Narendra Modi Birthday: মেহসানার মাঝারি মানের পড়ুয়াই আজ প্রধানমন্ত্রী, কেমন ছিল নমোর শৈশব?

PM Modi Birth Place: গুজরাটের মেহসানায় ১৯৫০ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জন্ম নরেন্দ্র মোদীর।

Narendra Modi Birthday: মেহসানার মাঝারি মানের পড়ুয়াই আজ প্রধানমন্ত্রী, কেমন ছিল নমোর শৈশব?
ফাইল চিত্র।

নয়া দিল্লি: অতি সাধারণ একটি ছেলেই যে দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে উঠবে, তা ভাবতে পারেনি কেউই।  আজ, ১৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন। ৭১ বছর বয়সে পা দিচ্ছেন নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। তাঁর বর্তমান রাজনৈতিক জীবন নিয়ে সকলেই জানলেও প্রধানমন্ত্রীর শৈশব কেমন ছিল, তা অজানা অনেকেরই কাছে।

গুজরাট(Gujarat)-র মেহসানায় ১৯৫০ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জন্ম নরেন্দ্র মোদীর। তাঁর পুরো নাম নরেন্দ্র দামোদর দাস মোদী। বাবা দামোদরদাস মূলচন্দ মোদী ও মা হিরাবেন মোদী। ছয় সন্তানের মধ্যে তৃতীয় সন্তান ছিলেন নরেন্দ্র মোদী। উত্তর পূর্ব গুজরাটের এই ছোট শহরেই বেড়ে ওঠা মোদীর। একচালার ওই ছোট্ট বাড়িতে বসেই তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন একদিন দেশের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠবেন তিনি।

সেখান থেকেই তিনি প্রাথমিক শিক্ষা পূরণ করেন। একইসঙ্গে সংসারে হাত লাগাতে তিনি বাবার সঙ্গে ভাদনগর রেল স্টেশনে চা-ও বিক্রি করতেন। স্টেশনে বসেই নিজের লেখাপড়া সারতেন। পরে নিজের দাদার সঙ্গে বাস টার্মিনাসে একটি চায়ের দোকান দেন। স্কুল থেকে ফিরে সেই দোকানেই বসতেন তিনি। পড়াশোনায় মাঝারি মানের হলেও যেকোনও বিষয়ে গঠনমূলক আলোচনা ও বিতর্ক করতে ভালবাসতেন মোদী, এমনটাই জানিয়েছেন তাঁর শিক্ষকরা। থিয়েটারের তাঁর শখ ছিল। তারই প্রমাণ মেলে প্রধানমন্ত্রীর কথাবার্তা, আচার-আচরণে, যার জেরে সহজেই তিনি সকলের মন জয় করে নেন।

পড়াশোনা করার মাঝেই মাত্র ৮ বছর বয়সে তিনি রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘে (Rashtriya Swayamsevak Sangh) যোগ দেন। সেই থেকে শুরু। সমাজ সেবায় বরাবরই আগ্রহী ছিলেন দেশের ছোট্ট নরেন্দ্র। সেই কারণেই ৯ বছর বয়সে যখন গুজরাটের তাপী নদীতে বন্যা আসে, সেই সময় বন্ধুদের সঙ্গে মিলে তিনি একটি ছোট্ট খাবারের দোকান খুলেছিলেন। বাসিন্দাদের কাছ থেকেই খাবার জোগাড় করে এনে তিনি গরিব ও বন্যায় বিপর্যস্ত মানুষদের সাহায্য করতেন। তাঁর এই উদ্যোগকে দেখেই এগিয়ে আসেন বাকিরাও।

পরিবারের নিয়ম মেনেই অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয়। সেই সময় তাঁর বয়স ছিল ১৮, স্ত্রী যশোদাবেনের বয়স ছিল ১৭। কিন্তু সংসারে মন টেকেনি নমোর। সংঘের কাজেই নিজের পুরো সময় দিতে ১৮ বছর বয়সেই স্ত্রী যশোদাবেন চমনলালকে ও মা হীরা বেনকে রেখেই বাড়ি ছাড়েন তিনি। পরবর্তী দুই বছর ধরে তিনি দেশের বিভিন্ন ধর্মীয় স্থানে ঘুরে বেড়ান। সেই সময়ে তিনি বেলুড় মঠেও এসেছিলেন। তাঁর জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ স্বামী বিবেকান্দ, এমনটাই মত প্রধানমন্ত্রীর। ১৯৭১ সালে তিনি ফের গুজরাটে ফিরে আসেন। এরপরই তাঁর রাজনৈতিক জীবনের যাত্রা শুরু হয়।

আরও পড়ুন: ৭১ তম জন্মদিনে বিভিন্ন অবতারে ফিরে দেখা প্রধানমন্ত্রীকে

আরও পড়ুন: ২৪-এর আগেই খুলে যাবে রাম মন্দির, কী ভাবে এগোচ্ছে কাজ? ছবি প্রকাশ করল ‘ট্রাস্ট’ 

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla