সম্পূর্ণভাবে মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হবে ওলার ফিউচার ফ্যাক্টরি, জানিয়েছেন সিইও ভাবিশ আগরওয়াল

আগেই জানা গিয়েছিল যে, ওলার তামিলনাড়ুর কারখানা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইলেকট্রিক স্কুটার তৈরির কারখানা। এবার জানা গেল, এই কারখানা বিশ্বের প্রথম সবচেয়ে বড় কারখানা হতে চলেছে যা পুরোপুরি ভাবে মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হবে।

সম্পূর্ণভাবে মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হবে ওলার ফিউচার ফ্যাক্টরি, জানিয়েছেন সিইও ভাবিশ আগরওয়াল
ওলার ইলেকট্রিক স্কুটার।

১৫ অগস্ট ভারতে লঞ্চ হয়েছে নেদারল্যান্ডের সংস্থা ওলার ইলেকট্রিক স্কুটার। লঞ্চের আগেই বেশ কিছু রেকর্ড গড়েছিল ওলার ই-স্কুটার তৈরির কারখানা। লঞ্চের পরেও সেই ধারা বজায় রয়েছে। উল্লেখ্য, ভারতে দক্ষিণের রাজ্য তামিলনাড়ুতে ইলেকট্রিক স্কুটার নির্মাণের কারখানা তৈরি করেছেন ওলা কর্তৃপক্ষ। আগেই জানা গিয়েছিল যে, ওলা সংস্থার এই কারখানা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইলেকট্রিক স্কুটার তৈরির কারখানার খেতাব পেয়েছে। এবার জানা গিয়েছে যে, বিশ্বের প্রথম কারখানা হতে চলেছে ওলার এই ফ্যাক্টরি যা পুরোপুরি ভাবে মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হবে। ১০ হাজার মহিলা কর্মী পূর্ণ উদ্যোগে কাজ করবেন তামিলনাড়ুর এই কারখানায়। ১৩ সেপ্টেম্বর সোমবার এই দারুণ খবর টুইটারে শেয়ার করেছেন ওলা ইলেকট্রিকের সিইও ভাবিশ আগরওয়াল।

তামিলনাড়ুতে ওলার যে কারখানা রয়েছে তার প্রথম পর্যায়ের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছিল মাত্র চার মাসে। প্রতি বছর ২০ লক্ষ ইলেকট্রিক স্কুটার নির্মাণের ক্ষমতা রয়েছে এই কারখানার। ভারতের বাজারের পাশাপাশি আগামী বছর থেকে মার্কিন মুলুকেও পাড়ি দেবে তামিলনাড়ুর কারখানায় তৈরি ওলার ই-স্কুটার। ভাবিশ আগরওয়াল টুইট করে লিখেছেন, ‘আত্মনির্ভর ভারতে আত্মনির্ভর মহিলাদেরও প্রয়োজন। ওলার ফিউচার ফ্যাক্টরি সম্পূর্ণভাবে মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত হবে। এই খবর জানাতে পেরে গর্ব বোধ করছি। ১০ হাজারের বেশি মহিলা কাজ করবেন পূর্ণ উদ্যমে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় অল-ওমেন ফ্যাক্টরি হতে চলেছে এই কারখানা।’

তামিলনাড়ুতে প্রায় ৫০০ একর এলাকা নিয়ে গড়ে উঠেছে ওলার ফিউচার ফ্যাক্টরি। তামিলনাড়ু সরকারের সঙ্গে এই কারখানা নির্মাণের আগে ২৪০০ কোটি টাকার মউ স্বাক্ষর করেছিল নেদারল্যান্ডের সংস্থা ওলা। ২০২০ সালে অর্থাৎ গত বছর এই মউ স্বাক্ষরিত হয়েছিল। তারপর শুরু হয় জমি খোঁজার কাজ। জানুয়ারি মাসের মধ্যেই সেই কাজ সম্পর্ন হয়। আর ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে যায় কারখানা তৈরি কাজ। জানা গিয়েছে, ওলার ফিউচার ফ্যাক্টরিতে ইলেকট্রিক স্কুটার নির্মাণের জন্য ১০ হাজারের বেশি মহিলা কর্মীদের পাশাপাশি পাঁচ হাজার রোবট এবং automated guided vehicles ব্যবহার করা হয়। যে মহিলারা এই কারখানায় কাজ করবেন, তাঁদের সম্পূর্ণ ভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

ভারতে এস১ এবং এস১ প্রো, এই দুই ভ্যারিয়েন্টে লঞ্চ হয়েছে ওলার ইলেকট্রিক স্কুটার। ইতিমধ্যেই বাজারে এসেছে ওলার এস১ ই-স্কুটার। এর দাম এক লক্ষ টাকা (এক্স শোরুম)। অক্টোবর থেকে শুরু হবে গাড়ির ডেলিভারি। অনলাইনে যাঁরা ৪৯৯ টাকার বিনিময়ে এই ই-স্কুটার বুক করেছেন, তাঁরা সরাসরি বাড়িতে ডেলিভারি পাবেন। ওলার এস১ এবং এস প্রো ভ্যারিয়েন্টের ইলেকট্রিক স্কুটারের রেঞ্জ যথাক্রমে ১২০ এবং ১৮০ কিলোমিটার। এস১ ভ্যারিয়েন্টে ৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় স্পিড তুলতে সময় লাগে মাত্র তিন সেকেন্ড। সর্বোচ্চ গতি ১১৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। মোট ১০টি রঙে ভারতে লঞ্চ হয়েছে ওলার ইলেকট্রিক স্কুটার। সংস্থার দাবি, ৫০ শতাংশ চার্জ হতে সময় লাগে মাত্র ১৮ মিনিট। চার্জ দেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয় ওলার হাইপার চার্জার পয়েন্টগুলি।

আরও পড়ুন- দীপাবলির আগেই ভারতে লঞ্চ হবে পাঞ্চ মাইক্রো এসইউভি, জানিয়েছে টাটা মোটরস

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla