কেরলে মসনদ লড়াইয়ে দ্বিমুখী লড়াইয়ে নতুন সংযোজন বিজেপি, ১৪০ আসনের ভাগ্যনির্ধারণ

রাজ্যে শান্তিপূর্ণ ভোট করাতে ইতিমধ্যেই ১৪০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী উপস্থিত হয়েছে।

কেরলে মসনদ লড়াইয়ে দ্বিমুখী লড়াইয়ে নতুন সংযোজন বিজেপি, ১৪০ আসনের ভাগ্যনির্ধারণ
অলঙ্করণ: অভীক দেবনাথ।

তিরুবনন্তপুরম: পরীক্ষার মুখে বাম দুর্গ। ১৪০টি আসনে নিজেদের ভাগ্য পরীক্ষা করবে প্রধান দুই প্রতিপক্ষ এলডিএফ ও ইউডিএফ। অন্যদিকে, মেট্রোম্যান ই শ্রীধরনকে সামনে রেখে ১০০-রও বেশি আসনে জয়ের স্বপ্ন বুনছে কেন্দ্রের শাসকদল বিজেপি।

বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে লাগাতার প্রচার চালানোর অবশেষে ১৪০টি আসনে মোট ৯৫৭জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ করবে ২.৭৪ কোটি ভোটার। সকাল সাতটা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হবে, শেষ হবে সন্ধে সাতটায়। তবে নয়টি আসনে ভোটপর্ব সন্ধে ছটাতেই শেষ হবে।

করোনা সংক্রমণের কারণে নির্বাচন কমিশনের তরফে প্রতি বুথে এক হাজার ভোটার সংখ্যা বেধে দেওয়ায় মোট ৪০ হাজার ৭৭১টি পোলিং বুথ তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও রাজ্যের সমস্ত রাজনৈতিক দল, ভোটার ও নির্বাচন আধিকারিকদের জন্য বিশেষ করোনাবিধিও জারি করা হয়েছে। রাজ্যে শান্তিপূর্ণ ভোট করাতে ইতিমধ্যেই ১৪০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী উপস্থিত হয়েছে।

কেরল নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য প্রার্থীরা হলেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা। এছাড়াও ইউডিএফের রমেশ চেন্নিথালা, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওম্মেন চান্ডি, কে মুরলীধরণও লড়ছেন। প্রধান প্রতিপক্ষ হিসাবে উঠে আসা বিজেপির উল্লেখযোগ্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন মেট্রোম্যান ই শ্রীধরন, মিজোরামের প্রাক্তন রাজ্যপাল কুম্মানাম রাজাশেখরন, রাজ্য সভাপতি কে সুরেন্দ্রন, সুরেশ গোপী প্রমুখ।

কেরলে প্রতি পাঁচ বছর অন্তর এলডিএফ ও ইউডিএফের মধ্যে সরকারের রদবদল হলেও এবার দ্বিতীয়বারে জন্য সরকার গড়তে প্রস্তুত এলডিএফ জোট। অন্যদিকে ইউডিএফও প্রথা অনুযায়ী আগামী পাঁচবছরের জন্য শাসক দলের তকমা ছিনিয়ে নিতে প্রস্তুত। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে একটি মাত্র আসনে জয়লাভ করলেও এবারের নির্বাচনে তাদের লক্ষ্য ১০০-রও বেশি আসন দখল করা।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla