দেশে পাম তেলের আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞার দাবি জানালো SEA

Palm Oil Import Duty: ২০২১ এর ডিসেম্বর মাসে, কেন্দ্রীয় সরকার ঘরোয়া বাজারে খাদ্য তেলের মূল্যবৃদ্ধি আটকাতে আরবিডি পামোলিন আর আরবিডি পাম তেলের আমদানি শুল্ক ৫.৫ শতাংশ কমিয়েছিল। এই ছাড়ের ফলে রিফাইন্ড পাম তেল আর অপরিশোধিত পাম তেলের মধ্যে আমদানি শুল্কের ব্যবধান কমে ৫.৫ শতাংশ হয়।

দেশে পাম তেলের আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞার দাবি জানালো SEA
ফাইল চিত্র

নয়া দিল্লি: শিল্প সংগঠন সলভেন্ট এক্সট্র্যাক্টর অ্যাসোসিয়েশন (Solvent Extractors Association) বৃহস্পতিবার জানিয়েছে রিফাইন্ড আর অপরিশোধিত পাম তেলের (CPO) মধ্যে আমদানি শুল্কের ব্যবধান কমায় ঘরোয়া রিফাইনিং শিল্পের ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তারা দাবি করেছে, কেন্দ্র আবারও রিফাইন্ড পাম তেলের (refined palm oil) আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করুক এবং এই দুই তেলের মধ্যে আগের ১১ শতাংশ শুল্কের ব্যবধানকে বহাল করুক। খাদ্য তেলের দাম বাড়ায় তেলের সরবরাহ আরও বাড়াতে কেন্দ্রীয় সরকার আমদানি শুল্ক কম করেছিল।

পুরো বিষয়টি কী?

২০২১ এর ডিসেম্বর মাসে, কেন্দ্রীয় সরকার ঘরোয়া বাজারে খাদ্য তেলের মূল্যবৃদ্ধি আটকাতে আরবিডি পামোলিন আর আরবিডি পাম তেলের আমদানি শুল্ক ৫.৫ শতাংশ কমিয়েছিল। এই ছাড়ের ফলে রিফাইন্ড পাম তেল আর অপরিশোধিত পাম তেলের মধ্যে আমদানি শুল্কের ব্যবধান কমে ৫.৫ শতাংশ হয়। স্বাভাবিকভাবে ভারত, খাদ্য তেলের এক প্রধান আমদানিকারক দেশ, যারা বিশ্ববাজারে বড় মাত্রায় সিপিও কেনে আর তা ঘরোয়া বাজারে প্রসেস করে। কিন্তু দুই তেলের মধ্যে শুল্কের ব্যবধান কম হওয়ায় ব্যবসায়ীরা রিফাইন্ড পাম তেলের প্রতি আগ্রহ দেখাচ্ছেন। কেন্দ্রীয় খাদ্য সচিব শুধাংশু পাণ্ডেকে লেখা চিঠিতে, মুম্বই স্থিত সলভেন্ট এক্সট্র্যাক্টর অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়ার (SEA) সভাপতি অতুল চতুর্বেদী বলেছেন, ‘আমরা সরকারের কাছে অপরিশোধিত আর রিফাইন্ড পাম তেলের মধ্যে ১১ শতাংশ শুল্কের ব্যবধানকে বহাল করার আবেদন করছি. এতে দুই তেলের মধ্যে শুল্কে ১১ শতাংশের ব্যবধান তৈরি হবে।’ তিনি এটাও দাবি করেছেন যে সরকার তাৎক্ষণিক প্রভাবে বা কম সে কম এক এপ্রিল ২০২২ থেকে নিষিদ্ধ তালিকার অধীনে আরবিডি পামোলিন আর রিফাইন্ড পাম তেলের আমদানিকে আাবারও রাখুক। তিনি বলেন, ‘এতে ঘরোয়া রিফাইনিং শিল্প প্রতিযোগীতা করার সমান সুযোগ পাবে আর এটা আমাদের প্রধানমন্ত্রীর ‘মেক ইন ইন্ডিয়ার’ দৃষ্টিকোণের অনুরূপ হবে।’

আরবিডি পামোলিনের আমদানি বেড়েছে

এসইএর পরিসংখ্যানে জানা যায় যে পাম তেল পণ্যে, সিপিওর আমদানি ডিসেম্বর ২০২১ এ ২৯.৫৯ শতাংশ কমে ৫.২৮ হয়েছে, যা এক বছর আগের একই সময়সীমায় ছিল ৭.৪৮ লাখ টন। ক্রুড পাম কর্নেল অয়েল (CPKO) এর আমদানিও এক বছর আগের সময়সীমার ১৯,৪৮৬ পরিমাণের চেয়ে কমে ১৩,৮০০ টন হয়েছে। তবে ডিসেম্বর ২০২১ এ আরবিডি পামোলিনের আমদানি বেড়ে ২৪,০০০ টন হয়েছে, যা এক বছর আগে সমান সময়সীমায় ছিল ৯০০ টন। হালকা তেলের মধ্যে সোয়াবিন তেলের আমদানি গত বছর ডিসেম্বরে ২১.৫৭ শতাংশ বেড়ে ৩.৯২ লক্ষ টন হয়ে গিয়েছে যা ২০২০-র ডিসেম্বর ছিল ৩.২২ লক্ষ টন।

আরও পড়ুন: Petrol Price Today: প্রকাশিত পেট্রোল ডিজেলের নতুন দাম, জানুন আপনার শহরের দর

Related News

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla