Cryptocurrency Bill: কোনও পেমেন্ট হবে না ক্রিপ্টোকারেন্সিতে,আইন অমান্য করলে হবে জামিন অযোগ্য জেল

Cryptocurrency Bill: রিপোর্টে লেখা হয়েছে, ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং বন্ধ করার জন্য সরকারের পরিকল্পনা বাজারে একটি উন্মাদনা তৈরি করেছে আর বেশকিছু বিনিয়োগকারী যথেষ্ট লোকসান ভোগ করে বাইরে বেরিয়ে এসেছে। তবে বিজ্ঞাপনের বন্যা এবং ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্রমবর্ধমান দামে আকৃষ্ট হয়ে ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগকারীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

Cryptocurrency Bill: কোনও পেমেন্ট হবে না ক্রিপ্টোকারেন্সিতে,আইন অমান্য করলে হবে জামিন অযোগ্য জেল
ক্রিপ্টোকারেন্সি বিল নিয়ে কী ভাবছে কেন্দ্র? (ফাইল ছবি)

নয়া দিল্লি: ক্রিপ্টোকারেন্সি(Cryptocurrency) নিয়ে ভারতে আসতে চলা বিল অনুযায়ী দেশে ক্রিপ্টোকে কারেন্সির মতো ব্যবহার কর ব্যান হতে পারে। এছাড়া এই আইনের অমান্যকারীকে (Infringe the law) ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেপ্তার করা যেতে পারে, এবং তারা জামিনও পাবেন না। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স বিলে দেখা সারাংশের উপর নির্ভর করে এই তথ্য জানিয়েছে।

বিলের সামারি অনুযায়ী, ভারত সরকার কোনও ব্যক্তি দ্বারা ডিজিটাল কারেন্সিকে ‘বিনিময়ের মাধ্যম (medium of exchange), মূল্যের ভাণ্ডার(store of value)আর অ্যাকাউন্টের ইউনিট (a unit of account)’ হিসেবে মাইনিং, জেনারেটিং, হোল্ডিং, সেলিং, অথবা ডিলিংয়ের মতো সমস্ত গতিবিধি সাধারণত নিষিদ্ধ করার পরিকল্পনা করছে। এর মধ্যে যে কোনও নিয়ম লঙ্ঘন করাও “বিচার্য” হিসেবে ধরা হবে, যার অর্থ ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেফতারি সম্ভব হবে এবং তা জামিন অযোগ্যও হবে।

গেজেটস ৩৬০-এর একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, বিষয়টি সম্পর্কে সরাসরি অবগত থাকা সূত্রের মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলার অনুমতি নেই আর তিনি নিজের পরিচয় জানাতে রাজি নন। এই ব্যাপারে অর্থমন্ত্রকের প্রতিক্রিয়া চাওয়ায় কোনও জবাব দেওয়া হয়নি।

ব্ল্যাক চেন টেকনিক আর এনএফটির জন্য ধাক্কা

এই বিষয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত আইনজীবীদের বক্তব্য, যেহেতু সরকার আগে বলেছিল যে তাদের উদ্দেশ্য ব্ল্যাকচেন টেকনিককে (Blockchain Technology) উৎসাহ দেওয়া, প্রস্তাবিত আইন এর ব্যবহারের সঙ্গে সঙ্গে ভারতে নন-ফাঞ্জিবল টোকেন (NFT) বাজারের জন্য একটা ধাক্কা হবে। ল ফার্ম Ikigai Law এর ফাউন্ডার অনিরুদ্ধ রস্তোগীর বক্তব্য, যদি কোন অর্থ প্রদানের অনুমতি না থাকে এবং লেনদেন ফি এর জন্য কোন ব্যতিক্রম করা না হয়,তাহলে এটি কার্যকরীভাবে ব্লকচেইন ডেভলপমেন্ট এবং NFTকে প্রতিরোধ করবে।

রিপোর্টে লেখা হয়েছে, ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং বন্ধ করার জন্য সরকারের পরিকল্পনা বাজারে একটি উন্মাদনা তৈরি করেছে আর বেশকিছু বিনিয়োগকারী যথেষ্ট লোকসান ভোগ করে বাইরে বেরিয়ে এসেছে। তবে বিজ্ঞাপনের বন্যা এবং ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্রমবর্ধমান দামে আকৃষ্ট হয়ে ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগকারীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে কোনও অফিসিয়াল ডেটা নেই, কিন্তু ইন্ডাস্ট্রির অনুমান, দেশে প্রায় ১৫ মিলিয়ন থেকে ২০ মিলিয়ন ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারী রয়েছে, যাদের মোট ক্রিপ্টো হোল্ডিং প্রায় ৪৫,০০০ কোটি টাকা হতে পারে।

লোভনীয় বিজ্ঞাপনের উপরও নিয়ন্ত্রন করার পরিকল্পনা

বিলের খসড়া আর সূত্রের মোতাবেক, সরকার এখন নতুন বিনিয়োগকারীদের লোভ দেখানো বিজ্ঞাপনের উপরও নিয়ন্ত্রণ করার পরিকল্পনা করছে। সূত্র জানিয়েছে, সেলফ কাস্টোডিয়াল ওয়ালেটের উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হতে পারে, যা মানুষকে এক্সচেঞ্জের বাইরে ডিজিটাল কারেন্সি মজুত করার অনুমতি দেয়।

আরও পড়ুন: Agri Infra fund: ৪০০০ এর বেশি প্রোজেক্টের জন্য এখনও পর্যন্ত সরকারের খরচ হয়েছে ২০৭১ কোটি টাকা

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla