শিয়রে আরও এক দুর্যোগ! শুক্রবার থেকে বাংলার কোন কোন জেলাকে সতর্ক করল আবহাওয়া দফতর?

উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে (Bay Of Bengal) তৈরি হয়েছে ঘূর্ণাবর্ত। শুক্রবার শক্তি বাড়িয়ে তা পরিণত হচ্ছে নিম্নচাপে। পরে তা আরও শক্তি বাড়াতে পারে। সোমবার পর্যন্ত জারি থাকবে বৃষ্টিবাদলার দাপট (Rain Forecast)।

শিয়রে আরও এক দুর্যোগ! শুক্রবার থেকে বাংলার কোন কোন জেলাকে সতর্ক করল আবহাওয়া দফতর?
বঙ্গোপসাগরে ঘনীভূত নিম্নচাপ

কলকাতা: একের পর এক দুর্যোগের সম্মুখীন বাংলা। ঘূর্ণিঝড়, দফায় দফায় টর্নেডো, বজ্রপাত! এবার দোড়গোড়ায় এসেছে নিম্নচাপ (Depression)। তার সঙ্গে জুড়েছে কোটালের ভয়। কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে দুর্যোগের সাঁড়াশি চাপ বাংলায়।

উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে (Bay Of Bengal) তৈরি হয়েছে ঘূর্ণাবর্ত। শুক্রবার শক্তি বাড়িয়ে তা পরিণত হচ্ছে নিম্নচাপে। পরে তা আরও শক্তি বাড়াতে পারে। সোমবার পর্যন্ত জারি থাকবে বৃষ্টিবাদলার দাপট (Rain Forecast)। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, গভীর নিম্নচাপ হলে দমকা বাতাস বইতে পারে।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরের ওপর তৈরি হওয়া ঘূর্ণাবর্ত এক দফা শক্তি বাড়িয়েছে। নিম্নচাপ রূপে অবস্থান করছে পশ্চিমবঙ্গ ওড়িশা উপকূলের উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। এই নিম্নচাপ আরও একটু শক্তি বাড়াবে আগামিকাল, শনিবারের মধ্যেই। নিম্নচাপ ওড়িশা হয়ে স্থলভাগের দিকে ঢুকবে। তারপর মধ্যভারতের দিকে এগিয়ে যাবে। অনেক বেশি বিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কা ওড়িশা, ছত্তিশগড়ে।

পশ্চিমবঙ্গের চিন্তার কারণ উপকূলীয় এলাকাগুলি। সুন্দরবন, হিঙ্গলগঞ্জ, পূর্ব মেদিনীপুরের বেশ কিছু জায়গা নিয়ে চিন্তা রয়েছে। এই এলাকাগুলিতে ইয়াসের কারণে যে বাঁধ ভেঙেছিল, তা সম্পূর্ণ মেরামতি করা সম্ভব হয়নি। এরই মধ্যে চিন্তা বাড়াচ্ছে কোটাল। অমাবস্যার প্রভাব থাকবে। নিম্নচাপ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হলে, ঘণ্টায় ৩০-৪০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। যদি পূবালি কিংবা দক্ষিণা পূবালি বাতাস বয়ে যায়, তাহলে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন: গুরুগ্রামে রয়েছে হোটেল, কিন্তু তার আড়ালেই চলত ‘তথ্য পাচারের’ কাজ! আজ NIA-এর মুখোমুখি চিনা নাগরিক

উপকূলবর্তী এলাকার মানুষকে সচেতন করা হয়েছে। শুক্রবার বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে দুই মেদিনীপুর, দুই ২৪ পরগনা, কলকাতা, হাওড়া, ঝাড়গ্রামে। এখানে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে।