মামাবাড়ি যাওয়ার পথে জঙ্গলে মায়ের সঙ্গে ঘৃণ্য কীর্তি বাবার! সব দেখে স্থবির তিন বছরের ছেলে

সাতসকালে মর্মান্তিক দৃশ্য দুর্গাপুরের (Durgapur) এনআইটি (NIT) চত্বরে আশুতোষ মুখোপাধ্যায় রোড।

মামাবাড়ি যাওয়ার পথে জঙ্গলে মায়ের সঙ্গে ঘৃণ্য কীর্তি বাবার! সব দেখে স্থবির তিন বছরের ছেলে
নিজস্ব চিত্র

দুর্গাপুর: এনআইটি সংলগ্ন চত্বর এমনিতেই জমজমাট। দুর্গাপুর (Durgapur) এনআইটি সাত নম্বর গেটের পাশে অগভীর জঙ্গল থেকে একটা গোঙানির আওয়াজ আসছিল। পথ চলতি সাধারণ মানুষ উঁকি দিতেই দেখেন, ঝোপের মধ্যে পড়ে রয়েছেন এক মহিলা। গলায় থেকে রক্ত বেরোচ্ছে। মাটিতেও পড়ে চাপ চাপ রক্ত। ঠিক পাশেই দাঁড়িয়ে বছর তিনেকের ছেলে। ভ্যাবাচাকা খেয়ে স্থবির হয়ে গিয়েছে সে। চোখে জল, তবে মুখে বুলি নেই। কিচ্ছুটিই বলতে পারছে না। প্রশ্ন করতেই মহিলা আধো বুলিতে যা বললেন, তাতে গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠল প্রত্যক্ষদর্শীদের। সাতসকালে মর্মান্তিক দৃশ্য দুর্গাপুরের এনআইটি (NIT) চত্বরে আশুতোষ মুখোপাধ্যায় রোড।

রানিগঞ্জের বাসিন্দা সাবিনা বিবি নামে ওই মহিলা হাসপাতালে যাওয়ার পথে জানিয়েছেন, এ দিন সকালে ছেলেকে নিয়ে তিনি কৃষ্ণনগরে বাবার বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তাঁদের বাইকে পৌঁছে দিতে যাচ্ছিলেন স্বামী মহম্মদ সমীর। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে জঙ্গলে কীভাবে গেলেন তাঁরা? আসলে সাবিনার বয়ান অনুযায়ী, সমীর বলেছিলেন, তাঁর ‘টয়লেট’ করতে যেতে হবে।

ঝোপের সামনে বাইক দাঁড় করিয়েই সাবিনা আর ছেলেকে নিয়ে জঙ্গলের ভিতর ঢোকেন তিনি। অভিযোগ, এরপরই আচমকা সমীর পকেট থেকে ছুরি বার করে সাবিনার গলায় চালিয়ে দেন। সাবিনা চিৎকার করলে ঘাবড়ে যান সমীর। তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে বাইক নিয়ে পালান। ছেলে পাশেই দাঁড়িয়ে ছিল। গোটা ঘটনাজয় হতভম্ব হয়ে গিয়েছে ছোট্ট শিশুটি।

আরও পড়ুন: উলুবেড়িয়া থেকে উদ্ধার ২৮ কেজি গাঁজা, ধৃত ২

সাবিনা জানিয়েছেন, সমীরের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক রয়েছে। তা তিনি জানতে পেরে গিয়েছিলেন। তা নিয়ে দু’জনের মধ্যে ঝামেলাও হয়। তার জেরেই তাঁকে খুন করার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ। গুরুতর জখম সাবিনাকে উদ্ধার করে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । সমীরের খোঁজে তল্লাশি চলছে।