সিপিএম পার্টি অফিসে অগ্নিসংযোগ, ফের উত্তপ্ত ত্রিপুরা

Tripura: পুলিশের সামনেই ঘটনাগুলি ঘটেছে বলে অভিযোগ সিপিএমের। রাজ্য জুড়ে চলছে বামেদের বিক্ষোভ কমর্সূচি।

সিপিএম পার্টি অফিসে অগ্নিসংযোগ, ফের উত্তপ্ত ত্রিপুরা
ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ

আগরতলা: ফের রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল ত্রিপুরা (Tripura)। গতকালের পর আজও একাধিক দলীয় কার্যালয়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে ও ভাঙচুর চালনো হয়েছে বলে অভিযোগ সিপিএমের। রাতভর তাণ্ডব চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাম নেতারা। আজ, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করেছে সিপিএম (CPM)। তাদের দাবি, বিজেপিই (BJP) এই ভাঙচুর চালিয়েছে। শুধু তাই নয়, এই ঘটনায় পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগও তুলেছে বাম শিবির। তাদের দাবি, পুলিশের সামনে এই ঘটনা ঘটলেও পুলিশ কোনও পদক্ষেপ করেনি।

ঘটনার সূত্রপাত হয় গত ৬ সেপ্টেম্বর। দলীয় কর্মসূচিতে যাওয়ার পথে বাধা দেওয়া হয় প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বাম নেতা মানিক সরকারকে। এরপর সিপিএমের বিক্ষোভ শুরু হয়। জানা গিয়েছে, গতকাল ত্রিপুরার উদয়পুরে বিজেপির এক কর্মীকে মারধরের ঘটনায় অভিযোগ উঠেছে সিপিএমের বিরুদ্ধে। আর তারপরই বিজেপি দাবি করে যে তারা রাজ্য জুড়ে প্রতিরোধ কর্মসূচি শুরু করেছে। গতকালের পর আজ সকাল পর্যন্ত একের পর এক হামলার অভিযোগ সামনে আসছে। বিশালগড়, উদয়গড়ে বামেদের দলীয় কার্যালয় থেকে শুরু করে আগরতলার রাজ্য দফতর, সব জায়গাতেই তাণ্ডব চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ। বেশিভাগ কার্যালয়েই আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

বিজেপির দাবি, তাদের কর্মীকে মারধরের ঘটনায় প্রতিবাদ জানাচ্ছেন দলের কর্মীরা। গত সোমবার ধনপুর এলাকায় যখন মানিক সরকার যখন ঢুকতে যাচ্ছিলেন তখন তাঁর কনভয়ে হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। এরপরই আগ্রাসী মেজাজ ধারণ করেন এলাকার সিপিএম কর্মীরা। এই ঘটনা নিয়ে গোটা রাজ্য জুড়ে ধিক্কার মিছিল বের করা হয়। সেই ধিক্কার মিছিল চলাকালীনই বুধবার ত্রিপুরার বেশ কিছু এলাকায় আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটে। অগ্নিসংযোগ করা হয় একাধিক সিপিএম কার্যালয় এবং সংবাদ মাধ্যমের গাড়িতে।

বুধবার রাত নাগাদ ঘটনার নিন্দা করে টুইটে সরব হন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক টুইটে লেখেন, হিংসা এবং গুণ্ডামি এমন ভাবে বিজেপির মজ্জাগত যে তারা গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভকেও নৃশংসভাবে আক্রমণ করতে ছাড়ছে না। টুইটে সিপিএমের নাম উল্লেখ না করলেও মিডিয়ার উপর আক্রমণের নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। এর আগে তৃণমূল যখন হামলার অভিযোগ তুলেছিল, তখন পাশে দাঁড়িয়েছিল সিপিএম। যে সময় ত্রিপুরায় তৃণমূল কর্মী-সমর্থন এমনকী অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের কনভয়ে হামলার ঘটনা ঘটে, সেই সময় খোদ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারও এই নিয়ে সরব হন।

এই ঘটনায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ত্রিপুরায় বাইরে থেকে লোকজন নিয়ে গিয়ে কর্মসূচি চালানো হচ্ছে। অস্থিরতা তৈরি করার চেষ্টা চলছে। এটা ত্রিপুরার মানুষ খুব একটা ভালো চোখে দেখছে না। গতকালই ত্রিপুরায় তৃণমূলকর্মীদের আক্রান্ত হয়েছে বলে কর্মিসভার বৈঠকে সরব হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আরও পড়ুন: ‘নন্দীগ্রামে আগে ভাগে প্রার্থী দিয়ে ঝটকাটা তো ভালই খেলেন’, প্রার্থী ঘোষণা নিয়ে তৃণমূলকে বিঁধলেন দিলীপ

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla