মর্গে উপচে পড়ছে দেহ, দুর্গন্ধে টেকা দায়! ‘ফ্রিজ খারাপ’, সাফাই হাসপাতাল সুপারের

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে জানা গিয়েছে, মর্গের (Morgue) কাছেই মহিলা ও শিশুদের ওয়ার্ড। দুর্গন্ধে জেরবার রোগী থেকে শুরু করে হাসপাতাল কর্মীরাও। শুধু তাই নয়, মেটারনিটি বিভাগ কাছেই হওয়ার জন্যই স্বাস্থ্যহানি ঘটতে পারে গর্ভবতী মা ও শিশুদের। সেই কথা চিন্তা করেই ইতিমধ্যেই স্থানান্তরিত করা হয়েছে ওই দুটি বিভাগ।

মর্গে উপচে পড়ছে দেহ, দুর্গন্ধে টেকা দায়! 'ফ্রিজ খারাপ', সাফাই হাসপাতাল সুপারের
নিজস্ব চিত্র

বীরভূম: হাসপাতালের মর্গে উপচে পড়ছে দেহ! দুর্গন্ধে ভরেছে গোটা হাসপাতাল। করোনাকালে এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির ছবি উঠে এল বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে। মর্গের (Morgue) রেফ্রিজারেটর খারাপ হওয়ায় এই বিপত্তি দাবী হাসপাতাল সুপারের।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে জানা গিয়েছে, মর্গের (Morgue) কাছেই মহিলা ও শিশুদের ওয়ার্ড। দুর্গন্ধে জেরবার রোগী থেকে শুরু করে হাসপাতাল কর্মীরাও। শুধু তাই নয়, মেটারনিটি বিভাগ কাছেই হওয়ার জন্যই স্বাস্থ্যহানি ঘটতে পারে গর্ভবতী মা ও শিশুদের। সেই কথা চিন্তা করেই ইতিমধ্যেই স্থানান্তরিত করা হয়েছে ওই দুটি বিভাগ। খবর দেওয়া হয়েছে রেফ্রিজারেটর সারাই করার কম্পানিকেও।করোনাকালে এই ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে হাসপাতাল চত্বরে। ক্ষুব্ধ রোগী ও তাঁদের পরিজনরা। তাঁদের দাবী, হাসপাতালে যদি এইভাবে দুর্গন্ধ জেরবার হতে হয়, তবে অসু্স্থ যাঁরা তাঁদের আরও স্বাস্থ্যহানি ঘটতে পারে।

ঘটনায় বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সুপার দীপেন্দু দত্ত বলেন, “গত বছর লকডাউনের সময়েও একবার মর্গের (Morgue) রেফ্রিজারেটর খারাপ হয়ে যায়। তখন আমরা তেরোটি দেহ ডিসপোজ় করতে পেরেছিলাম। এখন মর্গে (Morgue) পাঁচটি অশনাক্ত দেহ পড়ে রয়েছে। এর মধ্যে বোলপুর থানার দুটি, শান্তিনিকেতন থানার তিনটি। দুই থানাতেই খবর দেওয়া হয়েছে। কিন্তু পুলিশি তরফে কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি।গত, ৩জুন থেকে রেফ্রিজারেটরটি বিকল হয়ে পড়ে। গত ৭ তারিখ থেকে ব্যাপক দুর্গন্ধ ছড়াতে শুরু করে। তবে আজ দুর্গন্ধ এত বেড়ে গিয়েছে, আশঙ্কা করছি হয়ত হাসপাতাল বন্ধ করে দিতে হতে পারে। আমরা কম্পানিকে আগেই খবর দিয়েছিলাম। এর আগে একবার সারানো হয়েছিল। কিন্তু, সেই রিপায়েরিংয়ের কাজ ঠিক হয়নি। ফলে খারাপ হয়ে গিয়েছে রেফ্রিজারটরটি। ইতিমধ্য়েই আমরা জেলা স্বাস্থ্য দফতরে খবর দিয়েছি।”

জেলার মুখ্য় স্বাস্থ্য় আধিকারিক হিমাদ্রি আড়ি বলেন, “আমি ঘটনাটা জানতে পারি হাসপাতাল সুপারের মাধ্য়মে। প্রশাসনের তরফ থেকে বীরভূম জেলা শাসক বিধান রায় ও জেলা পুলিশ সুপার নগেন্দ্র ত্রিপাঠিকে জানানো হয়েছে। দ্রুত ওই দেহগুলি যাতে সৎকার করা যায় তার ব্যবস্থা করা হবে।”

আরও পড়ুন: মানে মন্দ, মাপে কম! মিড-ডে মিল সামগ্রী নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ অভিভাবকদের

 

 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla