‘সবে তো ট্রেলর’ ইজরায়েল দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণস্থল থেকে উদ্ধার উড়ো চিঠি

গতকাল বিস্ফোরণের পরই এলাকার সমস্ত সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই ফুটেজে দেখা গিয়েছে, একটি ক্যাব দুই ব্যক্তিকে নামিয়ে চলে যাচ্ছে। ওই দুই ব্যক্তিকে ঘটনাস্থলের দিকে হেঁটে যেতেও দেখা যায়।

‘সবে তো ট্রেলর’ ইজরায়েল দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণস্থল থেকে উদ্ধার উড়ো চিঠি
ঘটনাস্থান খতিয়ে দেখছে দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখা। ছবি:ANI

নয়া দিল্লি: শুক্রবার রাতে রাজধানীতে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণ ঘিরে বাড়ছে রহস্য। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বিস্ফোরণস্থল থেকে একটি প্যাকেট উদ্ধার হয়। সেই প্যাকেটের গায়ে একটি নোটে লেখা ছিল “এটা তো শুধু ট্রেলর”। এরপরই ঘটনার সঙ্গে ইজরায়েলের যোগের সম্ভাবনা আরও তীব্র হয়েছে। শনিবারই ইজরায়েল থেকে ভারতে বিশেষ তদন্তকারী দল আসছে বলে জানিয়েছে বিদেশমন্ত্রক।

শুক্রবার এপিজে আব্দুল কালাম রোডে ইজরায়েল দূতাবাসের সামনে একটি বিস্ফোরণ হয়। স্বল্প পরিমাণ বিস্ফোরক ব্যবহার করায় কেউ আহত হননি। তবে আশেপাশে দাঁড়িয়ে থাকা কয়েকটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ জানায়, দূতাবাস থেকে ১৫০ মিটার দূরেই ফুটপাথে অ্যামোনিয়মা নাইট্রেট জাতীয় কোনও বিস্ফোরক রাখা ছিল। যেই প্যাকেটে বিস্ফোরকটি মুড়ে রাখা হয়েছিল, তার গায়েই এই চিঠিটি লেখা ছিল। চিঠিতে ইরানের পরমাণু গবেষক মোহসেন ফাকরিজাদে (Mohsen Fakhrizadeh) ও ইরানের জেনারেল কর্তা কাশিম সোলেমানি (Qasem Soleimani)-র নাম শহিদ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

দিল্লির উচ্চ নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যেই পড়ে এই দূতাবাস। গতকাল বিস্ফোরণের পরই এলাকার সমস্ত সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই ফুটেজে দেখা গিয়েছে, একটি ক্যাব দুই ব্যক্তিকে নামিয়ে চলে যাচ্ছে। ওই দুই ব্যক্তিকে ঘটনাস্থলের দিকে হেঁটে যেতেও দেখা যায়। ইতিমধ্যেই দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল ওই ক্যাবচালকের সঙ্গে যোগাযোগ করে স্কেচ তৈরির কাজ শুরু করেছে।

আরও পড়ুন: পুলওয়ামায় রাতভর চলল এনকাউন্টার, ভোরে অস্ত্র-সহ আত্মসমর্পণ ২ জঙ্গির

চিঠিতে সোলেমানি ও পরমাণু বিশেষজ্ঞের নাম উল্লেখ থাকাতেই ইজরায়েল দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণে ইরান যোগের সন্দেহ আরও তীব্র হয়েছে। উল্লেখ্য, গতবছর মার্কিন ড্রোন হামলায় সোলেমানি প্রাণ হারিয়েছিলেন। ইরান এই মৃত্যুর বদলা নিতে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump)-র বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি করেছিল। এই বিষয়ে ইন্টারপোলের কাছেও সহায়তার আবেদন করেছিল ইরান। কিন্তু প্রেসিডেন্ট পদে থাকার কারণে গ্রেফতারি সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছিল আন্তর্জাতিক অপরাধদমন সংস্থা।

সম্প্রতি আমেরিকার প্রেসিডেন্টের গদি পরিবর্তন হয়েছে। নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট হয়েছিল জো বাইডেন। এদিকে ভারতের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক বিগত কয়েক বছর ধরেই ভাল থাকায় আমেরিকাকে পরোক্ষে বার্তা দিতে এদেশে বিস্ফোরণ করা হল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুন: ওভারটেক করতে গিয়ে একটি গাড়ির উপর উঠল আরেকটি গাড়ি, মৃত কমপক্ষে ১০