একমো সাপোর্টেও অতি সঙ্কটজনক স্ত্রী, ফুসফুসদাতা খুঁজছেন মুকুল রায়

সম্প্রতি করোনা (COVID-19) আক্রান্ত হওয়ায় বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় কৃষ্ণা রায়কে।

একমো সাপোর্টেও অতি সঙ্কটজনক স্ত্রী, ফুসফুসদাতা খুঁজছেন মুকুল রায়
ফাইল চিত্র

কলকাতা: চেন্নাইয়ে নিয়ে যাওয়া হতে পারে মুকুল রায়ের (Mukul Roy) স্ত্রী কৃষ্ণা রায়কে। কোভিডের কোপে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাঁর ফুসফুস। আপাতত অত্যন্ত সঙ্কটজনক অবস্থায় একমোয় রয়েছেন তিনি। তবে এই মুহূর্তে ফুসফুস প্রতিস্থাপন করা ছাড়া আর কোনও পথ খোলা নেই বলেই মনে করছেন চিকিৎসকরা। সেক্ষেত্রে অঙ্গদাতা প্রয়োজন। ব্রেন ডেথ হয়েছে এমন কারও অঙ্গ পেতে গেলে তার জন্য রিজিওনাল অর্গান অ্যান্ড টিস্যু ট্রান্সপ্লান্ট অর্গানাইজেশন (ROTTO)-এ নাম নথিভুক্ত করতে হবে। আপাতত তারই ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হওয়ায় বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় কৃষ্ণা রায়কে। অনেকে বলছেন, পরোক্ষ ভাবে অসুস্থ কৃষ্ণাদেবীই অনুঘটকের কাজ করেছেন তৃণমূল ও মুকুল রায়ের দূরত্ব ঘোচাতে। মুকুল রায়ের স্ত্রী, শুভ্রাংশু রায়ের মা কৃষ্ণাদেবীকে এই হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

অভিষেকের এই সফর ঘিরেই প্রথম জল্পনা তৈরি হয়েছিল, এবার সপুত্র পুরনো দলেই ফিরতে পারেন মুকুল রায়। শুভ্রাংশু তো বটেই মুকুল রায়ও ঘনিষ্ঠ মহলে অভিষেকের এই সৌজন্যে সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। শুধু অভিষেকই নন, ফোনে কৃষ্ণাদেবীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়েছিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

অনেকের মতে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের এই সৌজন্যই মন গলিয়ে দেয় ‘রায়বাবু’র। মুকুল অনুগামীদের কারও কারও মত, বিজেপিতে পদ পেলেও এই আন্তরিকতার অভাব কোথাও ধাক্কা দিচ্ছিল মুকুল রায়কে। এরইমধ্যে স্ত্রীর এতটা অসুস্থ হয়ে পড়া, রাজনীতিতে ‘জটিলতা’—সব কিছু মিলিয়ে পুরনো ঘরে ফেরার জন্য অধীর হয়ে উঠছিলেন মুকুল। এরপরই শুক্রবার তৃণমূল ভবনে ছেলেকে নিয়ে হাজির হন তিনি।

আরও পড়ুন: মহাপঞ্চমীর এক সকালে বলেছিলেন ‘তৃণমূল ছাড়ছি’! আজ বাদলবেলায় তৃণমূল ভবনে সেই মুকুল রায়

তবে পুরনো দলে রাজনীতির নতুন ইনিংস শুরু করলেও আপাতত স্ত্রীর চিকিৎসায় কিছুটা ব্যস্ত থাকতে পারেন মুকুল রায়। কৃষ্ণাদেবী যে হাসপাতালে ভর্তি, মঙ্গলবার রাতেই সেখানে চেন্নাই থেকে দুই চিকিৎসক এসেছিলেন। সূত্রের খবর, তাঁরা মুকুল-পত্নীর শারীরিক অবস্থা দেখে গিয়েছেন। তাঁদের পরামর্শ, ফুসফুস প্রতিস্থাপন করতে হবে। তবে এই মুহূর্তে কৃষ্ণাদেবীর যা অবস্থা তাতে একমো সাপোর্ট থেকে সরিয়ে চেন্নাই নিয়ে যাওয়াটাও চ্যালেঞ্জিং। সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি আরও কিছুটা স্বাভাবিক হলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে চেন্নাই উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হতে পারে মুকুল রায়ের স্ত্রীকে।