হাফ প্যান্ট পরে এলে অস্বস্তিতে পড়েন মহিলারা! পুরুষদের ‘শালীন’ পোশাক-ফতোয়া পুরসভার

বিজেপি নেতৃত্বের বক্তব্য, এমন তালিবানি ফতোয়া জারি করা যায় না। পুরসভা এলাকার উন্নয়ন নিয়েই কর্তৃপক্ষের মাথা ঘামানো উচিত।

হাফ প্যান্ট পরে এলে অস্বস্তিতে পড়েন মহিলারা! পুরুষদের 'শালীন' পোশাক-ফতোয়া পুরসভার
নিজস্ব চিত্র

দক্ষিণ ২৪ পরগনা: ‘শালীন’ পোশাক পরে পুরসভায় ঢুকতে নোটিস দিলেন রাজপুর-সোনারপুর পুর কর্তৃপক্ষ (Rajpur Sonarpur Municipality)। পুরসভার গেটে ঝোলানো হয়েছে এমনই নোটিস। তবে কর্তৃপক্ষ জানান, তাঁরা কোনও ড্রেস কোড চালু করেননি। যে কেউ যে কোনও পোশাক পরেই পুরসভায় ঢুকতে পারেন। তবে সেই পোশাক যেন দৃষ্টিকটু না হয়। এই ফতোয়াকে কেন্দ্র করেই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক ফতোয়া। বিজেপি নেতৃত্বের বক্তব্য, এমন তালিবানি ফতোয়া জারি করা যায় না। পুরসভা এলাকার উন্নয়ন নিয়েই কর্তৃপক্ষের মাথা ঘামানো উচিত।

রাজপুর সোনারপুর পুরসভার গেটের বাইরে একটি সাদা কাগজ সাটানো। তাতে লেখা রয়েছে, “পুরসভায় আসতে হলে পরতে হবে শালীন পোষাক।অশালীন বা দৃষ্টিকটূ পোষাক পরে পুরসভার কার্যালয়ে প্রবেশ করা যাবে না।” পুরসভা সূত্রে খবর, রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার রাজপুর কার্যালয়ে সম্প্রতি বেশ কয়েকজন হাফপ্যান্ট পরে এসেছিলেন। তারপরই বিতর্ক তৈরি হয়। শুধু পুর কর্মীদেরই নয়, পরিষেবা নিতে আসা মহিলাদের নাকি তাতে অস্বস্তি বাড়ছে। সেকারণেই এই ফতোয়া। হ্যাফপ্যান্ট পরে আসা ব্যক্তিদের ফেরত পাঠাচ্ছেন গেটের দায়িত্বে থাকা রক্ষীরা।

দক্ষিণ ২৪ পরগণার (পূর্ব) বিজেপির সভাপতি সুনীপ দাস বলেন, “পুরসভা কর্তৃপক্ষ এ ভাবে পোশাক ফতোয়া দিতে পারেন না, তালিবানিরা এমন ফতোয়া দেয়। বরং পুরসভা নিজের কাজটা ঠিক করে করলে ভাল হয়। কীভাবে জমা জল বার করা যায়, এলাকার উন্নয়ন করা যায় সেদিকে নজর দেওয়া উচিচৃত।”

আরও পড়ুন: মাসিক বেতন ৬০ হাজার টাকা, দেবাঞ্জনের ‘ক্রাইম পার্টনার’ তিনি! গ্রেফতার দেহরক্ষী

রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার প্রশাসক পল্লব দাস বলেন, ‘এমন কিছু পোশাক না পরেই আসা উচিত যা দৃষ্টিকটু লাগে। আগামীদিনে যাতে অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, তার জন্য রাজপুর সোনারপুর বাজার অফিস এমন উদ্যোগ নিয়েছে।”

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla