‘ভুল করেছি,’ দল বদলাতে চেয়ে তৃণমূল কার্যালয়ের সামনে ধর্নায় বিজেপি কর্মীরা!

তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিতে চেয়ে প্ল্যাকার্ড হাতে ইলামবাজারের দলের কার্যালয়ের সামনে বসে পড়েন বিজেপির চারশো কর্মী-সমর্থক। তাঁদের হাতে থাকা পোস্টারে কোনওটিতে লেখা 'বিজেপি করে ভুল করেছি', কোথাও লেখা, 'আমরা ভুল করেছি বিজেপি করে, আমাদের তৃণমূলে নেওয়া হোক।'

'ভুল করেছি,' দল বদলাতে চেয়ে তৃণমূল কার্যালয়ের সামনে ধর্নায় বিজেপি কর্মীরা!
নিজস্ব চিত্র

বীরভূম: একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির (BJP) ভরাডুবির পর বীরভূম (Birbhum) জেলায় ঘটছে একের পর এক ঘটনা। কোথাও বিজেপি কর্মীরা তৃনমূলে (TMC) যোগদানের জন্য টোটো চড়ে মাইকিং করে ভূল স্বীকার। কোথাও মুচলেকা দিয়ে চলছে তৃণমূলে যোগদান। এবার হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস কার্যালয়ের সামনে ধর্নায় বসলেন বিজেপি কর্মীরা। না, কোনও রাজনৈতিক সন্ত্রাসের প্রতিবাদে নয়, বরং তৃণমূল যোগদানের আবেদন জানিয়ে এই ধর্না! সোমবার এমনই অভিনব ঘটনার সাক্ষী রইলো বীরভূম জেলার ইলামবাজার তৃণমূল কার্যালয়।

এদিন তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিতে চেয়ে প্ল্যাকার্ড হাতে ইলামবাজারের দলের কার্যালয়ের সামনে বসে পড়েন বিজেপির চারশো কর্মী-সমর্থক। তাঁদের হাতে থাকা পোস্টারে কোনওটিতে লেখা ‘বিজেপি করে ভুল করেছি’, কোথাও লেখা, ‘আমরা ভুল করেছি বিজেপি করে, আমাদের তৃণমূলে নেওয়া হোক।’

বীরভূম জেলায় তৃণমূলে যোগদান করার জন্য বিজেপি কর্মীদের আবেদন অব্যাহত। প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করার হিড়িক পড়েছে। লাভপুর, নানুর বিধানসভা ও বোলপুর শহরের পাশাপাশি সোমবার ইলামবাজার ব্লকেও অব্যাহত থাকল সেই ধারা। কিন্তু এদিনের ছবি যেন সবকিছুকে ছাপিয়ে গেল।

স্থানীয় সূত্রে খবর, এদিন ইলামবাজার ব্লকের সুখবাজার, বাগানপাড়া, লেলেগড়, নীলডাঙ্গা, ভগবতীবাজার-সহ বিভিন্ন এলাকার বিজেপি কর্মীরা তৃণমূল যোগদান করতে চেয়ে সকাল থেকেই ইলামবাজারের তৃণমূল কার্যালয়ের সামনে এসে ভিড় জমান। দীর্ঘ সময় ধরে প্ল্যাকার্ড হাতে ধর্নায় বসে থাকতে দেখা যায় তাঁদের।

সকাল থেকেই এমন বিক্ষোভের পর শেষে তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় নেতৃত্ব ধর্না ভাঙান তাঁদের দলে যোগদান করিয়ে। এই ঘটনা দেখে হতবাক তৃণমূল নেতৃত্বই।

আরও পড়ুন: ‘প্রতারক, মিথ্যাবাদী, বিশ্বাসঘাতককে নিয়ে কেন মাতামাতি?’ রাজীবকে কটাক্ষ অরূপের 

ইলামবাজার তৃণমূল ব্লক সভাপতি ফজরুল রহমান বলেন,”বিজেপি কর্মীরা সকাল থেকেই দাবি জানাচ্ছিল তৃণমূলে যোগদানের জন্য। তারা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছে। আমাকে ধরে কাকুতি মিনতি করছিল। আমি পার্টি অফিসে এলে আমাকে এসে ধরে সবাই। তাই আমরা ওঁদের তৃণমূলে ফিরিয়ে নিয়েছি।”