Johnny Depp-Amber Heard Case: মানহানি মামলায় জিতলেন জনি ডেপ, প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বারকেই দিতে হবে কয়েকশো কোটির ক্ষতিপূরণ

Johnny Depp-Amber Heard Case: গতকাল ভার্জিনিয়ার সাত সদস্য়ের জুরি দীর্ঘ ১৩ ঘণ্টা ধরে আলোচনার পর ৫৮ বছর বয়সী অভিনেতার বিরুদ্ধে আনা গার্হস্থ্য হিংসা ও যৌন হেনস্থার অভিযোগ মানহানিকর বলে উল্লেখ করা হয় এবং ১.৫ কোটি ডলারের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় অ্যাম্বার হার্ডকে।

Johnny Depp-Amber Heard Case: মানহানি মামলায় জিতলেন জনি ডেপ, প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বারকেই দিতে হবে কয়েকশো কোটির ক্ষতিপূরণ
জনি ডেপ ও অ্য়াম্বার হার্ড।
TV9 Bangla Digital

| Edited By: ঈপ্সা চ্যাটার্জী

Jun 08, 2022 | 1:29 PM

ওয়াশিংটন: দীর্ঘ টানাপোড়েন, কাদা ছোড়াছুড়ির অবসান। প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বার হার্ডের বিরুদ্ধে আনা মানহানি মামলায় জয়ী হলেন হলিউড তারকা জনি ডেপ। বুধবারই মার্কিন জুরি জনি ডেপ ও তাঁর প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বার হার্ড, দু’জন মানহানি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেন। তবে জনি ডেপের প্রতিই আদালত বেশি সমর্থন জানায় এবং অ্য়াম্বার হার্ডকে ১.৫ কোটি ডলারের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রায় ছয় সপ্তাহ ধরে চলা এই শুনানিতে দুই হলিউড তারকাই একে অপরের বিরুদ্ধে গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ এনেছিলেন।

‘পাইরেটস অব ক্যারিবিয়ান’ খ্যাত অভিনেতা জনি ডেপের সঙ্গে ২০১৫ সালে বিয়ে হয় অভিনেত্রী অ্যাম্বার হার্ডের। ২০১৭ সাল অবধি সেই বিয়ে টিকে থাকলেও, ২০১৬ সালেই জনি ডেপের বিরুদ্ধে গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ এনে ‘নিষেধাজ্ঞা’ বা রিস্ট্রেইনিং অর্ডার জারি করেন অ্যাম্বার। এরপরে ২০১৮ সালে ফের একবার গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ আনেন অ্যাম্বার হার্ড। একটি ম্যাগাজিনের সাক্ষাৎকারে জনির বিরুদ্ধে একাধিক বিস্ফোরক অভিযোগও আনেন তিনি।  ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডে তিনবারের অস্কার মনোনীত অভিনেতাকে “বউ পেটানো স্বামী” বলেই উল্লেখ করা হয়। এরপরই ওই ম্য়াগাজিনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন জনি ডেপ, তবে ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে সেই মামলায় হেরে যান জনি।

প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বারের বিরুদ্ধেও যে মানহানির মামলা দায়ের করেছিলেন হলিউড অভিনেতা, তার শুনানি ছিল গতকাল। দীর্ঘ ছয় সপ্তাহ ধরে অ্যাম্বার ও জনি ডেপের দেহরক্ষী থেকে শুরু করে হলিউড এক্সেকিউটিভ, এজেন্ট, চিকিৎসক, বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয় স্বজনদের জেরা করা হয়। একইসঙ্গে অ্যাম্বার ও জনি ডেপের একাধিক ভিডিয়ো ও অডিয়ো ফাইলও শোনা হয়,যেখানে ওই প্রাক্তন দম্পতির মধ্য়ে চূড়ান্ত ঝগড়াঝাঁটি, এমনকি আঘাতের ছবিও দেখা যায়। তবে দুই পক্ষেরই অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের মাঝেই প্রমাণিত হয় যে জনি ডেপের তুলনায় অ্যাম্বার হার্ডই বেশি হিংস্র  হয়ে উঠতেন এবং জনির উপরে নির্যাতন করতেন।

গতকাল ভার্জিনিয়ার সাত সদস্য়ের জুরি দীর্ঘ ১৩ ঘণ্টা ধরে আলোচনার পর ৫৮ বছর বয়সী অভিনেতার বিরুদ্ধে আনা গার্হস্থ্য হিংসা ও যৌন হেনস্থার অভিযোগ মানহানিকর বলে উল্লেখ করা হয় এবং ১.৫ কোটি ডলারের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয় অ্যাম্বার হার্ডকে।

মামলার রায়দানের পরই একদিকে যেখানে অ্যাম্বার হার্ড জানান, তাঁর মন ভেঙে গিয়েছে এবং আদালতের রায়ে তিনি অত্য়ন্ত হতাশ, যা বর্ণনার অতীত। তিনি বলেন, “বর্ণনা করতে পারব না কতটা হতাশ আমি। পাহাড় সমান তথ্য প্রমাণ জমা দেওয়ার পরও আমার প্রাক্তন স্বামীর ক্ষমতা, প্রভাবের কাছে হার মানতে হল। এটা মহিলাদের জন্যও হার।”

অন্যদিকে, জনি ডেপ ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করে বলেন, “জুরি আমার জীবন ফিরিয়ে দিলেন”। ক্য়াপ্টেন জ্যাক স্প্যারোর সমর্থকরাও আদালতের রায়ে অত্যন্ত খুশি। তারা দাবি করেন যে অবশেষে সত্য সামনে এল।

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla