Ranna Puja: রান্নাপুজো আসলে কিসের পুজো ?

রান্না হয়ে যাবার পর হাঁড়িতে সিঁদুরের মাঙ্গলিক চিহ্ন দিয়ে শালুক ফুলের মালা দিয়ে রেখে দেওয়াটাই রেওয়াজ...

দুধে ভাতে বাঙালি, মাছে ভাতে বঙ্গবাসী। বাঙালির উৎসবে মেতে উঠতে কোনও কারণ লাগে না। আজ বিশ্বকর্মা পুজোর দিন প্রায় সারা বাংলা জুড়ে পালিত হয় রান্নাপুজো। পণ্ডিতরা বলেন বেদ এবং অন্যান্য শাস্ত্রে প্রমাণ পাওয়া যায় দেবী মনসা নাকি জলের অন্বেষণেই পশ্চিম থেকে পুবে এসেছিলেন। রান্নাপুজোর দিন গার্হস্থ আগুনকে বন্ধ রেখে কী বার্তা দিতে চায় আমাদের অতীত লোকাচার? শীতল রাখো পৃথিবী কে! ভবিষ্যতের জন্য জমিয়ে রাখো জল, তবেই সুস্থ থাকবে তোমার আগামী দিনগুলো। এভাবেই ভূগর্ভস্থ জল সংরক্ষণের গুরুত্বপূর্ণ বার্তা আদিম এক উৎসবের উদযাপনের মধ্য দিয়ে রেখে যেতে চায় রান্না পুজো। আসলে আমাদের লোকাচারগুলো বারে বারে আমাদের শিকড়ের সূত্র স্মরণ করিয়ে দেয়। কোথাও যেন এই বিভিন্ন লোকাচার বলে যায় আমাদের অতীত গৌরব এবং তাকে বজায় রাখা কতটা গুরুত্বপূর্ণ। পঞ্চব্যঞ্জন সহযোগে দক্ষিণ ২৪ পরগনার চণ্ডী গ্রামে রান্না পুজোর আয়োজন করেছেন ওঁরা। সন্ধ্যা থেকে ভোররাত পর্যন্ত চলেছে রান্নাবান্না। শাকসবজি, ডাল, মাছ, নারকোল থেকে শুরু করে চালতার চাটনি আর ঘন পায়েস। রান্না হয়ে যাবার পর হাঁড়িতে সিঁদুরের মাঙ্গলিক চিহ্ন দিয়ে শালুক ফুলের মালা দিয়ে রেখে দেওয়াটাই রেওয়াজ। তারপর উনোনের আঁচ নিভিয়ে তার পাশে সব রান্না করা খাবার আর পানের খিলি সেজে রেখে দেয় গ্রামবাসীরা।

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla