Nandigram: চলেছে দুর্নীতি, পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে বিডিওর কাছে অভিযোগ জমা করল তৃণমূল কর্মীরা

TMC: অন্যদিকে বিজেপির বক্তব্য, গোটা নন্দীগ্রাম জুড়েই এইধরনের তৃণমূল নেতাদের তোলাবাজি চলছে।

Nandigram: চলেছে দুর্নীতি, পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে বিডিওর কাছে অভিযোগ জমা করল তৃণমূল কর্মীরা
গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান আব্দুল মতালেব

নন্দীগ্রাম: পঞ্চায়েত ভোটের আগে জেলায়-জেলায় শাসকদলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের খবর মিলেছে। কখনও এলাকা দখল ঘিরে বোমাবাজি, কখনও স্বজনপোষণ কখনও বা দুর্নীতি। বারবার প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে শাসকদলকে। এবার নন্দীগ্রামের তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে একাধিক আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ তুললেন দলের সদস্যরাই।

নন্দীগ্রামের দাউদপুর ৮ নম্বর গ্রাম। সেখানকার পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতিতে সরব হলেন ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্যরা(Tmc worker)। অভিযোগ পঞ্চায়েত প্রধান শেখ আবদুল মোতালেব পঞ্চায়েতের কোনও মিটিং না করেই স্থায়ী সমিতির বিভিন্ন অর্থ তছরূপ করছেন। সেই টাকা তছরুপের অভিযোগে ইতিমধ্যে বিডিয়োর কাছে অভিযোগও জমা দিয়েছেন পঞ্চায়েত সদস্যরা।

যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই আবদুল মোতালেব বলেন, “আমার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। গাছ কাটা নিয়ে বিডিও আমায় চিঠি দিয়েছিলেন সেই নিয়ে যাবতীয় তথ্য আমি বিডিওকে জমা দিই। তারপর ক্লিনচিটও আমায় দেওয়া হয়। এরপর যতগুলি বিষয়ে তদন্ত হয়েছে আমায় প্রত্যেকটি বিষয়ে ক্লিনচিট দেওয়া হয়েছে। যারা এখানে অভিযোগ করছেন তাঁরা একসময় শুভেন্দু অধিকারীর পক্ষে ভোট করিয়েছিলেন। এখন নিজেদের দোষ ঢাকতে এই সকল মিথ্যে অভিযোগ করছে।”

ক্যামেরার সামনে না আসতে চাইলেও অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত চলছে বক্তব্য নন্দীগ্রামের বিডিওর।

অন্যদিকে বিজেপির বক্তব্য, গোটা নন্দীগ্রাম জুড়েই এইধরনের তৃণমূল নেতাদের তোলাবাজি চলছে। এরা কেউই ভোটে জিতে আসেনি ছাপ্পা মেরে জনপ্রতিনিধি হয়েছে । শুধু দাউদপুর নয় গোটা নন্দীগ্রাম জুড়েই তৃণমূল নেতাদের এই ধরনের তোলাবাজি আর্থিক তছরুপ চলছে ।

প্রসঙ্গত, আজ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফের হুমকি দিতে শুরু করেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বলেন, “রাজীব গান্ধী, জ্যোতি বসুরা পারেননি। আপনি তো কোনছাড়। হুমকি দিয়ে লাভ হবে না।”শুভেন্দুর কথায়, “অধিকারী পরিবারের উপর কম হামলা হয়েছে? ভেবেছিল ভয় দেখিয়ে বসিয়ে দেবে। পুলিশের সঙ্গে প্রতিদিন বৈঠক করছে। সিভিক ভলান্টিয়ারদের চাপ দেওয়া হচ্ছে। আপনি ইতিহাস জানেন না। আপনার বয়স কম…”

তাদের দলীয় নেতাকর্মীদের উপর হামলার প্রতিবাদে এদিন মেচাদা বাইপাস থেকে মিছিল শুরু করে বিজেপি। এই মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। মিছিলের পর সভা মঞ্চ থেকে তৃণমূলকে উদ্দেশ্য করে একের পর এক হুঁশিয়ারি দেন তিনি। তিনি এও বলেন, অধিকারীদের ধমকে চমকে লাভ নেই। তিনি বলেন, “১৯৮৬ সালে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন রাজীব গান্ধী। ৪০৩টা এমপি ছিল। ইন্দিরা গান্ধী মারা যাওয়ার পরও ছিল। এখানকার সাংসদ ডক্টর ফুলরেণু গুহ-ও তৃণমূলে ছিলেন। রাজীব গান্ধী তিনটে হেলিকপ্টার নিয়ে আমাদের এই মাঠে এসেছিলেন।…আমাদের শৌলা যাওয়ার যে মাঠ। এখন সেখানে অনেক বাড়ি হয়ে গিয়েছে। সেখানে অধিকারীদের বিরুদ্ধে রাজীব গান্ধীকে বলানো হয়েছিল।”

আরও পড়ুন: Suvendu Adhikari and Abhishek Banerjee: শুভেন্দুর বিরুদ্ধে অভিষেকের মানহানি মামলা কলকাতায় স্থানান্তরের নির্দেশ হাইকোর্টের

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla