Ratan Tata: কর্মজীবন নিয়ে হতাশ? রতন টাটার পাঁচটি বাণী বদলে দিতে পারে আপনার কেরিয়ারের মোড়

inspirational: এমনকী নিজের আয়ের একটা বড় অংশ তিনি সমাজসেবার জন্য ব্যয় করে থাকেন। করোনার সময় দেশের সাহায্যে আর্থিকভাবে পাশে থেকেছেন রতন টাটা ও তাঁর সংস্থা।

Ratan Tata: কর্মজীবন নিয়ে হতাশ? রতন টাটার পাঁচটি বাণী বদলে দিতে পারে আপনার কেরিয়ারের মোড়
গ্রাফিক্স: টিভি৯ বাংলা
TV9 Bangla Digital

| Edited By: অরিজিৎ দে

Sep 20, 2022 | 9:00 AM

দেশ তথা বিশ্বের অন্যতম বড় শিল্পপতি রতন নেভাল টাটা যাঁকে সাধারণভাবে সকলে রতন টাটা নামেই চেনে। ১৯৯১-২০১২ এবং ২০১৬-২০১৭ অবধি টাটা গ্রুপের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন নেভাল টাটার পুত্র। দেশে তথা আন্তর্জাতিক স্তরের সফল এবং উদীয়মান শিল্পপতি রতন টাটাকে নিজেদের আদর্শ মনে করেন। এখনও ৮৫ বছর বয়সী এই রতনের থেকে প্রতিদিন শেখার চেষ্টা করেন। বয়সের ভারে রতন টাটাকে দৃশ্যত খানিক ন্যুব্জ দেখালেও মনের জোরে তিনি এখনও ১৮ তরুণ তুর্কিকে টেক্কা দিতে পারেন। ১৯৬২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর্কিটেকচারে স্নাতক হয়ে দশে ফিরে আসেন তিনি। তারপর পারিবারিক ব্যবসার দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন রতন।

দেশের অন্যান্য শিল্পপতিদের তুলনায় রতন টাটার সম্পত্তির পরিমাণ অনেকটাই কম। ২০২১ সালের এক সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, দেশের ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে ৪৩৩ তম স্থানে রয়েছেন রতন। এই তথ্য অনেকের অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে। কিন্তু এর পিছনে রয়েছে একটি কারণ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, টাটা চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও ব্যক্তিগতভাবে রতন টাটা বিভিন্ন সমাজসেবা মূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত। এমনকী নিজের আয়ের একটা বড় অংশ তিনি সমাজসেবার জন্য ব্যয় করে থাকেন। করোনার সময় দেশের সাহায্যে আর্থিকভাবে পাশে থেকেছেন রতন টাটা ও তাঁর সংস্থা।

দীর্ঘ কর্মজীবনে বিভিন্ন মাইলফলক স্পর্শ করেছেন রতন টাটা ও তাঁর টাটা গ্রুপ। কিন্তু তাঁর বলে যাওয়া অসংখ্য শব্দবন্ধ আজও সমানভাবে পেশাদারদের মনে দাগ কাটতে পারে। তাঁর বলা এই কথাগুলির মধ্যে রয়েছে গভীর অর্থ, জীবনের চরাই-উতারইয়ের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার টোটকা রতন টাটার বলা এমনই বেশ কয়েটি উপদেশ এন নজরে দেখে নেওয়া যাক।

“লোহা কেউ ধ্বংস করতে পারে না, শুধুমাত্র মরচে ধরেই লোহা নষ্ট হয়। ঠিক একইভাবে কোনও ব্যক্তিকে কেউ ধ্বংস করতে পারে না, শুধু তাঁর মনোভাবই তাঁকে ধ্বংস করতে পারে।”

“কোনও ব্যক্তি কাউকে অনুকরণ করে সাময়িকভাবে সাফল্য অর্জন করতে পারে, কিন্তু ভবিষ্যতে তিনি কখনও সাফল্য পাবেন না।”

“আমি সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়াতে বিশ্বাসী নই। আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে সেটিকে সঠিক বলে প্রমাণ করি।”

“আপনার দিকে যে পাথর ছোড়া হচ্ছে, তা সংরক্ষণ করে রাখুন এবং তা দিনে মনুমেন্ট তৈরি করুন।”

“আমি অনেককেই বলি এবং প্রশ্ন করতে উৎসাহ দিয়ে থাকি। নতুন চিন্তাধারা প্রকাশ করার ক্ষেত্রে কখনই লজ্জা পাওয়া উচিত নয়, এমনকী কোনও কাজ শেষ করতে নতুন পদ্ধতি অবলম্বন করার মধ্যেও কোনও ভুল নেই।”

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla