Bangladesh Cricket: দিনে দুপুরে ডাকাতি! বাংলাদেশের হারে আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন

ICC MEN’S T20 WC 2024: অন ফিল্ড আম্পায়ার লেগ বিফোর আউট দিয়েছিলেন। রিভিউতে অবশ্য তা পরিবর্তন হয়। বল ট্র্যাকিং টেকনোলজি দেখায়, লেগ স্টাম্প মিস করছিল। অন ফিল্ড আম্পায়ার যেহেতু আউট দিয়েছিলেন, ফলে সেটিতে বাউন্ডারি যোগ হয়নি। ডিআরএসে আউটের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হলেও বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী সেটি ডেড বল হয়, চার রান পায়নি বাংলাদেশ। হারের মার্জিনও কিন্তু সেই ৪ রান।

Bangladesh Cricket: দিনে দুপুরে ডাকাতি! বাংলাদেশের হারে আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন
Image Credit source: PTI
Follow Us:
| Updated on: Jun 11, 2024 | 1:54 PM

বিশ্বকাপ, বাংলাদেশ এবং আম্পায়ারিং নিয়ে ক্ষোভ। এটা না থাকলেই যেন অবাক হতে হয়। নিউ ইয়র্কের কাছে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে মাত্র ১১৪ রানের টার্গেট ছিল বাংলাদেশের। মিডল অর্ডার ব্যাটারদের সৌজন্যে ম্যাচ জেতার দিকেই এগচ্ছিল বাংলাদেশ। সিঙ্গল, ডাবলসের চেষ্টা করলে সহজেই জিততে পারত তারা। কঠিন পিচে বড় শট খেলতে গিয়েই সমস্যায় পড়ে। শেষ অবধি দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে মাত্র ৪ রানে হার। শেষ ওভারে ১১ রান প্রয়োজন ছিল বাংলাদেশের। দুটো উইকেটও হারায় তারা। ম্যাচ হেরেই আম্পায়ারিং নিয়ে ক্ষোভ বাংলাদেশ শিবিরে। আম্পায়ার দিনে দুপুরে ডাকাতি করছে, এমনই অভিযোগ।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে রান তাড়ায় দুর্দান্ত জায়গায় ছিল বাংলাদেশ। ম্যাচ তাদেরই নিয়ন্ত্রণে। শেষ চার ওভারে প্রয়োজন ছিল মাত্র ২৭ রান। হাতে তখনও ৬ উইকেট। যদিও বাংলাদেশের হারে ডিআরএস এবং আম্পায়ারিং বিতর্ক উঠে আসছে। দুই সেট ব্য়াটার মাহমুদুল্লাহ রিয়াধ ও তৌহিদ হৃদয় ক্রিজে থাকায় বাংলাদেশের জয় যেন সময়ের অপেক্ষা ছিল। ১৭তম ওভারে প্রোটিয়া পেসার ওটিনেল বার্টম্যানের দ্বিতীয় ডেলিভারিতে ফ্লিক করতে চেয়েছিলেন। মাহমুদুল্লার ব্যাটে না লাগলেও প্যাডে লেগে বাউন্ডারি হয়।

অন ফিল্ড আম্পায়ার লেগ বিফোর আউট দিয়েছিলেন। রিভিউতে অবশ্য তা পরিবর্তন হয়। বল ট্র্যাকিং টেকনোলজি দেখায়, লেগ স্টাম্প মিস করছিল। অন ফিল্ড আম্পায়ার যেহেতু আউট দিয়েছিলেন, ফলে সেটিতে বাউন্ডারি যোগ হয়নি। ডিআরএসে আউটের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হলেও বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী সেটি ডেড বল হয়, চার রান পায়নি বাংলাদেশ। হারের মার্জিনও কিন্তু সেই ৪ রান।

ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা বাংলাদেশ কোচিং টিমের সঙ্গে যুক্ত থাকা ওয়াসিম জাফর সরব হয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। বলছেন, ‘মাহমুদুল্লার ক্ষেত্রে ভুল সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছিল। ডিআরএসে সেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনও হয়। বাংলাদেশ কিন্তু চার রান পায়নি। বাংলাদেশ ফ্য়ানদের জন্য খারাপ লাগছে, শেষ অবধি ৪ রানেই হেরেছে টিম। বলিউড অভিনেত্রী তথা মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন ক্রিকেটার সায়ামি খেরও মনে করেন, ডেড বলের এই নিয়ম নিয়ে ভাবা উচিত। ওই ৪ রান পেলে বাংলাদেশ হয়তো জিতত।

বাংলাদেশের এক ক্রিকেট সমর্থক সোশ্যাল মিডিয়ায়, এটিকে দিনে দুপুরে ডাকাতি বলে বর্ণনা করেছেন। বাংলাদেশ হয়তো ৪ রানটা পেলে জিতত, তবে তাদের কাছে যে একেবারেই জেতার সুযোগ ছিল না, এমন বলা যায় না। বরং শেষ দিকে স্নায়ুর চাপেই ম্যাচ হেরেছে বাংলাদেশ। খুচরো রানে বেশি মনসংযোগ করলে, শেষ দিকে চাপ বাড়ত না।