বিজেপিকে মেরে তাড়ানোর নিদান তৃণমূলের মেয়র পারিষদের

তৃণমূল নেতার এই বক্তব্যকে সামনে রেখে ময়দানে নেমে পড়েছে বিজেপি। 'পিসির গুন্ডাদের অত্যাচারে' তাদের ১৩৬ জন কর্মী মারা গিয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছে তারা।

বিজেপিকে মেরে তাড়ানোর নিদান তৃণমূলের মেয়র পারিষদের
দুর্গাপুরে অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায়।

পশ্চিম বর্ধমান: বিজেপিকে মেরে তাড়ানোর নিদান দিলেন দুর্গাপুরের দাপুটে তৃণমূল নেতা অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায়। দুর্গাপুর নগর নিগমের মেয়র পারিষদ অমিতাভ বলেন, “যাঁরা সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন ‘১১ সালের আগে। আমি সেইসব ছাত্র কংগ্রেস থেকে যুব কংগ্রেস প্রত্যেককে বলব যেখানে যেখানে বিজেপি আছে আগে মারুন। মেরে তাড়ান।” একইসঙ্গে সংবাদমাধ্যমকেও এদিন ‘প্রেস মাফিয়া’ বলে তোপ দাগেন তিনি। তৃণমূল নেতার এই বক্তব্যকে সামনে রেখে ময়দানে নেমে পড়েছে বিজেপি। ‘পিসির গুন্ডাদের অত্যাচারে’ তাদের ১৩৬ জন কর্মী মারা গিয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছে তারা। যদিও তৃণমূল স্পষ্ট জানিয়েছে, এ বক্তব্য দলের বক্তব্য নয়।

ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই ‘মারকাটারি’ কথার ঝাঁঝে ময়দান গরম করতে ব্যস্ত রাজনৈতিক নেতারা। বিজেপির সায়ন্তন বসু হোক বা তৃণমূলের অনুব্রত মণ্ডল, এই নেতাদের বাক্যবাণে প্রায়শই প্রচ্ছন্ন হুমকি লুকিয়ে থাকে। কেউ পুলিসকে ‘সুন্দরবনে নিয়ে গিয়ে বাঘের পেটে খাওয়ানোর’ কথা বলেন, কেউ আবার বিজেপি নেতাকে ‘গোবর জলে স্নান করিয়ে স্যানিটাইজ’ করার নিদান দেন। তবে এবার আরও এক ধাপ এগিয়ে এলেন দুর্গাপুরের মেয়র পারিষদ অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায়।

দুর্গাপুরের পলাশডিহায় এক দলীয় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে উঠে অমিতাভ বলেন, “বিজেপির সঙ্গে লোহা মাফিয়া, কয়লা মাফিয়া আর প্রেস মাফিয়া রয়েছে। বিজেপির একমাত্র ওষুধ, মেরে উড়িয়ে দিন প্রথমে। আমরা দেখে নেব। যেখানে যেখানে বিজেপিকে দেখবেন, সেখান থেকে মেরে তাড়িয়ে দিন।” ভোটের মুখে একজন জননেতার এ ধরনের মন্তব্যে সন্ত্রাসের উস্কানি ছাড়া আর কিছুই নেই বলে তোপ বিজেপির।

আরও পড়ুন: শুভেন্দুর জেলায় যুব সংগঠনের খোলনলচে বদলে ফেললেন অভিষেক

বিজেপির জেলা সভাপতি লক্ষ্মণ ঘোড়ুইয়ের প্রতিক্রিয়া, “এই ধরনের ভাষা প্রয়োগ করে অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দলের সম্পদ হওয়ার চেষ্টা করছেন। বিধানসভা নির্বাচনে দুর্গাপুরের মানুষ এর জবাব দেবে।” বঙ্গ বিজেপি ব্রিগেড তাঁদের টুইটার হ্য়ান্ডেলেও ১৮ সেকেন্ডের একটি ভিডিয়ো শেয়ার করে লিখেছে, ‘তৃণমূল নেতারা প্রকাশ্যে বিজেপির লোকজনকে মারধরের জন্য উস্কানি দিচ্ছে। বিজেপির ১৩৬ জন কার্যকর্তা ইতিমধ্যেই পিসির গুন্ডাদের রাজনৈতিক হিংসার বলি হয়েছেন। পিসির পুলিসদের কি এঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সাহস আছে?’

পলাশডিহায় অমিতাভ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে একই মঞ্চে ছিলেন রাজ্যের শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক। তাঁর বক্তব্য, এটা সম্পূর্ণ অমিতাভর ব্যক্তিগত মন্তব্য। এটা দলের বক্তব্য নয়।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla