5

Women’s Reservation Bill: মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে চিঠি দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী, পুরানো চিঠি তুলে ধরে টুইট কংগ্রসের

Rahul Gandhi letter to PM Modi: ইউপিএ সরকার ২০০৮ সালে মহিলা সংরক্ষণ বিলের খসড়া তৈরি করেছিল। কিন্তু, সেটি রাজ্যসভায় পাশ হতে দু-বছর সময় লেগে গিয়েছিল। তারপর রাজ্যসভায় পাশ হলেও বিলটি আইনে পরিণত হয়নি। ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে চিঠি লেখেন রাহুল গান্ধী।

Women's Reservation Bill: মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে চিঠি দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী, পুরানো চিঠি তুলে ধরে টুইট কংগ্রসের
রাহুল গান্ধী ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
Follow Us:
| Edited By: | Updated on: Sep 19, 2023 | 7:16 AM

নয়া দিল্লি: মহিলা সংরক্ষণ বিল (Women’s Reservation Bill) অবশেষে উত্থাপন হতে চলেছে সংসদে। দ্বিতীয় দিন বিশেষ অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে সোমবার রাতেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে মহিলা সংরক্ষণ বিলে অনুমোদন মিলেছে। মন্ত্রিসভার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে কংগ্রেস। ৬ বছর আগেই কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi) এই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন। সেই চিঠি এক্স হ্যান্ডেলে পুনরায় পোস্ট করেছেন কংগ্রেস নেতা জয়রাম নরেশ।

ইউপিএ সরকার ২০০৮ সালে মহিলা সংরক্ষণ বিলের খসড়া তৈরি করেছিল। কিন্তু, সেটি রাজ্যসভায় পাশ হতে দু-বছর সময় লেগে গিয়েছিল। তারপর রাজ্যসভায় পাশ হলেও বিলটি আইনে পরিণত হয়নি। যদিও বিজেপি এবং কংগ্রেস সবসময় বিলটিকে সমর্থন করেছে। তবে অন্যান্য কয়েকটি দল এই বিলের বিরোধিতা করেছিল। তারা মহিলা সংরক্ষণের মধ্যে অনগ্রসর শ্রেণির জন্য পৃথক সংরক্ষণের দাবি জানায়। ফলে বিলটি ‘ঠান্ডা ঘরে’ চলে যায়। তারপর এনডিএ জমানায় ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এই মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে চিঠি লেখেন রাহুল গান্ধী।

এই খবরটিও পড়ুন

২০১৮ সালের ১৬ জুলাই মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন রাহুল গান্ধী। চিঠিতে তিনি লিখেছিলেন, “আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলছেন তিনি নারীদের ক্ষমতায়নের পক্ষে? দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে তাঁর একথা বলার এবং মহিলা সংরক্ষণ বিল সংসদে পাশ করানোর সময় এসেছে। কংগ্রেস তাঁকে নিঃশর্ত সমর্থন করছে।”

চিঠিতে রাহুল গান্ধী ইউপিএ জমানায় মহিলা সংরক্ষণ বিল পাশ হওয়ার কথাও তুলে ধরেন। তিনি উল্লেখ করেন, বিলটি বিজেপির সমর্থনে উচ্চকক্ষে পাশ হয়েছিল এবং তৎকালীন বিরোধী দলনেতা, প্রয়াত কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অরুণ জেটলি তখন এই বিলটিকে ‘ঐতিহাসিক এবং গুরুত্বপূর্ণ’ বলে অভিহিত করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী মোদীকে মহিলাদের ক্ষমতায়নে একজোট হয়ে লড়াইয়ের বার্তাও দিয়েছিলেন রাহুল। তিনি লেখেন, “নারীদের ক্ষমতায়নের ইস্যুতে, আসুন আমরা একসঙ্গে দাঁড়াই, দল ও রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে সমগ্র দেশকে একটি বার্তা পাঠাই যে, আমরা বিশ্বাস করি পরিবর্তনের সময় এসেছে।”

প্রসঙ্গত, সংসদের বিশেষ অধিবেশনের প্রথম দিন বেশ কয়েকটি দল মহিলা সংরক্ষণ বিল সংসদে পেশ করার জন্য চাপ দিয়েছিল। কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়্গেও এই বিষয়টি সংসদে উত্থাপন করেন। তারপর সোমবার রাতেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই বিল পেশের অনুমোদন দেওয়া হয়। এই বিলে মহিলাদের জন্য ৩৩ শতাংশ বা এক-তৃতীয়াংশ সংরক্ষণের প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে আবার তফশিলি জাতি, উপজাতি এবং অ্যাংলো-ইন্ডিয়ানদের জন্যও সংরক্ষণের প্রস্তাব রয়েছে। তবে এটি স্থায়ী নয়, প্রতিটি লোকসভা নির্বাচনের পর সংরক্ষিত আসনগুলি পরিবর্তন করা উচিত বলেও বিলে উল্লিখিত রয়েছে। বুধবার, আগামী ২০ সেপ্টেম্বর সংসদের বিশেষ অধিবেশনেই মহিলা সংরক্ষণ বিলটি পেশ করা হবে বলে সূত্রের খবর।