Asteroid: ধাক্কা লাগলে তৈরি হতে পারে অর্ধেক কলকাতার সমান বিশাল গর্ত! ধেয়ে আসছে ১১০ ফুটের গ্রহাণু

NASA Asteroid Warning: ৫টা দিন বেশ ভয়ে ভয়ে কাটছে মহাকাশ গবেষকদের। কারণ ৫দিনের মধ্যে, কমপক্ষে ৫টি গ্রহাণু অত্যন্ত কাছ দিয়ে পৃথিবীকে অতিক্রম করছে। রবিবার ভোরে পৃথিবীর ৪৭ লক্ষ কিলোমিটারের মধ্যে চলে আসবে ১১০ ফুট চওড়া '২০২২ ওটি১' গ্রহাণু।

Asteroid: ধাক্কা লাগলে তৈরি হতে পারে অর্ধেক কলকাতার সমান বিশাল গর্ত! ধেয়ে আসছে ১১০ ফুটের গ্রহাণু
ধেয়ে আসছে ৫টি গ্রহাণু
TV9 Bangla Digital

| Edited By: Amartya Lahiri

Aug 12, 2022 | 7:08 PM

ওয়াশিংটন: ৫টা দিন বেশ ভয়ে ভয়ে কাটছে মহাকাশ গবেষকদের। কারণ ৫দিনের মধ্যে, কমপক্ষে ৫টি গ্রহাণু অত্যন্ত কাছ দিয়ে পৃথিবীকে অতিক্রম করছে। এই গ্রহাণুগুলির মধ্যে অন্তত তিনটি বিশালাকার, যা মহাকাশ গবেষকদের মতে ‘উদ্বেগজনক’। কারণ তাদের হিসেবে একটু ভুলচুক হলেই সেগুলি ধেয়ে আসতে পারে সোজা পৃথিবীর দিকে। আর ঘটতে পারে বড় সড় বিপর্যয়! সবথেকে বেশি ভয় রয়েছে, ‘২০২২ ওটি১’ (2022 OT1) নামে গ্রহাণুটিকে নিয়ে। ১১০ ফুট চওড়া এই গ্রহাণুটি, ধেয়ে আসা পাঁচটির মধ্যে আকারে সবখেকে বড়। রবিবার ভোরে পৃথিবীর ৪৭ লক্ষ কিলোমিটারের মধ্যে চলে আসবে ‘২০২২ ওটি১’!

নাসার বিজ্ঞানীদের মতে, রবিবার ভোরে, ভারতীয় সময় প্রায় ৩টে বেজে ২৩ মিনিট নাগাদ ‘২০২২ ওটি১’ গ্রহাণুটি পৃথিবীর সবথেকে কাছাকাছি চলে আসবে। সেই সময় গ্রহাণুটি প্রতি সেকেন্ডে ৫.৭ কিলোমিটার অর্থাৎ, ঘণ্টায় প্রায় ২০,৫২০ কিলোমিটার গতিবেগে তার কক্ষপথ ধরে ছুটে যাবে। বর্তমানে, নাসা গ্রহাণুটির কক্ষপথের যে যে মডেল তৈরি করেছে, তাতে গ্রহাণুটি পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসার কোনও সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। তবে, মহাজাগতিক বিষয়ে মানুষের জ্ঞান এখনও খুবই সীমিত। তাই যে কোনও মুহূর্তে হিসেব গোলমাল হয়ে যেতে পারে। নাসার মতে, যদি কোনওভাবে এই আকারের একটি গ্রহাণু পৃথিবীকে আঘাত করে, তাহলে প্যারিস শহরের আকারে, অর্থাৎ কলকাতা শহরের প্রায় অর্ধেক আকারের একটি বিরাট গর্ত তৈরি হবে। আর সেটা হলে, মানব সভ্যতার ইতিও ঘটতে পারে।

তবে, ‘২০২২ ওটি১’ একাই নয়, উদ্বেগ ছিল ১০০ ফুট চওড়া ‘২০২২ পিকে১’ গ্রহাণুকে নিয়েও। তবে ১১ অগস্ট, কোনও ঝঞ্ঝাট না করেই এটি পৃথিবীর পাশ দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছে। সেই সময় আমাদের গ্রহ থেকে ওই গ্রহাণুটির দূরত্ব ছিল মাত্র ৫২ লক্ষ কিলোমিটার। আগামী ৫ দিনে ‘২০২২ ওটি১’ ছাড়াও পৃথিবীকে খুব কাছ দিয়ে অতিক্রম করবে ৫৩ ফুট চওড়া ‘২০১৫ এফএফ’ গ্রহাণু (১২ অগস্ট), ৭১ ফুট চওড়া ‘২০২২ ওএ৪’ (14 অগস্ট), এবং ৯৩ ফুট চওড়া ‘২০২২ পিডব্লু’ (১৬ অগস্ট)। এছাড়াও, গত কয়েকদিনে, বেশ কয়েকটি বড় আকারের গ্রহাণু বিপজ্জনকভাবে পৃথিবীর খুব পাশ দিয়ে উড়ে গিয়েছে। সেগুলির মধ্যে একটিও এই গ্রহে আঘাত করলে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।

নাসার ‘অ্যাস্ট্রয়েড ওয়াচ’ বিভাগের কাজই হল এই গ্রহাণুদের উপর নজর রাখা। পৃথিবীর ৭৫ লক্ষ কিলোমিটারের মধ্যে যে যে গ্রহাণু এবং ধূমকেতুগুলিকে চলে আসে, তাদের সম্ভাব্য গতিপথ তৈরি করে তারা। এই দূরত্বটা পৃথিবী এবং চাঁদের প্রায় ১৯.৫ গুণ। কিন্তু, এই দূরত্বের মধ্যে ১৫০ মিটারের চেয়ে বড় যে কোনও বস্তুকেই সম্ভাব্য বিপজ্জনক বস্তু হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়। কারণ এই পরিসরে পৃথিবীর অভিকর্ষের সঙ্গে তাদের মিথক্রিয়া বিপর্যয়কর পরিণতি ঘটাতে পারে। আমরা সকলেই জানি ডাইনোসরদের কী পরিণটি ঘটেছিল। একটি বিশালাকার গ্রহাণু এসে পড়েছিল পৃথিবীতে। তা থেকে গোটা পৃথিবীতে খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছিল। আর, তার জেরেই বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিল প্রবল পরাক্রমী ডাইনোসরদের।

Follow us on

Related Stories

Most Read Stories

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla