TMC in Tirpura: ক্ষমতা প্রয়োগ করছে বিপ্লব দেব সরকার? ব্যাখ্যা চাইতে আদালতে যাচ্ছে তৃণমূল

Abhishek Banerjee's Rally Cancelled: একবার নয়, একাধিকবার সভা বাতিল করতে হয়েছে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদককে। করোনা পরিস্থিতির কারণ দেখিয়েছে ত্রিপুরার বিপ্লব দেব সরকার।

TMC in Tirpura: ক্ষমতা প্রয়োগ করছে বিপ্লব দেব সরকার? ব্যাখ্যা চাইতে আদালতে যাচ্ছে তৃণমূল
বারবার বাতিল করতে হয়েছে অভিষেকের সভা (ফাইল ছবি)

আগরতলা: একবার-দু’বার সমস্যা হতে পারে। তাই বলে বারবার নানা কারণে বাতিল হয়ে যাচ্ছে অভিষেকের (Abhishek Banerjee) সভা। ত্রিপুরা (Tripura) যখন ঘাসফুল শিবিরের পাখির চোখ, তখন মাটি কামড়ে পড়ে থাকতে পিছপা হচ্ছে না তৃণমূলও (TMC)। বিপ্লব দেব (Biplab Deb) সরকারকে যে কোনও অবস্থাতেই চাপে ফেলা এখন লক্ষ্য তৃণমূলের। তাই বারবার বাতিল হওয়ার পরও নিজেদের অবস্থানে একেবারে অনড় থাকছে তৃণমূল নেতৃত্ব। আদালত পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে সেই ইস্যু। যদিও অভিষেকের সভা সংক্রান্ত মামলায় আদালত জানিয়ে দেয়, করোনা (Covid 19) পরিস্থিতিতে ত্রিপুরা সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে কোনওভাবে আদালত হস্তক্ষেপ করতে চায় না। ফলে বুধবারের পদযাত্রা বাতিল হয়ে গিয়েছে। কিন্তু ত্রিপুরা সরকারের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলে আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছে তৃণমূল। বিপ্লব দেব সরকারের কাছে সিদ্ধান্তের ব্যাখ্যা চাওয়া হবে বলে সূত্রের খবর।

জানা গিয়েছে, সভা বাতিল করার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে আজই ত্রিপুরা হাইকোর্টে আবেদন করবে তৃণমূল। ত্রিপুরা প্রশাসনের তরফে সভা সমাবেশে বন্ধের নির্দেশিকাকে চ্যালেঞ্জ করে আদালতে যাবে তৃণমূল। ত্রিপুরা প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা জানতে চাইবে তারা। পাশাপাশি ইনডোরে সভা করতে গেলে অনুমতির জন্য কী কী প্রয়োজন? আদৌ অনুমতি দেওয়া হবে কী না, হলে কতজন থাকতে পারবেন, তা জানতে চাওয়া হবে।

একটা নির্বাচিত সরকার তার ইচ্ছা মতো আইন বা ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারে কী? গণতান্ত্রিক দেশের কোনও অঙ্গরাজ্যে এমন ঘটনা ঘটলে বিচার বিভাগ কী শুধু দর্শক হয়ে থাকবে? এ কথাও আদালতের কাছে জানতে চাইবে তৃণমূল।

গতকাল রাতে জোড়া টুইট করে তৃণমূলের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, যেহেতু আদালত সরকারি নীতির উপর হস্তক্ষেপ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেই কারণে এই সফর পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ‘প্রশাসনিক ক্ষমতার এরূপ অপব্যবহার কতদিন পর্যন্ত করা যায়’, আদালতের কাছে সেই ব্যাখ্যাও তৃণমূল চাইবে বলে জানায়। এর পাশাপাশি টুইটে দাবি করা হয়, যতবারই তৃণমূল কোনও কর্মসূচির আবেদন জানিয়েছে, সেই আবেদন বাতিল করা হয়েছে।

তৃণমূলের পক্ষ থেকে কয়েক দফায় ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদযাত্রার অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। প্রথমে ১৬, পরে ১৭ ও তারপর ২২ তারিখে সভার অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু যতবারই কর্মসূচির আবেদন জানানো হয়, পুলিশ নাকচ করে দেয়। সেই প্রেক্ষিতে যথারীতি ত্রিপুরা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় তৃণমূল। এরই মধ্যে আগামী ৪ নভেম্বর পর্যন্ত সব ধরনের সভা-সমিতি উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে বিপ্লব দেব সরকার। করোনা পরিস্থিতির জেরে এই সিদ্ধান্ত বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: UN Assembly: রাষ্ট্রপুঞ্জের নয়া দূত সুহেল শাহিন, বিশ্বনেতাদের সঙ্গে কথা বলতে চায় তালিবান

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla