Bill on Cryptocurrency Ban: সহজেই টাকা কামানোর টোপ, যুব সম্প্রদায়কে বাঁচাতে পুরোপুরিই কি নিষিদ্ধ হবে ক্রিপ্টোকারেন্সি?

Cryptocurrency Ban: এর আগে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফেও বেসরকারি ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছিল। অতিরিক্ত লাভের আশায় যেভাবে ডিজিটাল মুদ্রায় বিনিয়োগ বাড়ছে, তা দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।

Bill on Cryptocurrency Ban: সহজেই টাকা কামানোর টোপ, যুব সম্প্রদায়কে বাঁচাতে পুরোপুরিই কি নিষিদ্ধ হবে ক্রিপ্টোকারেন্সি?
দেশে পুরোপুরিই কি বন্ধ হতে চলেছে ক্রিপ্টোকারেন্সি? ফাইল ছবি

নয়া দিল্লি: দেশে জনপ্রিয়তা বাড়তেই ক্রিপ্টোকারেন্সি (Cryptocurrency) নিয়ে উদ্বেগে কেন্দ্র। ডিজিটাল এই মুদ্রা সঠিকভাবে ব্য়বহার না হলে একদিকে যেমন অর্থনীতিতে ধস নামতে পারে, তেমনই আবার সন্ত্রাসবাদে মদত বা বেআইনি কার্যকলাপেও ব্য়বহৃত হতে পারে, যা জাতীয় নিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। এই সমস্ত দিক বিবেচনা করেই শীতকালীন অধিবেশনে (Winter Session of Parliament) দেশে ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্য়বহারে নিষেধাজ্ঞা জারির বিল আনতে চলেছে কেন্দ্র।

মঙ্গলবারই কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা যায়, শীতকালীন অধিবেশনে সবমিলিয়ে ২৬ টি বিল সংসদে পেশ করতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার। এরমধ্যে কৃষি আইন প্রত্যাহার ছাড়াও অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিল হল “দ্য ক্রিপ্টোকারেন্সি অ্যান্ড রেগুলেশন অব অফিশিয়াল ডিজিটাল কারেন্সি বিল, ২০২১”। এই বিলের অধীনে দেশে ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারে রাশ টানা হতে পারে।

এদিকে, কেন্দ্রের এই বিলের কথা প্রকাশ্যে আসতেই হুড়মুড়িয়ে নামতে শুরু করেছে ক্রিপ্টোকারেন্সির বাজার দর। গতকাল রাত ১১ টা ১৫ মিনিটের হিসেব অনুযায়ী, ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলিতে ১৫ শতাংশ বা কোনও কোনও ক্ষেত্রে তারও বেশি ধস নেমেছে। মুখ থুবড়ে পড়েছে বিটকয়েনের দর, ১৭ শতাংশের বেশি নেমে এসেছে। ইথেরিয়ামের দর কমেছে ১৫ শতাংশ, টেথারের দাম কমেছে ১৮ শতাংশ।

তবে সূত্রের খবর,  ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পূর্ণরূপেই বন্ধ করা হবে না। বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হবে, এর জন্য রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া (Reserve Bank of India) ডিজিটাল মুদ্রা নিয়ে একটি পরিকাঠামো তৈরি করবে। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের এই নতুন বিলে ডিজিটাল মুদ্রায় সরকারি্ স্বীকৃতির জন্য আরবিআইয়ের কাছে একটি সহজ পরিকাঠামো তৈরির আবেদন করা হবে। দেশের সমস্ত বেসরকারি ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যবহারেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে। তবে ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রযুক্তি ও তার ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা তৈরির জন্য কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হবে।

এর আগে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফেও বেসরকারি ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছিল। অতিরিক্ত লাভের আশায় যেভাবে ডিজিটাল মুদ্রায় বিনিয়োগ বাড়ছে, তা দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলেই জানিয়েছিলেন আরবিআই গভর্নর শক্তিকান্ত দাশ।

সম্প্রতি ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগের মাধ্যমে সহজেই মোটা টাকা ফেরত পাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন সম্প্রচারিত হতেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজেও উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন। বিভ্রান্তিকর দাবি ও প্রলোভন দেখিয়ে যুব সম্প্রদায়কে ভুল পথে চালিত করা হতে পারে বলেও তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন।

সিডনি ডায়লগে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি  বলেছিলেন, “এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে সমস্ত গণতান্ত্রিক দেশ যাতে ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে একযোগে কাজ করে এবং ভুল হাতে পড়ে আমাদের যুব সম্প্রদায়কে যাতে বিপথে চালিত না করে, তা নিশ্চিত করা। আমরা এমন একটি সময়ে দাঁড়িয়ে আছি, যেখানে পরিবর্তন আসছে, প্রযুক্তি এবং তথ্য নতুন হাতিয়ার হয়ে উঠছে। এক্ষেত্রে সতর্ক তো থাকতেই হবে।”

সূত্রের খবর ছিল, দেশের ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ নিয়ে একটি পরিকাঠামো তৈরি করতে চাইছে কেন্দ্র, যা গোটা ব্যবস্থাটিকে পরিচালন ও পর্যবেক্ষণ করবে। একইসঙ্গে সন্ত্রাসবাদে আর্থিক মদত এবং কোনওরকম আর্থিক তছরূপ এড়াতে ক্রিপ্টোকারেন্সির উপর কড়া নিয়ন্ত্রণ নিয়েও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এই বিষয়ে গত সপ্তাহে অর্থমন্ত্রকের স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকেও ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ, ব্লকচেইন ও ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করা হয়। সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ক্রিপ্টোকারেন্সিতে নিষেধাজ্ঞা নয়, বরং কিছু নিয়ম প্রয়োজন।

আরও পড়ুন: Delhi Air Pollution: উত্তুরে হাওয়া ঢুকতেই মিলল স্বস্তি, অবশেষে ‘খারাপ’ পর্যায়ে নামল দিল্লির বাতাস

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla