Tokyo Olympics 2020: মা-কে দেখেই আবেগতাড়িত রুপোর মেয়ে চানু

Mirabai Chanu: মণিপুরের বিমানবন্দরে চানুকে বরণ করে নেন সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী। বিমানবন্দরে মেয়েকে নিতে আসেন চানুর পরিবারও।

Tokyo Olympics 2020: মা-কে দেখেই আবেগতাড়িত রুপোর মেয়ে চানু
Tokyo Olympics 2020: মা-কে দেখেই আবেগতাড়িত রুপোর মেয়ে চানু (সৌজন্যে-টুইটার)

ইম্ফল: স্বপ্ন আজ সত্যি হয়েছে। এতদিনের পরিশ্রম, কষ্ট সব ধুয়ে গিয়েছে অলিম্পিকে রুপো জেতার পর। দেশে ফেরার পর থেকেই সংবর্ধনায় ভাসছেন মীরাবাঈ চানু (Mirabai Chanu)। গতকাল দিল্লি বিমানবন্দরে তাঁকে বরণ করে নেন ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। একের পর এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। অবশেষে আজ বিকেলে নিজের ঘরে ফিরলেন চানু। অলিম্পিকে (Olympics) স্বপ্ন সফল করে ইম্ফলে পা রাখলেন ২৬ বছরের এই ভারোত্তোলক।

মণিপুরের বিমানবন্দরে চানুকে বরণ করে নেন সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী। বিমানবন্দরে মেয়েকে নিতে আসেন চানুর পরিবারও। মা-কে দেখে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন চানু। জড়িয়ে ধরে ভেঙে পড়েন কান্নায়। স্বপ্ন সফল হওয়ার কান্না। মা সাইখোম তোম্বি দেবীর স্বপ্নও সফল হয়েছে। তিনিও তো আজ গর্বিত। সবচেয়ে সুখের দিন। চানুর বাবা কৃতি মিতেইও চানুকে দেখে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। এক আবেগঘন মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি হয়ে থাকল। ৪৯ কেজি বিভাগে রুপো জেতেন মীরাবাঈ চানু। স্ন্যাচ এবং ক্লিন ও জার্কে মোট ২০২ কেজি ভার তোলেন তিনি।

Tokyo Olympics Silver medalist Mirabai Chanu with her parents

টোকিও থেকে দেশে ফিরে মা-বাবার সঙ্গে চানু (সৌজন্যে-টুইটার)

চানুকে ইতিমধ্যেই আর্থিক ভাবে পুরস্কৃত করার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে কেন্দ্র সরকার ও মণিপুর সরকার। ইম্ফল থেকে ২৫ কিমি দূরে এক প্রত্যন্ত গ্রামে থাকেন চানু। রুপোর মেয়েকে এ দিন বিমানবন্দরে দেখতে জনতার ঢল নামে। চানুকে নিয়ে আজ গর্বিত মণিপুরবাসী, ভারতবাসীও।

আরও পড়ুন: Tokyo Olympics 2020: মেয়েদের বক্সিংয়ের শেষ আটে লভলিনা, পদকের আশায় ভারত

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla