৬ শহরতলিতে ফের বাড়ল ‘করোনা কার্ফু’র মেয়াদ, বিধিনিষেধে কী কী ছাড় ঘোষণা করল ত্রিপুরা সরকার?

বিধিনিষেধে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ। আন্তঃরাজ্য যান চলাচলের ক্ষেত্রে যেমন বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়েছে, তেমনই সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টো অবধি দোকানপাট ও বাজার খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

৬ শহরতলিতে ফের বাড়ল 'করোনা কার্ফু'র মেয়াদ, বিধিনিষেধে কী কী ছাড় ঘোষণা করল ত্রিপুরা সরকার?
ফাইল চিত্র।

আগরতলা: রাজ্যে এখনও কমেনি করোনা সংক্রমণ। সেই কারণেই ছয়টি শহরতলিতে আগামী ১৮ জুন অবধি করোনা কার্ফু বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল ত্রিপুরা সরকার।

বৃহস্পতিবার ত্রিপুরার শিক্ষামন্ত্রী তথা রাজ্যের মুখপাত্র রতন লাল নাথ জানান, রাজ্যে যে সমস্ত অঞ্চলে সংক্রমণ বেশি, সেখানে কার্ফু ১৮ জুন অবধি জারি থাকবে। তবে ১৪টি শহরতলিতে সংক্রমণ তুলনামূলকভাবে অনেকটাই হ্রাস পাওয়ায় সেখানে বিধিনিষেধে কিছু ছাড় দেওয়া হবে। গ্রামাঞ্চলগুলি থেকে সম্পূর্ণরূপে কার্ফু তুলে নেওয়া হচ্ছে।

রাজ্যে মন্ত্রী পরিষদের বৈঠকের পর ও স্বাস্থ্য আধিকারিকদের পরামর্শের পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্যের যে শহরতলিগুলিতে আক্রান্তের হার ৫ শতাংশের বেশি, সেখানে কার্ফু জারি রাখা হয়েছে।

তবে বিধিনিষেধে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ। আন্তঃরাজ্য যান চলাচলের ক্ষেত্রে যেমন বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়েছে, তেমনই সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টো অবধি দোকানপাট ও বাজার খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আগামী ১৮ জুন অবধি বন্ধ থাকবে শপিং মল, বিউটি পার্লার, সেলুন, জিম ও সিনেমা হল। সমস্ত ধরনের জনসমাগমের ক্ষেত্রেও বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ত্রিপুরায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪১ জন, মৃত্য়ু হয়েছে ৫ জনের। এর আগে বৃহস্পতিবার সংক্রমণের কারণে ১৪ জনের মৃত্যু হয়, যা দ্বিতীয় ঢেউয়ে সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা ছিল।

আরও পড়ুন: লাগাতার জ্বালানির দাম বাড়ায় কংগ্রেসের ‘প্রতীকী প্রতিবাদ’