Hair Care: এবার চুলের যত্নে যোগ করুন জিরের জলকে! ফল পাবেন হাতে-নাতে

যখন প্রসঙ্গ রূপচর্চার আসে তখন জিরের জলের শরীর থেকে সমস্ত বিষাক্ত পদার্থ দূর করে শরীর ও ত্বকের স্বাস্থ্যকে বজায় রাখেন। ত্বক ছাড়াও চুলের ওপরও প্রভাব ফেলে জিরের জল। জিরের জলের মধ্যে অ্যান্টি ইনফ্লেমমেটরি, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান রয়েছে যা শরীর ও ত্বক এবং চুলের জন্য উপকারী।

Hair Care: এবার চুলের যত্নে যোগ করুন জিরের জলকে! ফল পাবেন হাতে-নাতে

ভারতীয় রান্নায় জিরের এক অনন্য ভূমিকা পালন করে। শরীরে ওপর যেমন জিরে দারুণ প্রভাব ফেলে তেমনই রূপচর্চার দৌড়েও পিছিয়ে থাকে না এই মশলা। কিন্তু চুলের ক্ষেত্রে কী ভূমিকা পালন করে এই জিরে জানা আছে কি? চুলের স্বাস্থ্যে জিরের উপকারিতা আপনি শুনলে তাজ্জব হয়ে যেতে পারেন।

যখন প্রসঙ্গ রূপচর্চার আসে তখন জিরের জলের শরীর থেকে সমস্ত বিষাক্ত পদার্থ দূর করে শরীর ও ত্বকের স্বাস্থ্যকে বজায় রাখেন। ত্বক ছাড়াও চুলের ওপরও প্রভাব ফেলে জিরের জল। জিরের জলের মধ্যে অ্যান্টি ইনফ্লেমমেটরি, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান রয়েছে যা শরীর ও ত্বক এবং চুলের জন্য উপকারী।

খুসকির সমস্যা দূর করে সাহায্য করে জিরের জল। খুসকির সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য জিরের জলকে আপনি হেয়ার মাস্ক হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। এই অ্যান্টি ইনফ্লেমমেটরি উপাদান স্ক্যাল্পকে সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করে। এবং এর ময়েশ্চারাইজিং উপাদান চুল ও স্ক্যাল্পকে ময়েশ্চারাইজ ও কোমলতা প্রদান করে। এর জন্য আপনাকে নিয়মিত জিরের জল দিয়ে চুল ধুতে হবে। এতে খুশকি সহ অন্যান্য চুলের সংক্রমণও দূর হয়ে যাবে। আর এই সব কারণে চুল পড়াও রোধ করতে সহায়তা করে জিরের জল। একই সঙ্গে জিরের জল চুলে এনে দেয় একটি প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা।

কিন্তু এই জিরের জলকে কীভাবে চুলের ওপর প্রয়োগ করবেন ভাবছেন? তারও উপায় রয়েছে আমাদের কাছে। দু কাপ জল এবং এক চামচ জিরে নিন। প্রথমে জল গরম করে তাতে জিরে দিয়ে দিন। এবার এটাকে ভাল করে ফুটিয়ে নিন। জল ভাল করে ফুটে গেলে গ্যাস বন্ধ করে দিন এবং জলটা ছেঁকে নিন। চুলে এই জল ব্যবহার করার আগে ঠাণ্ডা করে নেবেন। জল ঠাণ্ডা হয়ে গেলে এই চুলের গোড়ায় দিয়ে চুল ও স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন। ম্যাসাজ করা হয়ে গেলে এক ঘণ্টা রেখে দিন এবং তারপর শ্যাম্পু করে নিন। এই প্রতিকারটি সপ্তাহে দুবার করে করুন, তাতেই ফল দেখতে পাবেন হাতে নাতে।

খেয়াল রাখবেন যাতে এই প্রতিকার ব্যবহার করার পর ভাল করে শ্যাম্পু করা হয়। শ্যাম্পু করার পর অবশ্যই কন্ডিশনার ব্যবহার করবেন। চেষ্টা করুন সব সময় প্রাকৃতিক শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করতে যাতে রাসায়নিক দ্রব্যের পরিমাণ কম।

আরও পড়ুন: চুলের যত্ন নিতে বাড়িতেই তৈরি করুন অরগ্যানিক শ্যাম্পু!

আরও পড়ুন: উত্‍সবের মরসুমে নতুনভাবে ত্বক পেতে কেমিক্যাল পিলের উপর ভরসা রাখুন!

আরও পড়ুন: উত্‍সবের মরসুমে মেকআপ তো করবেনই, সঙ্গে থাকুক জরুরি কিছু বিউটি টিপস…

Read Full Article

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla