বড় খবর: গড়ে ঘাসফুলের দাপট, ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন অর্জুন সিং!

নির্বাচনের ফল (West Bengal Assembly Election 2021) ঘোষণার দু'দিনের মধ্যে নিজ মুখেই সে কথা স্বীকার করলেন অর্জুন সিং (Arjun Singh)।

  • TV9 Bangla
  • Published On - 14:11 PM, 4 May 2021
বড় খবর: গড়ে ঘাসফুলের দাপট, ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন অর্জুন সিং!
অলঙ্করণ: অভীক দেবনাথ

উত্তর ২৪ পরগনা: কীসের জনপ্রতিনিধি? যেখানে দলীয় কর্মীদেরই সুরক্ষা দিতে পারছেন না তিনি! ‘আত্ম উপলব্ধি’তে এবার সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিতে চান বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh)। নির্বাচনের ফল (West Bengal Assembly Election 2021) ঘোষণার দু’দিনের মধ্যে নিজ মুখেই সে কথা স্বীকার করলেন তিনি। তাও আবার দলীয় কর্মীদের সামনে দাঁড়িয়েই।

এ কী আত্মগ্লানি নাকি নিজ গড় ধূলিসাৎ হওয়ার ক্লেশ? অর্জুন সিংয়ের এ হেন মন্তব্যের পিছনে ঠিক কোন মনন কাজ করছে, তা স্পষ্ট নয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কাছেও। ভোট পরবর্তী হিংসা অব্যাহত রাজ্য জুড়ে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলার একাধিক প্রান্ত থেকে বিজেপি কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ আসছে। কোথাও বাড়ি ভাঙচুর, কোথাও ধারাল অস্ত্র নিয়ে হামলা. বোমাবাজি কিংবা দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর। একাধিক জেলাতে ভয়ে কর্মীদের ঘর ছাড়া হওয়ার খবরও আসছে। সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন শেষ হলেও দলীয় কর্মীদের মনোবল চাঙা করতে বাংলায় আসছেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। আক্রান্তদের পরিবারের পাশে থাকবেন তিনি। বাংলায় হিংসার প্রতিবাদে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথগ্রহণের দিনই দেশজুড়ে ধরনার ডাক দিয়েছে বিজেপি। এমতাবস্থায় সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন বিজেপির দাপুটে নেতা অর্জুন সিং।

মঙ্গলবার আক্রান্ত দলীয় কর্মীদের বাড়িতে যান অর্জুন সিং। সেখানে কর্মীদের সঙ্গে কথা বলার পর তিনি বলেন, “গণতন্ত্র রক্ষার জন্য জনগণের ভোটে জয়ী হয়েছি। আর জনগণকে রক্ষা করতে পারছি না। তাহলে সেই জনপ্রতিনিধি থেকে লাভ কী? এর থেকে ইস্তফা দিয়ে দেওয়া আমাদের উচিত।”

নিজের লোকসভা এলাকায় সাতটি বিধানসভাতেই জয়ের টার্গেট করেছিলেন অর্জুন। আত্মবিশ্বাসের সুর লক্ষ্য করা গিয়েছে গণনার আগের দিন পর্যন্তও। কিন্তু দিনের শেষে হাতে ছিল শুধু ভাটপাড়া আর জগদ্দল। বাকি ৫টি বিধানসভাই তাঁর হাতছাড়া হয়েছে। সবুজ আবিরে কার্যত ধূলিসাৎ বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের গড়।

বীজপুরেও হেরে গিয়েছেন মুকুল রায়ের ছেলে শুভ্রাংশু রায়। বারাকপুর, আমডাঙা, নৈহাটি, বীজপুরে জয়ী হয়েছে তৃণমূল। এমনকি নোয়াপাড়াও হাতছাড়া অর্জুনের। ফলাফল ঘোষণার পর অর্জুন সিংকে বলা শোনা গিয়েছে, ‘ফলাফল নিয়ে পর্যালোচনা হবে।’ আর এদিকে, অর্জুন গড়ে কান পাতলে শোনা গিয়েছে, দাপুটের নেতার সাংগঠনিক ক্ষমতাই এখন প্রশ্নের মুখে। সব মিলিয়ে বিজেপি অন্দরে এখন জোর জল্পনা।

জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বলা ভালো অর্জুন গড়েই দলীয় কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ তুলেছেন বিজেপি সাংসদ। সোমবার রাতভর তাণ্ডব চলে ভাটপাড়া ১১ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায়। কারও বাড়ি ভাঙচুর করা হয়, আবার কারও বড়িতে চলে লুঠপাট।

নিজস্ব চিত্র

আরও পড়ুন: আক্রান্তদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ, দলীয় কর্মীদের মনোবল চাঙা করতে দাওয়াই নিয়ে ফের বাংলায় নাড্ডা

এপ্রসঙ্গে আক্রান্ত প্রাক্তন কাউন্সিলর সোহমপ্রসাদ চৌধুরী বলেন, “তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা মুখে কাপড় বেঁধে অন্ধকারে তাণ্ডব চালিয়েছে। তাদের চিহ্নিত করা গিয়েছে।” যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে আসেন অর্জুন সিং। তাঁর মুখেও সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার বিষয়টি এই পরিস্থিতিতে যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।