ইলিশপ্রেমীদের জন্য সুখবর! বিধিনিষেধ কাটিয়ে পদ্মায় পড়বে জাল, শীঘ্রই পাতে উঠবে ‘রুপোলি ফসল’

বিগত এক সপ্তাহ ধরে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে সমুদ্রে ট্রলার নামানো না গেলেও আশায় বুক বাঁধছেন মৎসজীবীরা। কারণ, এ বছর জলের মান তুলনামূলকভাবে ভাল হওয়ায় এ বার ইলিশের স্বাদ ও সংখ্যা বাড়তে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।

ইলিশপ্রেমীদের জন্য সুখবর! বিধিনিষেধ কাটিয়ে পদ্মায় পড়বে জাল, শীঘ্রই পাতে উঠবে 'রুপোলি ফসল'
রুপোলি ফসলের অপেক্ষায় বাঙালি। ফাইল চিত্র।

ঢাকা: ভরা বর্ষায় পাতে গরমাগরম ইলিশের দু-টুকরো না পড়লে কি আর দুপুর জমে! তবে এ বার গঙ্গার ইলিশে আকাল, যে কয়েক হাজার কেজি রুপোলি শস্য় ঢুকেছিল, তার দামওও দেড়-দু’হাজার পার করেছিল। তবে আর বেশিদিন অপেক্ষা নয়, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বাঙালির পাতে পড়তে পারে পদ্মার ইলিশ।

করোনা সংক্রমণের জেরে জুলাই মাসের শুরু থেকেই বাংলাদেশে জারি করা হয়েছে কড়া বিধিনিষেধ। তা লাগু রয়েছে এখনও। তবে মৎসজীবীদের কথা মাথায় রেখে গত ২৩ জুলাই থেকেই ৬৫ দিনের জন্য মাছ ধরার উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে হাসিনা সরকার। এরফলে পদ্মা বা সাগরে যেতে আর কোনও সমস্যা নেই মৎসজীবীদের।

বিগত এক সপ্তাহ ধরে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে সমুদ্রে ট্রলার নামানো না গেলেও আশায় বুক বাঁধছেন মৎসজীবীরা। কারণ, এ বছরেবিধিনিষেধের কারণে সমুদ্রে দূষণের পরিমাণ যেমন কিছুটা কমেছে, তেমনই আবার ইলিশদের প্রজনন ও বিচরণের জন্য অনুকুল পরিবেশেরও সৃষ্টি হয়েছে।  জলের মান ভাল হওয়ায় এ বার ইলিশের স্বাদ ও সংখ্যা বাড়তে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের ইলিশ গবেষকরাও জানিয়েছেন, জুন মাসেই নদী ও সমুদ্রে দ্রবীভূত অক্সিজেন, পিএইচ লেভেল, ক্ষার ও অ্যামোনিয়ার পরিমাণ পরীক্ষা করা হয়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে, অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছরে জলের মান তুলনামূলকভাবে অনেক ভাল। ফলে ইলিশের প্রজনন ও মানও ভাল হওয়ারই কথা।  আপাতত মৎসজীবীদের অপেক্ষা করছেন রোদ ঝলমলে আকাশের। খারাপ আবহাওয়া মুখ ফেরালেই সমুদ্রে ট্রলার নামাবেন তাঁরা।  আরও পড়ুন: এপার-ওপার স্মৃতিময় একাকার… ৫৬ বছর পর গড়াল চাকা, কু ঝিক ঝিক করে এপার বাংলা থেকে ট্রেন চলল বাংলাদেশ 

Click on your DTH Provider to Add TV9 Bangla