মোহময়ী কণ্ঠের নেশায় বুঁদ হয়ে প্রেয়সীর দেখা পেতে ছুটল ‘খুনি’, খেল খতম করল পুলিশ

সোমবার বারাসত আদালতে তোলা হলে ধৃতকে ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

মোহময়ী কণ্ঠের নেশায় বুঁদ হয়ে প্রেয়সীর দেখা পেতে ছুটল 'খুনি', খেল খতম করল পুলিশ
নিজস্ব চিত্র

কলকাতা: মহিলা কণ্ঠস্বরকে টোপ হিসেবে ব্যবহার করে ৯ মাস পুরনো খুনের কিনারা করল পুলিশ। গত বছর নভেম্বর মাসে রাজারহাটে এক টোটো চালককে খুন করে এক জলাশয়ে ফেলে দেওয়ার ঘটানা ঘটে। মৃত ব্যক্তির টোটো এবং টাকা পয়সাও লোপাট করে নেওয়া হয়। তদন্তে নেমে অবশেষে এই খুনের ঘটনার কিনারা করল রাজারহাট থানার পুলিশ। এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মহম্মদ নুর আলমকে হাওড়া দাসনগর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার বারাসত আদালতে তোলা হলে ধৃতকে ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

তবে খুনে অভিযুক্ত এই ব্যক্তিকে ধরতে অভিনব পন্থা নিয়েছিল রাজারহাট থানার পুলিশ। সূত্রের খবর, মোবাইলের সূত্র ধরে গ্রেফতার করা হয় নুর আলমকে। গ্রেফতারির পরই জানা গিয়েছে, বিহারের জামালপুরের একটি গ্যাংয়ের সঙ্গে মিলে বিভিন্ন হাইওয়েতে গাড়ি ছিনতাই-সহ অসামাজিক কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত ছিল নুর। টোটো চালক মহম্মদ কৌওসারকে খুনের পিছনেও ছিনতাই করাই নুরের মূল উদ্দেশ্য ছিল বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে।

কিন্তু কীভাবে পাকড়াও করা হল অভিযুক্তকে? পুলিশ সূত্রে খবর, মোবাইল টাওয়ার লোকেশনের সূত্র ধরে প্রথমে নুর যে হাওড়ায় লুকিয়ে রয়েছে, সেই সম্পর্কে নিশ্চিত হন তদন্তকারীরা। এরপর এক মহিলার মাধ্যমে ফাঁদ পাতা হয়। প্রথমে ইচ্ছাকৃত নুরের নম্বরে মিসড কল দেওয়া হয়। তারপর ওই নম্বরে ফোন করে ক্রমেই আলাপ জমিয়ে তোলে অভিযুক্ত। মোহময়ী কণ্ঠস্বরে সে এতটাই মশগুল হয়ে যায় যে সাত পাঁচ না ভেবেই দেখা করার পরিকল্পনাও বানিয়ে ফেলে। তদন্তকারীরাও ঠিক এই অপেক্ষাতেই ছিলেন। দেখা করতে আসতেই হাতেনাতে ধরে ফেলা হয় অভিযুক্তকে। আরও পড়ুন: কত শতাংশ কাটমানি নেন হুমায়ুন? অভিষেকের কাছে নালিশে জানালেন তৃণমূল নেতারা

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla