বীরভূমে বিজেপির জোলা সভাপতি ধ্রুব সাহা বলেন, ‘তোলাবাজির কোম্পানি চলছে জেলায়। কে কত তোলা দিতে পারে, তার প্রতিযোগিতা চলছে। এই এলাকায় বিজেপির কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নেই, সবটাই তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। বীরভূম জেলা পুলিশ সুপার নগেন্দ্র ত্রিপাঠি বলেন, গোটা ঘটনায় ইতিমধ্যেই ৭ জন আটক করা হয়েছে। গ্রামে পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন: Tripura BJP : ‘শিশুসুলভ নেতৃত্ব’, ত্রিপুরার পৌরভোটের আগে বিপ্লবের অস্বস্তি বাড়ালেন বিজেপি বিধায়ক

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla